শিরোনামঃ

আজ শনিবার / ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ / ১০ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি / এখন সময় রাত ৮:৫৯

উপার্জনে জড়িয়ে পড়েছে শিশুরা, পাবনায় শতশত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন অনিশ্চিত

পাবনা প্রতিনিধি : করোনা পরিস্থিতে সারা দেশে দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার ফলে শিক্ষাজীবন থেকে ঝরে পড়েছে অনেক শিশু। এর মধ্যে শুধু পাবনা জেলার পরিসংখ্যানে দেখা যায় অর্ধলাখ শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
পাবনা সদর উপজেলার সাদিপুর গ্রামের বাসিন্দা শিশু রাহাদ। জেলা শহরের গোপাল চন্দ্র ইনস্টিটিউশনের গত শিক্ষাবর্ষের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী রাহাদ এখন পুরোদস্তুর হোসিয়ারি শ্রমিক। করোনাকালে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শহরের পশ্চিম সাধুপাড়া এলাকার একটি গেঞ্জির কারখানায় তাকে কাজ শিখতে দেয় পরিবার।
দরজায় দীর্ঘদিন ধরে ঝোলা তালা খুলে রবিবার থেকে স্কুল-কলেজ খোলার ঘোষণা এলেও থমকে যাওয়া শিক্ষাজীবন নতুন করে আর শুরু করতে আগ্রহী নয় রাহাদ। তার বিদ্যালয়ে ফেরার ব্যাপারে পরিবারেরও খুব একটা ইচ্ছে নেই। তাই কিছুদিন আগেও বই-খাতা ধরা রাহাদের শিশু হাত এখন কর্মজীবী শ্রমিকের হাত।
রাহাদের মতো অর্থ উপার্জনে জড়িয়ে শিক্ষা কার্যক্রম থেকে শিশুদের ছিটকে পড়ার এ চিত্র জেলার সর্বত্রই। করোনা পরিস্থিতিতে পাঠদানের বিরতিতে বখে যাওয়া ঠেকানোর অজুহাতে ছেলে-শিশু শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন কারখানার কাজে আর মেয়ে-শিশু শিক্ষার্থীদের গোপনে বিয়ে দিয়েছেন অভিভাবকরা। প্রত্যন্ত গ্রামে তো বটেই শহরের নামকরা মেয়েদের স্কুলগুলোর শিক্ষার্থীরাও শিকার হয়েছে বাল্যবিয়ের। করোনাকালে প্রায় দেড় বছর শিক্ষাঙ্গন বন্ধ থাকায় এসব শিক্ষার্থীর অনেকেই আর স্কুলে ফিরবে না।
পাবনা জেলায় এভাবে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীর মোট সংখ্যা কত হবে তার সুনির্দিষ্ট পরিসংখ্যান না মিললেও কিন্ডারগার্টেন আর বেসরকারি স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদেরই শিক্ষাঙ্গনমুখী না হওয়ার শঙ্কা বেশি। আর সেই সংখ্যা আনুমানিক কমপক্ষে ৫০ হাজার হবে বলে মনে করছেন শিক্ষা খাত সংশ্লিষ্টরা।
এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের এই ঝরে পড়া রোধ করাটাই এখন সরকারের বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন শিক্ষাবিদরা। শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা থেকে দূরে সরে যাওয়া ভাবনায় ফেলেছে শিক্ষক ও সরকারের শিক্ষা কর্মকর্তাদেরও। শিক্ষাবিদরা বলছেন, গ্রাম ও শহরের শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার কারণ ও প্রেক্ষাপট ভিন্ন। এক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট কারণ অনুসন্ধান করে তাদের শ্রেণিকক্ষে ফিরিয়ে আনতে এলাকাভিত্তিক পরিকল্পনা প্রণয়ন জরুরি।
শহরের পশ্চিম সাধুপাড়ার গেঞ্জির কারখানায় কাজ করার সময় শনিবার কথা হয় শিশু শ্রমিক রাহাদের সঙ্গে। সে জানায়, প্রতি সপ্তাহে তার বেতন ১৫০০ টাকা। মাসে মোট আয় ছয় হাজার টাকা। ওভারটাইম করলে আরও বেশি আয় হয়। নিজের হাত খরচের পাশাপাশি তার আয়ের ওপর নির্ভরশীলতা এসেছে পরিবারেরও। তাই এখন স্কুলে যাওয়ার ইচ্ছা থাকলেও উপায় নেই রাহাদের।
জেলা কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশন ও ননএমপিও শিক্ষক সমিতি থেকে পাওয়া তথ্যমতে, করোনার টানা বন্ধে পাবনায় কমপক্ষে ১৫০টি ননএমপিও স্কুল ও ৫৫টি কিন্ডারগার্টেন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। স্কুল খোলার প্রস্তুতি হিসেবে নষ্ট আসবাবপত্র মেরামতের সামর্থ্যও নেই এসব প্রতিষ্ঠানের। ফলে নতুন করে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা নিয়ে দেখা দিয়েছে চরম অনিশ্চয়তা। বেকার হয়েছেন এসব প্রতিষ্ঠানের প্রায় চার হাজার শিক্ষক-কর্মচারী। একইভাবে অনিশ্চয়তায় পড়েছে এসব প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫০ হাজার শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন। কেউ কেউ পেশা পরিবর্তন করে টিকে থাকার চেষ্টা করলেও মানবেতর জীবনযাপন করছেন এসব প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী। নতুন করে স্কুল চালু করতে সরকারি প্রণোদনা ও ঋণ সহায়তা চান তারা।
এ প্রসঙ্গে জেলা কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ফজলে মজিদ মুরাদ বলেন, ‘আমাদের অবস্থা এতটাই শোচনীয় যে, অনেক শিক্ষক এখন সবকিছু হারিয়ে সবজি বিক্রি করছেন, আবার কেউবা অটোরিকশা চালাচ্ছেন। এ পরিস্থিতিতে সরকারি সহায়তা ছাড়া কোনোভাবেই আর স্কুল চালু করা সম্ভব নয়। শিক্ষা কার্যক্রম স্বাভাবিক করতে এলাকাভিত্তিক সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা প্রণয়ন করা প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।
করোনাকালে শিক্ষার্থীদের বাল্যবিবাহ ও আর্থিক কাজে জড়ানোর খবর পেলেও এ সংক্রান্ত সঠিক কোনো পরিসংখ্যান তার কাছে নেই জানিয়ে পাবনা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এস এম মোসলেম উদ্দিন বলেছেন, ‘স্কুল খোলার পর ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের তালিকা করে অভিভাবকদের বুঝিয়ে তাদের শ্রেণিকক্ষে ফেরাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে। ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকদের সহায়তার জন্য তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। প্রণোদনা দেওয়ার কাজও শুরু হয়েছে।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap