শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ১৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১লা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৬ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সকাল ১১:০৬

চলনবিলে শিা-স্বাস্থ্যে প্রান্তজনের ভরসা ভাসমান স্কুল

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর (পাবনা) :
পাবনার চাটমোহরসহ চলনবিলের তিনটি উপজেলার মৌলিক চাহিদা বঞ্চিত প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর আশার আলো ভাসমান স্কুল। নদীতে ভাসমান নৌকায় স্থাপিত এসব স্কুল শুধু শিশুদের প্রাথমিক চিকিৎসাই দেয় না, স্থানীয়দের স্বাস্থ্য ও কৃষিবিষয়ক পরামর্শ মেলে। একটি বেসরকারি সংস্থা পরিচালিত এমন ২০টি নৌকায় নিয়মিত সেবা পাচ্ছেন দরিদ্র মানুষ।

চলনবিলে গুমানী নদী। এ নদীসংলগ্ন অধিবাসীদের জন্যই ২০০২ সালে প্রথম একটি নৌকা নিয়ে কৃষিশিার কাজ শুরু করে সিধুলাই স্বনির্ভর সংস্থা নামে একটি বেসরকারি সংস্থা। দ্রæত জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাওয়ায় পর্যায়ক্রমে নৌকার সংখ্যা বাড়ানো হয়। বর্তমানে ১৮টি নৌকায় করে চলছে কার্যক্রম। এর মধ্যে ১২টি নৌকায় শিা কার্যক্রম, তিনটিতে স্বাস্থ্যসেবা ও তিনটিতে কৃষি কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। এ কার্যক্রমের সফলতা দেখে একটি তুর্কি সংস্থা সম্প্রতি দুটি নৌকা দিয়েছেন।

স্বনির্ভর সংস্থার পরিচালক সুপ্রকাশ পাল জানান, চলনবিল অঞ্চলের চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া ও ফরিদপুর উপজেলার ২২টি ইউনিয়নের প্রায় এক হাজার শিশুকে ভাসমান স্কুলে শিা দেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি প্রতিটি ইউনিয়নে সপ্তাহে একদিন করে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ও কৃষিসেবা দেয়া হয়। বিনামূল্যে শিা ও প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা, সে সঙ্গে ৩৬ প্রকারের ওষুুধও বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে। তিনটি নৌকায় সপ্তাহে একদিন একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ এবং প্রতিটিতে তিনজন করে স্বাস্থ্য সহকারী থাকেন।

তিনি আরো জানান, প্রথম থেকে চতুর্থ শ্রেণীর শিা কার্যক্রম পরিচালনা করতে ৭০ জন নারী শিক রয়েছেন। ভাসমান স্কুলের প্রতিটিতে রয়েছে একটি করে কম্পিউটার ও লাইব্রেরি। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত পাঠদান চলে। প্রতিটি নৌকায় তিনজন শিক, একজন মাঝি ও একজন কম্পিউটার অপারেটর থাকেন।

সম্প্রতি নৌকায় চিকিৎসা সেবা নিতে আশা বৃদ্ধা আয়শা বেগমের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, অসুস্থ হলে নদী পার হয়ে হাসপাতালে যাওয়া অনেক কষ্টকর। নৌকায় চিকিৎসা সেবা পাওয়ায় নদীপাড়ের মানুষের অনেক উপকার হয়েছে।। কৃষক আছির মোলøা বলেন, নদী ও বিল নিয়েই তাদের জীবন। এসব এলাকাতে স্কুল, মাদ্রাসা নেই। ছেলে মেয়েদের শিার কোনো সুযোগ নেই। তাছাড়া বর্ষার সময় শিশুদের দূরের স্কুলে যাওয়া নিরাপদ নয়। ভাসমান স্কুল পেয়ে তাদের সন্তানদের শিা গ্রহণের পথ সুগম হয়েছে।

এমন উদ্যোগ শুরুর পেছনের গল্প বলতে গিয়ে স্বনির্ভরের নির্বাহী পরিচালক প্রকৌশলী রেজওয়ান জানান, ছোটবেলা থেকেই গ্রামের মানুষের জন্য কিছু করতে চাইতেন। গ্রামে বড় হওয়ার সময় সেখানকার শিশু ও মানুষের জীবন-যাপন খুব কাছ থেকে দেখেছেন। রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত এ বিল ও নদী পাড়ের মানুষ।

২০০২ সালে শিা জীবনের বৃত্তির ৩ লাখ টাকা এবং এক বিদেশী বন্ধুর কাছ থেকে পাওয়া ৫০০ ডলার দিয়ে একটি নৌকায় কর্যক্রম শুরু করেন। এরপর সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় যুক্তরাষ্ট্রের মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন। পরে আরো দুটি নৌকা দিয়েছে তুর্কি সংস্থা টারকিশ করপোরেশন অ্যান্ড কো-অর্ডিনেশন। এ কার্যক্রমকে আরো সম্প্রসারিত করতে চান তিনি।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap