শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৯:৪৭

রাজশাহীতে মৌসুমের প্রথম শিলাবৃষ্টিতে আমের মুকুলের ব্যাপক ক্ষতি

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহীতে হঠাৎ করেই শিলাবৃষ্টি হয়েছে। রোববার ভোর ৪টা ৪০ মিনিট থেকে ৫টা ১৮ মিনিট পর্যন্ত এই শিলাবৃষ্টি স্থায়ী ছিল। এরপর সকাল পর্যন্ত কোথাও কোথাও শিলা বরফের স্তূপ জমে ছিল। রাজশাহীতে মৌসুমের প্রথম এই শিলাবৃষ্টিতে আমের মুকুলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

শিলাবৃষ্টিতে ঝরে পড়েছে অসংখ্য মুকুল। এতে হতাশা হয়ে পড়েছেন চাষিরা। কৃষি বিভাগ বলছে, এই শিলাবৃষ্টিতে পেঁয়াজ, রসুন, গম ও আমের ক্ষতি হয়েছে। তবে ফল গবেষকরা বলছেন, মুকুল ঝরে পড়লেও চাষিদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই। এ বছর আমের উৎপাদন স্বাভাবিকই হবে।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক নজরুল ইসলাম জানান, ভোরে ৩৮ মিনিট শিলাবৃষ্টি হয়েছে। এ সময় তারা ১৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছেন। আর বৃষ্টির সময় বজ্রপাতও হয়েছে। তবে সে সময় ঝড়ো হাওয়া ছিল না।

আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আবারও এমন বৃষ্টি হতে পারে বলেও জানান পর্যবেক্ষক নজরুল ইসলাম।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শিলাবৃষ্টির আঘাতে রাজশাহীর গোদাগাড়ী, তানোর, পবা, পুঠিয়া, চারঘাট ও বাঘা উপজেলায় আমের মুকুলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গাছ থেকে প্রচুর পরিমাণে মুকুল ঝরে পড়েছে। বিশেষ করে পুঠিয়া উপজেলার কয়েকটি গ্রামে শিলাবৃষ্টির কারণে বরফের স্তূপ জমে যায়। সকাল ৮টা পর্যন্ত এমন বরফের স্তূপ দেখা যায়। স্থানীয়রা বলছেন, এমন বরফের স্তূপ তারা আগে দেখেননি।

পুঠিয়ার বানেশ্বর এলাকার কৃষক শহিদুল ইসলাম জানান, এবার আমের গাছে গাছে প্রচুর মুকুল এসেছিল। কিন্তু ভোরে শিলাবৃষ্টির আঘাতে প্রচুর মুকুল ঝরে পড়েছে। এতে  লোকসান গুনতে হবে। তিনি জানান, শিলাবৃষ্টিতে অন্য ফসলেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিশেষ করে পেঁয়াজ চাষিরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।


চারঘাট উপজেলার রায়পুর গ্রামের আম ব্যবসায়ী শামসুল হক জানান, আম গাছে মুকুল যে পরিমাণ এসেছিল তাতে অন্যান্য বছরের লোকসান অনেকটা পুষিয়ে নেয়া সম্ভব হতো। কিন্তু আজকের শিলাবৃষ্টিতে তাদের অনেক ক্ষতি হয়ে গেছে। আমের উৎপাদন কেমন হবে তা নিয়ে তিনি দুশ্চিন্তায়।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামসুল হক বলেন, শিলা এবং ভারি বৃষ্টি কারণে পেঁয়াজ, রসুন, গম ও আমের মুকুলের ক্ষতি হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করতে তারা জরিপ শুরু করেছেন।

তবে রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আবদুল আলীম বলছেন, আমের মুকুল ঝরে পড়লেও চাষিদের আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। কেননা, আম হলো বৈরী আবহাওয়ার ফসল। ঝড়, বৃষ্টির মধ্যেই আমের উৎপাদন হয়ে থাকে। এতে হতাশ হওয়ার কিছু নেই।

এবার আমের উৎপাদন ভালো হওয়ার ব্যাপক সম্ভাবনা আছে জানিয়ে ড. আলীম বলেন, এবার প্রচুর মুকুল এসেছিল। অত মুকুলে শেষ পর্যন্ত আম ধরে না। আবার ধরলেও গাছে থাকে না। ঝরে পড়ে। এবার শিলার কারণে অনেক মুকুল ঝরলেও বৃষ্টি গাছের মুকুলগুলোর জন্য ভালো হয়েছে। তাই আমের কাঙ্ক্ষিত উৎপাদন পাওয়া যাবে বলেই মনে করেন এই গবেষক।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap