শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ১৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১লা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৬ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় দুপুর ২:৪০

পাবনায় ২ কিমি সড়কের জন্য ৩০ গ্রামের মানুষ দুর্ভোগে

পাবনা প্রতিনিধি : কাঁচারাস্তা পাকা না করায় দীর্ঘকাল ধরে অন্তত ৩০ গ্রামের ৫০ হাজার মানুষ অবর্ণনীয় দুর্ভোগ সহ্য করে প্রতিদিন যাতায়াত করতে হচ্ছে। প্রায় ত্রিশ বছর পূর্বে রাস্তায় একটি সেতু নির্মাণ করা হলে ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সেটিও ভেঙ্গে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। রাস্তাটি নিচু হওয়ায় প্রতিবছর বর্ষায় দুই কিলোমিটার রাস্তার বেশিরভাগ অংশই যেমন পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে তেমনি সেতুটির সংযোগ সড়কের দুই পাশের মাটি ধসে পড়ছে। তাই এ রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী লোকজন প্রতিনিয়তই চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, ভাটো সোনাতলা থেকে পাটগাড়ি পর্যন্ত ৩০টি গ্রামের মানুষ কৃষি, তাঁত ও দুগ্ধজাতীয় পণ্য উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত। এ সব গ্রামের উৎপাদিত পণ্য হাটবাজারে এ কাঁচা রাস্তা দিয়েই আনা নেয়া করতে হয়।

রাস্তাটির বেশিরভাগ অংশ ভেদাগাড়া নামের বিলের মধ্যে পড়েছে । এলাকাবাসীর প্রয়োজনে ৫০ বছর পূর্বে এখানে এ রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়। এ রাস্তা দিয়ে একসময় গরুরগাড়ি চলাচল করত। পরে ওই রাস্তায় একটি খালের ওপর ৩০ বছর আগে একটি সেতু নির্মাণ করা হয়। কিন্তু সেতু হলে ও রাস্তাটি আজ পর্যন্ত পাকা করা হয়নি।

তাই এ কাঁচা রাস্তা দিয়ে রিক্সা, ভ্যান, মোটরসাইকেলের মতো ছোট যানবাহন ছাড়া ভারিযান চলাচল করতে পারে না। শুষ্ক মৌসুমে এসব যানবাহন কোন রকমে চলাচল করলে ও বর্ষায় বেশিরভাগ অংশই পানিতে তলিয়ে যায়। আর এ সময় যাতায়াত বন্ধ হয়ে যায়। রাস্তার খালের ওপর জরাজীর্ণ সেতুটির একদিকের রেলিং অনেকটাই ভেঙ্গে পড়েছে।

সেতুতে ওঠার সংযোগ রাস্তায় কোন রকমে মাটি ফেলে চলার উপযোগী করা হয়েছে। বর্তমানে সংযোগ সড়ক দিয়ে মালবাহী ভ্যান সেতু পার করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

তাই এখন সেতুতে ওঠার সময় মালবাহী ভ্যানকে পেছন থেকে ঠেলে উপরে তুলতে হচ্ছে। এলাকাবাসী জানায়, প্রতিবছর বর্ষায় ধসে পড়া সংযোগ রাস্তা ও সড়কের অনেক স্থানই বিভিন্ন প্রকল্পের অর্থ দিয়ে লোক দেখানো মেরামত করা হয়। কিন্তু তাতে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। সাঁথিয়ার সোনাতলা গ্রামের মিলন হোসেন জানান, কাঁচা রাস্তাটি সেতু থেকে বেশ নিচু। দিন দিন আরও নিচু হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে বর্ষায় রাস্তাটি ডুবে যায়। তখন ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার ঘুরে অনেক টাকা ও সময় ব্যয় করে যাতায়াত করতে হয়। বর্ষা মৌসুমে যাতায়াত সমস্যার কারণে এ সব গ্রামের উৎপন্ন পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় তাদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

স্থানীয় নাগডেমড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হারুনর রশিদ জানান, রাস্তাটি উঁচু ও পাকা করা হলে তার ইউনিয়নের আমূল পরিবর্তন ঘটবে। রাস্তাটি পাকাকরণে তিনি বিভিন্নমহলে আবেদন করে ও কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে জানান। এলাকাবাসী রাস্তাটি পাকাকরণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap