শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ২৭শে শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ১১ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১২ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সকাল ১১:০৫

সৎ ও যোগ্য প্রার্থী কে নির্বাচিত করা উচিৎ!

শুভ কুমার ঘোষ, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সিরাজগঞ্জের সদর উপজেলা ভাইস চেয়াম্যান পদপ্রার্থী এস এম নাছিম রেজা নুর দিপু। নির্বাচিত হলে এলাকার জনগনের সেবায় কিভাবে নিজেকে নিয়োজিত করতে চান, কোন কোন সমস্যাকে অগ্রাধিকার দিয়ে সমাধান করতে চান, সেসব বিষয় নিয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন। তার কথপোকথনের উল্লেখযোগ্য অংশ, তারই ভাষায় পাঠকদের উদ্দ্যেশ্যে তুলে ধরা হলো।

নির্বাচিত হলে এলাকার মানুষের জন্য যে কাজগুলো সবার আগে গুরুত্ব দেয়া হবেঃ

এলাকার জনগনের মূল্যবান ভোটে আসন্ন নির্বাচনে উপজেলা ভাইস চেয়াম্যান পদে নির্বাচিত হলে, এলাকার সকল সমস্যা ও সম্ভাবনাকে যথাযথভাবে কাজে লাগানোর চেষ্টা তো আমার থাকবেই, এর মধ্যে সব চেয়ে বেশী গুরুত্ব দিব কর্মসংস্থানের। কিভাবে আরও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে বেকারত্ব দূর করা যায় সেটা খুঁজে বের করবো। পাশাপাশি চেষ্টা থাকবে আরও উদ্যোক্তা তৈরি করার। তারপর গুরুত্ব দিতে চাই শিক্ষার মান উন্নয়ন ও কর্মমূখী শিক্ষার দিকে।

এলাকার রাস্তা-ঘাটসহ অবকাঠামো আরো কিভাবে উন্নয়ন করা যায় সেটাকেও আমি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গুরুত্ব দিতে চাই। একইসঙ্গে সামাজিক নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলার চেষ্টা থাকবে নিরন্তর। আপনারা জানেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশ খুব দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। দেশে অবকাঠামো ও শিল্প উন্নয়নে বৈপ্লবিক পরিবর্তন হচ্ছে। এর ধারাবাহিকতায় আমার নির্বাচনী এলাকায় ১১০০ কোটি (এক হাজার এক শত) টাকা ব্যয়ে বিসিক শিল্প পার্কের কাজ শুরু হয়েছে।

এছাড়া ১৬,৩০০ (ষোল হাজার তিন শত) কোটি টাকা ব্যয়ে দেশের সর্ববৃহ্ৎ অর্থনৈতিক অঞ্চল “সিরাজগঞ্জ ইকনোমিক জোন”-এর কাজ উদ্ভোধন হয়েছে। এসব উন্নয়ন আজ দৃশ্যমান। এই দুইটি বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে আমার নির্বাচনী এলাকায় শিল্প বিপ্লব ঘটবে এবং ব্যপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। মানীনয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অত্যান্ত স্নেহভাজন, সিরাজগঞ্জের ত্রিশ লক্ষ মানুষের নয়নের মনি, আধুনিক সিরাজগঞ্জের রূপকার, আমাদের সিরাজগঞ্জবাসীর অভিভাবক, সিরাজগঞ্জ-২ আসনের (সিরাজগঞ্জ সদর, কামারখন্দ) মাননীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্নার প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে এসকল বৃহৎ প্রকল্প দ্রুততার সাথে বাস্তবায়িত হচ্ছে।

এই ব্যাপক কর্মসংস্থান এবং উদ্যোক্তা সৃষ্টির লক্ষ্যে আমাদের সন্তানদের শিক্ষার মান এবং কর্মমূখী শিক্ষার কথা মাথায় রেখে আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্না ভাই সিরাজগঞ্জ সদর এবং কামার খন্দে দুটি সরকারী টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেছেন। এছাড়া সিরাজগঞ্জ সদরের প্রত্যেকটি স্কুল কলেজ এবং মাদ্রাসায় অবকাঠামো উন্নয়ন ও শিক্ষার মান বজায় রেখেছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী স্লোগান ছিল “গ্রাম হবে শহর”।

আমার নির্বাচনী এলাকায় যেহেতু ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ এবং একটি পৌরসভা রয়েছে। সেহেতু ১০ টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, পৌরসভার চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়কে সাথে নিয়ে এবং আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাতের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়নে কাজ করব।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই তিনি সিরাজগঞ্জ পৌরসভা এবং তার নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি ইউনিয়নের অবকাঠামো উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করেছেন। আমার নির্বাচনী এলাকায় অনেক অসহায় বৃদ্ধ, বিধবা এবং প্রতিবন্ধী রয়েছেন, যারা সমাজে অত্যান্ত অবহেলিত। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সামাজাকি নিরাপত্তার বিষয়টি অত্যান্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছেন। তাই আমিও সিরাজগঞ্জের প্রাণপ্রিয় নেতা মাননীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্না ভাই এবং আমাদের মাননীয় উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়ের সঙ্গে থেকে সামাজিক নিরপত্তা বলয় তৈরীর চেষ্টা করব।

বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা’র মাধ্যমে সামাজিক নিরাপত্তা আরও বাড়ানোর উদ্দ্যোগ নিব। এলাকার সমস্যা চিহিৃতকরণ ও সমাধানে গুরুত্ব আরোপঃ মাদক একটা সামাজিক ব্যাধি, যা এখন মহামারী পর্যায়ে চলে গেছে। সরকারের পাশাপাশি আমরাও মাদকরে বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলব। বাল্য বিবাহ রোধে আমার অবস্থান হবে কঠোর।

আমি মনে করি, একজন শিক্ষিত সুস্থ ‘মা’ জাতি গঠনে সবচেয়ে বড় আবদান রাখে। তাই বাল্য বিবাহ বন্ধ হওয়া দরকার। ইভটিজিংয়ের মত সামাজিক সমস্যা রোধে সোস্যাল ক্যাম্পেইনের পাশাপাশি যেসব উদ্দ্যোগ নেয়া যায় তা সবই করতে আমি দৃঢ় প্রত্যয়ী। সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজি নির্মূলে প্রসাশনকে সর্বাত্বক সহায়তা করতে আমার ভূমিকা হবে নির্ভিক। সব রকমের সামাজিক সমস্যা সামধানের লক্ষ্যে একটি মনিটরিং সেল গঠন করার উদ্দ্যোগ নিতে চাই, যাতে দ্রুত সমস্যার সমাধান করা যায়।

কেন আমি ব্যতিক্রমঃ

অনুকুল এবং প্রতিকুল উভয় পরিস্থিতিতে আল্লাহর রহমতে নিজেকে আমি সমানভাবে সামলাতে পারি। অনুকুলে যেমন স্রোতে গা ভাসাই না, আবার প্রতিকূলে ভেঙ্গেও পড়িনা। আমার সক্ষমতাঃ আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা, আধুনিক সিরাজগঞ্জের রূপকার, সিরাজগঞ্জ-২ আসনের (সিরাজগঞ্জ সদর, কামারখন্দ) মাননীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্না ভাই আমাকে অত্যান্ত স্নেহ করেন এবং ভালবাসেন। তিনি আমার অভিভাবক। এই প্রিয় নেতার সাথে আমার রয়েছে দীর্ঘ বছরের সু-সম্পর্ক।

তাই আমার সততা, নিষ্ঠা এবং একাগ্রতা দিয়ে, প্রিয় নেতার স্নেহধন্য হয়ে তার হাত ধরে, এলাকার সর্বাত্বক উন্নয়নে আমি ভালো ভূমিকা রাখতে সক্ষম হব, ইনশাআল্লাহ। জনগনের কাছে প্রত্যাশাঃ সারাটা জীবন ধরে সততা, নিষ্ঠা এবং ন্যায়নীতি সমুন্নত রেখে মানুষের জন্য কাজ করার চেষ্টা করেছি। তাই আমার নির্বাচনী এলাকার সকল মানুষের কাছে আবেদন থাকবে, সৎ, ভাল এবং অধিক যোগ্য প্রার্থী যারা, তাদেরকে নির্বাচিত করুন। আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে সততার সাথে জনগনের আরও পাশে থেকে সেবা করার সুযোগ দিন। আমি কৃতজ্ঞচিত্তে সততার রাজনীতি বাস্তবায়ন করব ইনশাল্লাহ।।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap