শিরোনামঃ

আজ শনিবার / ১৪ই মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শীতকাল / ২৮শে জানুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ / ৫ই রজব ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় ভোর ৫:০৮

সরকারি হাজী জামাল কলেজে অধ্যক্ষের অবসর: অতপর ঘটন-অঘটন !

নাজমুল আরেফিন, বিশেষ প্রতিবেদক : পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার সরকারি হাজী জামাল উদ্দিন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মো: শহিদুজ্জামান গত ৩১ জানুয়ারি অবসরে গেছেন। অবসরে যাওয়ার আগে তার বিশ^স্ত ও প্রশাসনিক নানা অপকর্মের সহয়োগী,ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো: আব্দুস সালাম কে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসাবে চার্জ বুঝে দেন। এর পরই ঘটে চলেছে নানা ঘটন-অঘটন।
ওই দিন বিকালে মো: শহিদুজ্জামান নিজে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আব্দুস সালাম কে তার চেয়ারে বসিয়ে দেন এবং ফুল দিয়ে তাকে স্বাগত জানান। পরদিন ১ ফেব্রুয়ারি মো: আব্দুস সালাম অধ্যক্ষের কার্যালয়ের দরজায় নেম প্লেটে মো: শহিদুজ্জামন এর নামের উপর নিজের নাম লিখে একটি কাগজ সেঁটে দেন।
এর পাঁচদিন পর ৬ ফেব্রুয়ারি রবিবার সকালে প্রভাবশালী নারী হিসাবে খ্যাত মো: শহিদুজ্জামানের সহধর্মিনীর ইশারায় অধ্যক্ষের নেম প্লেট থেকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো: আব্দুস সালামের নাম লেখা কাগজটি তুলে জনৈক শিক্ষক তুলে ফেলে দেন। বিষয়টি জানাজানির পর শিক্ষকদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
এ ব্যাপারে শিক্ষকরা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো: আব্দুস সালাম কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন,নেম প্লেটটি ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রধান মো: ম্ঞ্জুর কাদির প্রিন্সিপ্যাল শহিদুজ্জামান স্যারকে উপহার হিসাবে দেন কিন্তু পরে স্যার প্লেটের মুল্য হিসাবে তাকে দুই হাজার টাকা দিয়ে দেন। এজন্য নেম প্লেটটি স্যারের এবং উহা খুলে তার বাসায় পাঠিয়ে দেওয়ার জন্য তিনি বলে দিয়েছেন।
ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের এমন উত্তরে শিক্ষকরা নেতিবাচক মন্তব্য করে বলেন, নেম প্লেট অধ্যক্ষের ব্যক্তিগত এটা কখনো শুনিনি। এছাড়া সাবেক অধ্যক্ষ শহিদুজ্জামান শিক্ষকদের সাথে কোনো প্রকার আলোচনা ছাড়াই আব্দুস সালাম কে দায়িত্ব বুঝে দেন যাতে তার দোষ-ত্রæটি প্রকাশ না পায়। তাহলে নেম প্লেটে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের নাম লেখায় অধ্যক্ষের আপত্তি কোথায় ? তা কারোই বোধগম হচ্ছেনা।
এদিকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো: আব্দুস সালাম শিক্ষকদের জানান তিনি নেম প্লেটে এখনো তার নাম লিখতে চাননা। কারণ মাউশি’র অনুমতি এখনো পাওয়া যায়নি। অথচ তিনি তার ফেসবুক আইডিতে “মো: আব্দুস সালাম প্রিন্সিপ্যাল” পরিচয়ে ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাহলে কি তিনি কারো ধমকে ভয় পেয়ে নেম প্লেট থেকে তার নাম প্রত্যাহার করলেন- এসব প্রশ্ন শিক্ষকদের মাঝে ঘুরপাক খাচ্ছে।
কলেজের শিক্ষকরা এসব ঘটন-অঘটনের পর সবকিছইু বাঁকা চোখে দেখছেন। এছাড়া এক যুগ ধরে একটানা কর্তৃত্ব করা অধ্যক্ষের সহধর্মিনী মার্কেটিং বিভাগের সহধর্মিনী রত্ম এবং তার দুলাভাই শরিফুল ইসলাম এখনো দাপটের সাথে কর্তৃত্ব করছেন। শিক্ষকদের আপত্তি থাকা সত্তেও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নতুন অ্যাসাইনমেন্ট কমিটি,ডিগ্রী পাস পরীক্ষা কমিটি,উচ্চ মাধ্যমিক ভর্তি কমিটি প্রতিটাতেই ওই দুইজন শিক্ষককে আগের মতই বহাল রেখেছেন। আব্দুস সালাম ভারপ্রাপ্তের দায়িত্ব পেলেও সোমবার থেকে শুরু হওয়া ডিগ্রী পাস পরীক্ষায় কনভেনর হিসাবে সিনিয়র কাউকেই তার স্থলাভিষিক্ত করেননি। ফলে সাধারণ শিক্ষকদের দাবি উপেক্ষিত হচ্ছে।।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap