শিরোনামঃ

আজ মঙ্গলবার / ১১ই আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ২৫শে জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ / ১৯শে জিলহজ ১৪৪৫ হিজরি / এখন সময় দুপুর ২:১৯

দর্শকদের ভীড়. গুরুদাসপুর আনন্দ সিনেপেক্সে শো বাড়ানোর দাবি

মোঃ মাসুদ রানা গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি. নাাটোর জেলার একমাত্র সিনেমা হল আনন্দ সিনেপ্লেক্স। জেলা ছাপিয়ে অন্য জেলা থেকেও আসছে বিনোদন প্রেমী দর্শকশ্রতা। ঈদের সপ্তম দিনেও চলছে টিকেট সংকট। দর্শকদের চাহিদার কথা মাথায় রেখেই আনন্দ সিনেপ্লেক্সে কর্তৃপক্ষ ‘প্রিয়তমা’র ৪টি শো চালাচ্ছেন। চাহিদা বিবেচনায় শো বাড়ানোর দাবি দর্শকদের।

দেশব্যাপী সিনেমা হলগুলোতে ঈদের সিনেমা দেখার ধুম পড়েছে। বনলতা সেনের নাটোরের গুরুদাসপুরে আনন্দ সিনেপ্লেক্সের একই অবস্থা! মঙ্গলবার দুপুরে আনন্দ সিনেপ্লেক্সে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে দর্শকদের উপছে পরা ভিড়! কাউন্টারের সামনে দর্শকের দীর্ঘ সারি। রীতিমত দাঁড়ানোরও যেন ঠাঁই নেই!

আনন্দ সিনেপ্লেক্সে কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে জানা যায়, দুপুর ১২টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত ‘প্রিয়তমা’র শো দেখতে দর্শকের ভিড় লেগেই আছে । লাইনে দাঁড়ানো বেশীর ভাগই অগ্রিম টিকিট বুকিং দিয়েছেন। অনেকে টিকিট না পেয়ে ফিরেও যাচ্ছেন। এখানে সাংস্কৃতিমনা প্রায় সকল পেশার লোকই পরিবার বন্ধু বান্ধব প্রিয়জনদের নিয়ে আসছেন সিনেমাটি দেখতে।তবে সিট সংকুলান না হয়ে অনেকেই হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আনন্দ সিনেপ্লেক্সে দৈনিক মাত্র ৪টি শো চলছে ‘প্রিয়তমা’র। বুধবারের সবগুলো শো’র অগ্রিম টিকিট আগেই বিক্রি হয়ে গেছে। এসময় দর্শকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে সিনেপ্লেক্সে ‘প্রিয়তমা’র আরও কিছু শো বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার সরেজমিনে দেখাযায় ‘প্রিয়তমা’র টিকিট না পাওয়া দর্শকদের কিছু অংশ এই প্রতিবেদকের কাছে অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রিয়তমা’র এতো চাহিদা থাকার পরেও কর্তৃপক্ষ কেন শো বাড়াচ্ছেন না?

সপরিবারে সিংড়া উপজেলা থেকে আসা মো. আব্দুস সালাম বলেন, ‘প্রিয়তমা’র রিভিউ সবচেয়ে ভালো এজন্য স্ত্রীকে নিয়ে দেখতে এসেছিলাম কিন্তু টিকিট পেলাম না। এগুলো মোটেও ঠিক না।

নাটোরের পুলিশ লাইন থেকে আসা কয়েকজন বন্ধু বলেন, শাকিব ভক্ত আমরা তাই আশা নিয়ে ‘প্রিয়তমা’ দেখতে এসেছিলাম। কিন্তু টিকেট না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে। যেহেতু টিকিট পাইনি তাই বন্ধুদের সাথে একটা সেল্ফি মেরে বের হচ্ছি।
আনন্দ সিনেপ্লেক্সের সত্বাধিকারী মোঃ আনিসুর রহমান বলেন, আকাশ সাংস্কৃতির কারনে মুল সাংস্কৃতিগুলো ধ্বংসের দাড়প্রান্তে। এক মাত্র সরকারের সুদৃষ্টিই পারে দর্শকদের মুল সাংস্কৃতিতে ফিরে আনতে। তাহলে দেশ ও সমাজ অনেকটাই অপরাধমুক্ত থাকবে বলে তিনি আশা ব্যাক্ত করেন। প্রিয়তমার সাফল্যে তিনি খুশি।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap