শিরোনামঃ

আজ রবিবার / ১২ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৭শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ২রা জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১২:০৯

শিশু মোহাম্মদ আলীর হৃদযন্ত্রে ছিদ্র: প্রাসঙ্গিক কথা

কৃষ্ণ ভৌমিক, পাবনা : সংবাদকর্মী হিসেবে প্রতিদিন নানামুখী সংবাদের মুখোমুখি হইকোন কোন সংবাদে ভালো লাগার অনুভুতি থাকে আবার কোনটি মনকে ভাবিয়ে তোলেএমনি একটি ছোট্ট সংবাদ গত ৪ সেপ্টেম্বর সহযোগি এক দৈনিকে ছাপা হয়েছেছোট শিশুর হৃদপিন্ডে ছিদ্র শিরোনামে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরের চটপটি দোকানকর্মী জয়নাল আবেদিনের ৯ বছরের শিশু মোহাম্মদ আলী জন্ম থেকেই হৃদপিন্ডে ছিদ্রএখন বড় ধরণের ইনফেকশনে তার শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছেচিকিৎসকরা তাকে জরুরি অপারেশনের পরামর্শ দিয়েছেনএর জন্য দরকার ৩-৪ লাখ টাকাচিকিৎসা করতে ঋণগ্রস্থ পিতার পক্ষে এ চিকিৎসা ব্যয়বহন করা মোটেই সম্ভব নয়

তাই তিনি বিত্তবানদের সাহায্য চেয়েছেনশিশুটি এখন শুধুই ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকেসংবাদটি পড়ে অনেক প্রশ্নের মুখোমুখি হচ্ছিসংবাদটি বিশ্লেষণে আমাদের স্বাস্থ্যব্যবস্থার দৈন্যতা যেন ফুটে উঠেছেমানুষের চিকিৎসা ব্যয় দিন দিন আকাশচুম্বি হচ্ছেনিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারে এরকম জটিল অসুখ হলে তাদের তিলে তিলে মৃত্যুর মুখে এগিয়ে যাওয়া ছাড়া আর কী বা করার আছেকয়েকদিন আগে এরকমই এক বেদনাদায়ক খবর দেখলামচিকিৎসার বাড়তি খরচ মিটাতে ব্যর্থ হয়ে বেসরকারি হাসপাতালে শিশু সন্তান রোগিকে রেখে পালিয়েছে বাবা মাএসব বাবা মার কী অসহায়াত্ব তা সংবাদটি পড়লেই বুকটা যেন কেপে উঠেহৃদয়বিদারক এ সংবাদটি ছোট হলেও কোন টিভি চ্যানেলে গুরুত্ব পায়নিদেশে কত বিষয় নিয়ে টিভি চ্যানেলে টকশো হয়বুদ্ধিজীবিদের হৈচৈ, অকাট্য যুক্তি আমাদের হজম করতে হয়

কিন্তু এ ধরণের একটি ঘটনা নিয়ে কোন টিভি চ্যানেলের টকশো চোখে পরলো নাএটা হতাশাজনক নয় কী? সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা সেবার নানা সঙ্কটের সুযোগে আমাদের স্বাস্থ্যসেবা যেন করর্পোরেট মুনাফার কাছে জিম্মি হয়ে পরেছেদেশে করর্পোরেট পুঁজিতে কতই না বড় বড় বেসরকারি হাসপাতাল হয়েছেএসব হাসপাতালে কার চিকিৎসা হচ্ছে? উচ্চবিত্ত, ধনী ছাড়া সেখানে আর কী কারও চিকিৎসা হচ্ছে? এসব বেসরকারি হাসপাতাল কতভাবেই না মুনাফা লুটছেঅপ্রযোজনিয় ক্লিনিক্যাল পরীক্ষার নামে, মৃত রোগীকে লাইফসাপোটে রেখে, প্রয়োজনহীন অপারেশন করে, কত ভাবেই না অতি মুনাফা লুটা হচ্ছে?সরকারি ভ্যাট,ট্যাক্স ফাঁকিরতো কোন সীমাই নেইরাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে দেখলাম দুটি দেশের কুটনৈতিক মিশনের কর্মরতদের জন্য চিকিৎসায় বিশেষ ছাড় রয়েছেএটা দেখে আমার কাছে মনে হলো যাদের সামর্থ আছে তাদেরই ছাড়এটা যেন তেলে মাথায় তেল ঢালাএসব হাসপাতালে এমন কী কোন নজির আছে যারা বছরে গরীব অসহায়দের বিনামূল্যে একটি জটিল অপারেশন করেছে?

আমার মনে হয় এ নজির তাদের নেইএসব হাসপাতাল সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে কী গরীব অসহায়দের জীবন বাঁচাতে তথা জটিল অপারেশ করতে পারে না? এসব মালিকরা শুধু চান টাকা আর টাকাকে মরলো কে বাঁচলো এটা তাদের দেখার কিছু নেইটাকা দিয়েই তারা সবকিছু অর্জন করতে চাচ্ছেকরবেই না কেন? এটা তো ভোগবাদি অর্থনীতিরই কুফলএসব হাসপাতালে সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে গরীবদের বিনামূল্যে জটিল অপারেশন করাতে সরকারি ভূমিকাও কিন্তু কম নয়সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয় যদি এসব হাসপাতালের লাভের একটি অংশ গরীবদের চিকিৎসায় ব্যয় করতে বাধ্য করতো তাহলে এভাবে শিশু মোহাম্মদ আলীদের ধুকে ধুকে মরতে হতো নামোহাম্মদ আলী এখন শুধু মাত্র ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকে সংবাদের এ লাইনটি পড়তে গিয়ে চোখের সামনে শিশুটির মুখোচ্ছবি যেন ভেসে উঠলো

শরীরের যন্ত্রনায় সে শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকে এটাই স্বাভাবিক মনে হতে পারেকিন্তু আমার কাছে এর অর্থ ভিন্ন মনে হয়মোহাম্মদ আলীদের এভাবে তাকিয়ে থাকা যেন আমাদের উপহাস করছেআমাদের অক্ষমতাকে যেন করুনাও করছেআমার আর একটি কথা বারবার মনে হচ্ছে মোহাম্মদ আলীদের এভাবে তাকিয়ে থাকার মধ্যে যেন একটি বড় মেসেজ রয়েছেসে যেন বলতে চাচ্ছে বর্তমানে টাকাটাই যেন মানুষের সবটাকা না থাকায় চিকিৎসার অভাবে তাকে যেমন মরতে হচ্ছে তেমনি এক শ্রেণির মানুষ ঘুষ, দূনীতি, কালোবাজারী করে এই টাকারই পাহাড় গড়ছে

তারা ভাবছে টাকাই তাদের চিরকাল বাঁচিয়ে রাখবেটাকার অভাবে কপর্দকহীন অবস্থায় তাকে যেমন পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে হচ্ছে তেমনি টাকার পাহাড় গড়াদেরও তার মতই কপর্দকহীন অবস্থায় একদিন এ পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে হবেদুনম্বরি পথে অর্জিত তাদের এ কোটি কোটি টাকার কী হবে? তাদের কী এ অবৈধ উপার্জনের কোন জবাব দিতে হবে না? তাহলে এভাবে টাকার পাহাড় করে কী লাভ হচ্ছে? দেশের বিত্তবানরা দরিদ্র শিশুটির চিকিৎসার সেবায় এগিয়ে আসবেন এ যেমন কামনা তেমনি সরকারিভাবে শিশুটিকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে অপারেশন করা হোক এ প্রতাশাও রাখছিপরিশেষে শুধু এইটুকু বলবো চিকিৎসা মানুষের মৌলিক অধিকারআর কতকাল অধিকারহারা মোহাম্মদ আলীদের বিনা চিকিৎসায় মরার খবর আমাদের লিখতে, দেখতে হবেএর কী কোন শেষ নেই? কবে? কী ভাবে এর সমাধান হবে তা ভাববার ভার পাঠকের উপরই ছেড়ে দিলাম।  

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap