শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ১৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১লা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৬ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৯:৪১

বিমান ছিনতাইকারী আটক, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে

স্বাধীন খবর ডেস্ক : চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করেছে দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট । ঢাকা থেকে দুবাই যাওয়ার পথে রোববার বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটের দিকে ময়ুরপঙ্খী বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি জরুরী অবতরণ করে।

ঢাকার শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে রওনা হয়ে বিকাল পৌনে ৬টার দিকে ফ্লাইটটি চট্টগ্রাম থেকে দুবাই যাওয়ার কথা।

কিন্তু উড্ডয়নের পরপরই বিমানটি জিম্মিদশায় পড়ে। বিশেষ করে আকাশে ওড়ার পরপরই উড়োজাহাজটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হয়। পুরো কাজটি করেন অস্ত্রধারী এক ব্যক্তি। বিমানটিতে থাকা একাধিক ক্রু ও যাত্রীর সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। তারা বলেন, বিমানবন্দরে দুই রাউন্ড গুলির শব্দ শোনা গেছে। এ ঘটনার পরপরই চট্টগ্রাম বিমানবন্দর বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সকল ফ্লাইট ওঠা-নামা বন্ধ রয়েছে। বিমানটি জরুরি অবতরণের পর যাত্রীদের নিরাপদে বের করে আনা হয়েছে।

বিমানের ভেতরে ক্রুদের দুর্বৃত্তরা জিম্মি করে রেখেছেন এমন ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থলে ছুটে যায় ফায়ার সার্ভিসসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। আর রানওয়েতে অবস্থান করা ফ্লাইটি ঘিরে রাখে পুলিশ, র‌্যাব ও সেনা কমান্ডোর সদস্যরা। বিকালে আকস্মিকভাবে শাহ আমানতে নিরাপত্তাকর্মীরা বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি ঘিরে ফেললে এবং বিমানবন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ করে দিলে দেখা দেয় উৎকণ্ঠা। অন্যদিকে সেনা বাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত যৌথ কমান্ডো টিম বিমানের ভেতর অভিযান চালায়। ওই টিমে বোমা নিস্ক্রিয়কারি বিশেষজ্ঞরাও ছিল।

তবে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় বিমানবন্দরে জিম্মি সঙ্কটের অবসান ঘটে, যে ব্যক্তি উড়োজাহাজটি জিম্মি করেছিলেন, কমান্ডো অভিযানে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে আটক করা হয়েছে। দুই ঘণ্টার নাটকীয়তার পর ওই ব্যক্তিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আটকের খবর নিশ্চিত করেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ কমিশনার মাহবুবুর রহমান।

চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের এক কর্মকর্তা জানান, ১৬২ আসনের ময়ূরপঙ্খী উড়োজাহাজে ইকোনমি ক্লাসে ১৩৩ জন ও বিজনেস ক্লাসে নয়জন যাত্রী ছিলেন। এ ছাড়া পাঁচজন ক্রু, এর মধ্যে দুজন নারী ছিলেন। ককপিটে দুজন পাইলট ছিলেন। উড়োজাহাজটির মডেল বোয়িং ৭৩৭-৮০০। উড়োজাহাজটি ২০১৫ সালের ২৫ ডিসেম্বর বাংলাদেশ বিমানের বহরে যুক্ত করা হয়।

ক্রুদের বরাত দিয়ে শাহ আমানতে বিমান বন্দরের ব্যবস্থাপক সরওয়ার-ই-জামান বলেন, সাড়ে চারটায় কিছু সময় পর ময়ূরপঙ্খী আকাশে প্রায় ১৫ হাজার ফুট ওপরে দিকে উড়ে যাচ্ছিল। তখন উড়োজাহাজের ভেতরে যাত্রীদের আসনে থাকা এক ব্যক্তি উঠে ককপিটের দিকে আসেন। এ সময় ওই ব্যক্তি এক ক্রুর কাছে যান। কাছে গিয়ে তিনি ওই ক্রুকে ধাক্কা দেন এবং সঙ্গে সঙ্গে একটি পিস্তল ও বোমাসদৃশ একটি বস্তু বের করে বলেন, আমি বিমানটি ছিনতাই করব। আমার কাছে পিস্তল ও বোমা আছে। ককপিট না খুললে আমি বিমান উড়িয়ে দেব। এর মধ্যে অন্য কেবিনের ক্রুরা ককপিটে থাকা পাইলট ও সহকারী পাইলটকে গোপনে সাংকেতিক বার্তা দেন যে, উড়োজাহাজে অস্ত্রধারী আছে, উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের চেষ্টা হচ্ছে। ঠিক এ সময় উড়োজাহাজটি চট্টগ্রাম ও ঢাকার মাঝামাঝি জায়গায় অবস্থান করছিল।

এক ক্রু বলেন, উড়োজাহাজটি আকাশের ১৫ হাজার ফুটের কিছু ওপরে উড্ডয়ন করছিল। এর মধ্যে পাইলট মো. শফি ও সহকারী পাইলট মো. জাহাঙ্গীর চট্টগ্রামগামী উড়োজাহাজটির ককপিটের দরজা বন্ধ করে দেন এবং কৌশলে জরুরি অবতরণের জন্য চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে বার্তা পাঠান। উড়োজাহাজে থাকা একটি সূত্র জানিয়েছে, ককপিটের দরজা না খোলায় অস্ত্রধারী ব্যক্তিটি চিৎকার করছিলেন। একপর্যায়ে ওই অস্ত্রধারী উড়োজাহাজের ভেতরে ‘বিস্ফোরণের’ মতো ঘটান। ততক্ষণে উড়োজাহাজটি চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তবে ওই অস্ত্রধারী ফ্লাইট স্টুয়ার্ট সাগরকে আটকে রেখেছিল। উড়োজাহাজ অবতরণের পর কৌশলে উড়োজাহাজের ডানার পলাশের চারটি ইমারজেন্সি গেট দিয়ে যাত্রীরা নেমে পড়েন।

উড়োজাহাজে থাকা এক যাত্রী জানিয়েছেন, তিনি নেমে আসা পর্যন্ত ক্রু সাগর ছাড়া ককপিটের ভেতরে তখন পর্যন্ত দুজন বৈমানিক ছিলেন। জানা গেছে, ওই ফ্লাইটে চট্টগ্রামের সংসদ সদস্য (এমপি) ও জাসদনেতা মাঈন উদ্দিন বাদলও ছিলেন। সরওয়ার-ই-জামান আরো বলেন, ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়ার পর একজন যাত্রী ককপিটে ঢুকে পাইলটকে পিস্তল ধরে বলেছে, আমাকে প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলিয়ে দিতে হবে। পাইলট ঠান্ডা মাথায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে চটগ্র্রামে অবতরণ করান।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap