শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ১৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১লা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৬ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সকাল ৮:০১

সড়কে কালভাট ভাঙা ঘটছে দূর্ঘটনা

মাসুদ রানা, আটঘরিয়া : পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার চাঁদভা সড়ক দিয়ে ট্রাক, ভ্যান, রিকশা, মোটরসাইকেল অটোরিকশা সহ বিভিন্ন যানবাহন অন্তত ১৫ থেকে ২০ টি গ্রামের মানুষ চলাচল করে। এর পরে সড়কের মাঝ খানে দীর্ঘদিন ধরে একটি কালভাট ভেঙে গর্ত তৈরি হয়ে আছে দীর্ঘদিন। কিন্ত ভালভাটটি মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না। এতে প্রতিদিন ঘটছে অহরহ দূর্ঘটনা।

স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, চাঁদভা বাচামারা, কড়ইতলা, খিদিরপুর, পারখিদিরপুর, রতিপুর, সঞ্জয়পুর, ভরতপুর, লক্ষনপুর, দিলালপুর, সড়াবাড়িয়া, হাপানিয়া মাজপাড়া, হাড়লপাড়া সহ প্রায় ২০ টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ এই সড়ক দিয়ে চলচল করে। গ্রামগুলোতে প্রচুর মৌসুমী সবজি ও কৃষি পণ্য উদপাদিত হয়। এ সড়ক দিয়েই স্থানীয় বাসিন্দারা তাদের উৎপাদিক পন্য উপজেলার সহ বিভিন্ন হাট বাজারে নিয়ে যান। কিন্তু দীর্ঘ দিন এই সড়কের মাঝখানে একটি কালভাট ভেঙে আছে। তৈরি হয়েছে লম্বা একটি আকৃতির গর্ত। সন্ধার পর চলাচল করতে গিয়ে অধিকাংশই দিনই গর্তে পড়ছে যানবান ও পথচারিরা। এতে ঘটছে দূর্ঘটনা।

রোববার সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার সদর থেকে আটঘরিয়া বাজার থেকে চাঁদভা সড়কের শাহাপুর নামক স্থানে পূর্ব-পশ্চিম এই কালভাটটি ভেঙা। দুই পাশে সবুজ ফসলের মাঠ আর একের পর এক গ্রাম। রিকশা ভ্যান অটোরিকশা মোটর সাইকেল সড়কটিতে অহরহ চলছে। কিন্তু ভাঙা কালভাটের কারনে আটকে যাচ্ছে সবাই। কালভাটটি প্রায় সম্পূর্ন অংশ ভেঙে গেছে। বাকী অংশে কোনমত পার হচ্ছে যানবাহন ও যাত্রী এবং সাধারন মানুষ।

স্থানীয় লোকজন জানান, সড়কটি আটঘরিয়া পৌরসভার আওতাভূক্ত । আগে এই সড়ক দিয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা ট্রাক মিনি ট্রাক দিয়ে সবজি ও ফসলাদি বাজারে নিত। কিন্তু কালভাট ভাঙার পর থেকে তাদের প্রায় পাঁচ কিলো মিটার পথ ঘুরে মালামাল নিয়ে আসতে হচ্ছে। ছোট যানবাহনের লোকজন চলাচল করতে মঝেমধ্যেই ঘটছে দূর্ঘটনা।

রিকসা শ্রমিক আবুল হোসেন জানান, দিনে কোনো মত চলাচল করা গেলেও রাতে চালকদের অনেক সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। অধিকাংশই দিনই অন্তত দু-একটি যানবাহন এই ভাঙা গর্তে পড়ে হতাহত হচ্ছে। যাত্রীরা হাত পা ভেঙে বাড়ীতে যাচ্ছে।

চাঁদভা গ্রামের শহিদুল ইসলাম বলেন, পৌর সভা থেকে এই কালভাটটির দুরত্ব মাত্র আধা কিলোমিটার। এর পর পৌর কর্তৃপক্ষ বিষয়টি দেখছে না। ফলে হাজার হাজার মানুষকে দূভোর্গে পোহাতে হচ্ছে। গর্তে যানবাহন পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে । এব্যাপারে পৌর প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম আরিফ বলেন, কালভাটটি ভাঙা আমরা দেখেছি। মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দু-তিন দিনের মধ্যেই কাজ শুরু করা হবে। আশা করছি মেরামত হলে আর দূর্ভোগ থাকবে না।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap