শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৭:০২

চাটমোহরে নদী ও বিলে অবৈধ সোঁতি বাঁধের দাপট, প্রশাসন নীরব !

মোসতাফিজুর রহমান/সিদ্দিক মিলন, চাটমোহর (পাবনা ) : পাবনার চাটমোহর উপজেলার বিভিন্ন বিলসহ গুমানী, বড়াল ও চিকনাই নদীর বিভিন্ন স্থানে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা অবৈধ সোঁতি বাঁধ স্থাপন করে মৎস্য সম্পদ ধ্বংসে মেতে উঠেছে। প্রকাশ্যে এমন অপকর্ম চললেও স্থানীয় প্রশাসন ও মৎস্য বিভাগ রহস্যজনক কারণে নীরব রয়েছেন। বাঁশের বেড়া দিয়ে ও অবৈধ সোঁতি জালের ফাঁদ পেতে চলনবিল, বড়াল, চিকনাই ও গুমানী নদী থেকে অবাধে মাছ শিকার চলছে।

এতে মাছের পাশাপাশি কাঁকড়া, শামুকসহ নানা জলজ প্রাণী আটকা পড়ছে। ফলে জীববৈচিত্র্য ও প্রাকৃতিক ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। চলনবিলের মৎস্য সম্পদ রায় উপজেলা প্রশাসন ও মৎস্য অধিদপ্তর কোন কার্যকর পদÿেপ গ্রহণ করছে না। ফলে একশ্রেণির রাঘব বোয়ালদের হাত থেকে রÿা পাচ্ছে না মৎস্য সম্পদ।

সরেজমিন অনুসন্ধ্যান চালিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার গুমানী ও চিকনাই নদীর বিভিন্ন স্থানে এবং বিলের নানা স্থানে স্থাপিত অবৈধ সোঁতি বাঁধের (সুঁতি জাল) মহোৎসব চলছে। এ কারণে বিলের পানি নিষ্কাশন বাধাগ্রস্থ হওয়ায় আগামী রবি মৌসুমে রবিশস্য আবাদ ব্যাহত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। একই সাথে ধ্বংস করা হচ্ছে মৎস্য সম্পদ।

চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়াল, ছাইকোলা, মূলগ্রাম, বিডিগ্রাম ও নিমাইচড়া ইউনিয়নের কাটা জোলা, গুমানী নদী, চিকনাইসহ বিভিন্ন বিলের মুখে ও বিভিন্ন স্থানে প্রভাবশালীরা মাছ নিধনে সোঁতি বাঁধ স্থাপন করেছে। তারা সোঁতি বাঁধ স্থাপন করে মাছ ধরার পাশাপাশি পানি নিষ্কাশনে চরমভাবে বাধার সৃষ্টি করেছে। অবৈধ সোঁতি বাঁধ আর নিষিদ্ধ কারেন্ট জালের ব্যবহার ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

কৃষকরা অভিযোগ করেছেন হান্ডিয়ালের কাটা নদী, বিল ও গুমানী নদীর বওশা, ধরমগাছাসহ বিভিন্ন স্থানে রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রচ্ছায়ায় প্রভাবশালীরা বাঁশের বেড়া দিয়ে সোঁতি বাঁধ তৈরী করে মাছ নিধনের পাশাপাশি চলমান পানির গতিপথ রোধ করেছে। তিগ্রস্থ জনগন স্থানীয়ভাবে বাঁধ নির্মাণকারীদের নিষেধ করেও কোন সুরাহা হয়নি।

সুবিধাবাদী চক্র অপতৎপরতা চালিয়ে সোঁতিবাঁধ স্থাপন করে লুটে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকার মাছ। স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে কোন প্রকার পদÿেপ নিচ্ছে না বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। এলাকাবাসী বিষয়টি প্রশাসনকে জানালেও অজ্ঞাত কারণে কাটা হচ্ছে না অবৈধ সোঁতি বাঁধ। বিলের পানি নিষ্কাশন বাধাগ্র¯েÍর ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তরের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা (তথ্য) মো. আসাদুজ্জামান জানান, পানি দ্রæত নামতে বাধাগ্র¯Í করছে সোঁতি বাঁধ, এতে রবিশস্য চাষাবাদে অনেকটা বিলম্ব হবে।

এ ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, অবৈধ সোঁতি বেশ কয়েকটি কেটে দেওয়া হয়েছে। অভিযান অব্যাহত আছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার জানান,  সোঁতি বাঁধ বিষয়ে প্রশাসন তৎপর রয়েছে। দ্রæত এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap