শিরোনামঃ

আজ শনিবার / ১৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ৩রা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৮ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৯:২৫

প্রমত্ত বড়াল নদী এখন দখল দূষণে অস্তিত্ব হারাচ্ছে

চাটমোহর (পাবনা) সংবাদদাতা : পাবনার চাটমোহর উপজেলার মাঝ দিয়ে প্রবাহিত এক কালের প্রমত্ত বড়াল নদী এখন আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। চাটমোহর পৌরসভার বিভিন্ন হোটেল-রোস্তরা, বেসরকারি কিনিক ও বাসা-বাড়ির বর্জ্যের ঠিকানা এখন শুকিয়ে যাওয়া এই নদী। নদীর দুই পাড় দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে পাকা স্থাপনা। দখল, দূষণ আর কচুরিপানার কারণে বড়াল এখন মশা উৎপাদনের সুতিকাগারে পরিণত হয়েছে। অস্তিত্ব হারাচ্ছে দেশের অন্যতম প্রধান এই নদী।

রাজশাহীর চারঘাট পদ্মা নদী থেকে উৎপত্তি হয়ে ২২০ কিলোমিটার বড়াল নদী গিয়ে মিশেছে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে যমুনা নদীতে। কিন্তু আশির দশকে চারঘাটে পানি উন্নয়ন বোর্ড নদীর উৎসমুখে স্লুইস গেট নির্মাণ করে বড়ালের পানি প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা হয়। অস্তিত্ব হারাতে থাকে প্রমত্তা বড়াল। এরপর বাগাতিপাড়ার আটঘরিয়া ও চাটমোহরের দহপাড়ায় আরো দুটি স্লুইস গেট নির্মাণ করে পাউবো।

এ ছাড়া চাটমোহর উপজেলা পরিষদ বড়ালের চাটমোহর অংশে তিনটি ক্রসবাঁধ নির্মাণ করে মাছ চাষ শুরু করে। ২০০৮ সালে চাটমোহর থেকে শুরু হয় বড়াল রা আন্দোলন। গঠিত হয় কমিটি। দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের ফলে সরকার বড়াল বড়াল চালুর উদ্যোগ নেয়। অপসারণ করা হয়

চাটমোহরের তিনটি ক্রসবাঁধ ও দহপাড়া স্লুইস গেট। কিন্তু বড়াল খনন কিংবা অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদে কোন প্রকার পদপে নেওয়া হয়নি। বড়ালে তলদেশে এখন বিভিন্ন ফসলের যেমন আবাদ হচ্ছে।

তেমনি ময়লা-আবর্জনাসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বর্জ্য ফেলা হচ্ছে বড়ালে। কচুরিপানায় পরিপূর্ণ বড়াল এখন মশা উৎপাদনের সুতিকাগার। বড়াল নদীতে ফেলা বর্জ্যরে দূর্গন্ধে টেকা দায়। কচুরিপানা পরিস্কারের দাবি জোরালো হয়েছে। পরিবেশ দূষণ বাড়ছে। দেখার কেউ নেই।

বড়াল রা আন্দোলন কমিটির সদস্য সচিব ও বাপার কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য এস এম মিজানুর রহমান বলেন, বড়াল প্রবাহমান করা এখন সময়ের দাবি। বড়ালের কচুরিপানা দ্রুত পরিস্কার করতে হবে।

অবৈধ দখলদারদের চিহ্নিত করে তাদের উচ্ছেদ করার পাশাপাশি নদী খনন করে প্রবাহমান করতে হবে। পরিবেশ আন্দোলনের কর্মী জাহাঙ্গীর আলম মধু বলেন, বড়ালের কচুরিপানা দ্রুত পরিস্কার করতে হবে। মশার উৎপাতে অতিষ্ঠ পৌরবাসীসহ বড়াল পাড়ের মানুষ।

চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার বলেন, কচুরিপানা পরিস্কারের জন্য বাজেট করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। নদী রায় সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করা হচ্ছে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap