শিরোনামঃ

আজ রবিবার / ১২ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৭শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ২রা জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১:০২

চাটমোহর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের দূর্নীতি অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে মানববন্ধন

চাটমোহর (পাবনা) সংবাদদাতা : পাবনার চাটমোহর সরকারি কলেজের (সদ্য জাতীয়করণকৃত) অধ্যক্ষ মোঃ মিজানুর রহমানের দূর্নীতি, অনিয়ম, হয়রানী ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে এবং কলেজে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনাসহ অধ্যক্ষের অপসারণ দাবিতে বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে কলেজের সামনের সড়কে চাটমোহর নাগরিক সমাজের আয়োজনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে জনপ্রতিনিধি, কলেজের শিক্ষার্থী, অভিভাবক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ সাধারণ মানুষ অংশ নেন।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন, চাটমোহর উপজেলার নব নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইসাহক আলী মানিক, চাটমোহর ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আঃ মুত্তালিব পৌর কৃষক লীগৈর সাধারণ সম্পাদক ও কলেজ গভর্নিং বডির সাবেক অভিভাবক সদস্য মোঃ রেজাউল করিম, অভিভঅবক আজিজুল হক প্রমূখ।

বক্তারা অভিযোগ করেন, কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ মিজানুর রহমান বিভিন্ন খাতের অর্থ আত্মসাত করাসহ বিজ্ঞানাগারের যন্ত্রপাতি না কিনে ভুয়া ভাইচার দিয়ে টাকা আত্মসাত করেছেন, ভর্তি ও পরীক্ষার ফরম ফিলাপের সময় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে পকেটস্থ করেছেন, কলেজ সরকারি করণ হওয়ার সাথে সাথে ব্যাক ডেট দিয়ে জনবল কাঠামোর অতিরিক্ত শিক্ষক নিয়াগ দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন, শতাধিক ভুয়া বিল ভাউচার তৈরি করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট দাখিল করেন।

কিন্তু ইউএনও তদন্ত করে এসকল খরচের সত্যতা না পেয়ে তা ফেরত পাঠান। এছাড়া অধ্যক্ষ কলেজের মার্কেটের দোকান ভাড়া নয়ছয় করে হাজার হাজার টাকা আত্মসাত করেছেন। বক্তারা অবিলম্বে সকল বিষয়ে তদন্তপূর্বক অধ্যক্ষের অপসারণসহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।
মানববন্ধন শেষে ৮ দফা দাবি সম্বলিত একটি স্মারকলিপি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে পাবনা জেলা প্রশাসকের নিকট প্রদান করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার বলেন, অধ্যক্ষ বেশ কিছু ভুয়া বিল ভাউচার আমার কাছে দাখিল করেছিলেন। কিন্তু তা অসামঞ্জস্য মনে হওয়ায় তদন্ত করি। দেখা যায় অধিকাংশ ভাউচার সঠিক নয়। তাছাড়া কলেজের ৬ জন শিক্ষক অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন।” বিষয়গুলো উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলে তিনি জানান।

অধ্যক্ষ মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, ‘মানববন্ধনের বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে অনিয়ম, দূর্নীতি বা স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ সত্য নয়। সরকারি বিধি মোতাবেক সব কিছু করা হয়।”

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap