শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৭:২২

ভাঙ্গুড়ায় মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ, সাড়ে তিন লক্ষ টাকার রফাদফার অভিযোগ

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারি মেডিক্যাল অফিসার রুবেল আহমেদের (২৭) বিরুদ্ধে হাজী গয়েজ উদ্দিন মহিলা মাদ্রাসার আলিম দ্বিতীয় বর্ষের (১৭) নামে এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের টলটলিয়াপাড়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। বিষয়টি জানাজানি হলে ঐ রাতেই গ্রামের প্রধানদের নিয়ে শালিশ বৈঠক বসে।

সারারাত ধরে দরবার চলে অতঃপর ধর্ষিতার ক্ষতিপুরণ বাবদ ধর্ষককে সাড়ে তিন লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়। ধর্ষিতার পরিবার সুত্রে জানা যায়, রুবেল আহমেদ বিয়ের প্রলোভোন দেখিয়ে তাদের মেয়ের সাথে সম্প্রতি অবৈধ মেলামেশা শুরু করে। ঘটনার দিন রাতে মেয়ের ঘরে রুবেল আহমেদ এর অবস্থান টের পেয়ে বাড়ির লোকজনসহ গ্রামবাসি আপত্তিজনক অবস্থায় তাকে আটক করেন।

পরে গ্রামের প্রধান সাবেক মেম্বর মহির উদ্দিন ও বর্তমান ইউপি সদস্য হারুন অর রশিদ কে ডেকে এনে রুবেলকে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। বিষয়টি পারভাঙ্গুড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হেদায়েতুল্লাহ হক কে জানানো হলে তিনিও ওই রাতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছেন। সারা রাত ধরে দরবার চলে। তখন ধর্ষক রুবেলকে ধর্ষিতার ঘরের বারান্দার খুঁটির সাথে বেধে রাখা হয়।

অবশেষে ধর্ষকের নিকট থেকে ৩ লক্ষ ৫০হাজার টাকা আদায় পুর্বক তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান হেদায়েতুল্লাহ হক কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন বিষয়টি মীমাংসার অযোগ্য হওয়ায় আমি রাতেই ঐ দরবার ত্যাগ করি। ইউপি সদস্য হারুন অর রশিদ বলেন মেয়েলি ঘটনা তাই মেয়ের চাচা রমজান আলী বিষয়টি টাকার বিনিময়ে মীমাংসা করে নিয়েছেন।

ধর্ষিতার মা বলেন আমার কোনো উপায় নেই তবে মীমাংসা হয়েছে । তিনি আরও বলেন মেয়ের চাচা রমজান সব জানেন,টাকা পয়সাও তার কাছেই। তবে শুক্রবার রাত পর্যন্ত কোনো টাকাই আমি পাইনি। ধর্ষিতা বলেন আমি কোনো মীমাংসা চাই না। সে আমাকে বিয়ের জন্য শপথ করেই মেলামেশা করেছে। ঘটনার রাতেও সে আমার সাথে অবৈধ মেলামেশা করে।

তাই আমার একটাই দাবি তা হলো রুবেলকে আমার সাথে বিয়ে দিতে হবে,নতুবা আমি আতœহত্যা করবো। মেয়েটি আরও বলেন ওই রাতেই বিয়ে পড়ানোর জন্য কাজি ডেকে আনা হয়েছিল কিন্তু আমাকে না জানিয়ে টাকার লোভে রুবেলকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কাজি বলেন আমি গভীর রাত পর্যন্ত নিকাহ নিবন্ধনের জন্য অপেক্ষা করেছিলাম কিন্তু টাকার বিনিময়ে রফাদফা হওয়ায় আমি ভোর রাতে বাসায় ফিরে আসি।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে রুবেলের মোবাইল ফোনে (০১৭১৭১৩৬২২৪) বার বার চেষ্টা করলেও তিনি ধরেন নাই। ভাঙ্গুড়া থানার ওসি (তদন্ত) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন ধর্ষনের ঘটনা কোনো ভাবেই মীমাংসা হতে পারেনা। তবে শুক্রবার পর্যন্ত কেউ এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap