শিরোনামঃ

আজ শুক্রবার / ১০ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৫শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৩০শে রবিউস সানি ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৬:১১

কৃষকদের অনিহায় কাজে আসছে না ঈক্ষুর গবেষণা

নাসির সেখ মিঠু, পাবনা: পাবনা ঈক্ষু গবেষণা ইনষ্টিটিউট গবেষণার মাধ্যমে নতুন নতুন উচ্চ ফলনশীল ঈক্ষুর জাত অবমূক্ত করলেও ঈক্ষু আবাদে কৃষকদের অনিহার কারনে প্রত্যাশিত উৎপাদন পাওয়া যাচ্ছে না। এ কারনে পাবনার সুগার মিলটিতে প্রতি বছর আখের ঘাটতি থাকায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রায় পৌছাতে পারছে না। মিলের চাহিদার এক চতুর্থাংশ আখ মিল জোনে উৎপাদন হওয়ায় মৌসুম শুরুর পর পর আখ সঙ্কটে মিল বন্ধ রাখতে বাধ্য হচ্ছে কর্তৃপক্ষ।

ঈশ্বরদী ঈক্ষু গবেষণা ইনষ্টিটিউটের মহা পরিচালক কৃষিবিদ ড. আমজাদ হোসেন জানান, বাংলাদেশ ঈক্ষু গবেষণা ইনষ্টিটিউট বিএসআরআই, ঈশ্বরদী ২০০৬ সালে আখ-৪৬ জাতের আই ৭৭-০১ ক্লোনের সাথে আই ৬৪-৯৮ ক্লোনের সংকারায়নের মাধ্যমে উদ্ভাবন করা হয়। সংকরায়িত ক্লোনটি অন্যান্য জাতের সাথে পর পর দু বছর বিভিন্ন পর্যায়ে ১মি. বাই ৪মি. স্তর এবং ৪ মি. বাই ৪মি. স্তর পরীক্ষার মাধ্যমে পর্যবেক্ষন করা হয়।

এর পর ক্লোনটি আই ২৯০-০৮ হিসেবে প্রাথমিক অগ্রগামী ও পরপর তিন বছর আঞ্চলিক ফলন পরীক্ষায় সহিষ্ণু ক্ষমতা ভাল বিবেচিত হওয়ায় ২০১৭ সালে ক্লোনটি বিএসআরআই আখ-৪৬ হিসেবে চাষাবাদের জন্য জাতীয় বীজ বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত হয়। এর পর কৃষক পর্যায়ে অবমূক্ত করা হয়। সে থেকে মিল জোন এলাকায় এ আখটি চাষাবাদ করা হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, উদ্ভাবিত জাতটি বন্যা সহিষ্ণু। ১২০ সেন্টিমিটার উচ্চতায় প্রবাহিত পানিতে ২০ দিন পর্যন্ত কোন ক্ষতির সম্ভাবনা নেই। ৪০ সেন্টিমিটার স্থিতিশীল পানিতে ৪ মাস পর্যন্ত কোন ক্ষতি হয়না। হেক্টরে ১০৩ থেকে ১১৯ টন পর্যন্ত হেক্টর প্রতি ফলন আসে এ জাত থেকে। যার ভেতর চিনির ধারন ক্ষমতা রয়েছে ১১ থেকে ১৫ ভাগ। গড় চিনি ধারন ক্ষমতা রয়েছে ১৩ ভাগ।

এদিকে উদ্ভাবিত আখ-৪৬ জাতের ঈক্ষুতে চিনির পরিমান বেশী থাকার পরেও মাঠ পর্যায়ে জাতটি কাংখিত পরিমান আবাদ না হবার কারনে পাবনা চিনি কলে আখের যোগান পর্যাপ্ত পরিমান পাওয়া যাচ্ছে না। আখের তুলনায় অন্য ফসল লাভবান হওয়ায় কৃষকেরাও আখ চাষে অনিহা প্রকাশ করছে। মিল জোন এলাকায় নির্ধারিত জমিতেও এখন আখের বাইরে অন্য ফসল আবাদ করা হচ্ছে।

এব্যাপারে কৃষকের কোন বাধ্যবাধকতা না থাকায় তারা ইচ্ছামত লাভবান ফসল আবাদ করছে। আটঘড়িয়া উপজেলার আখচাষী মসলেম উদ্দিন জানান, আখ চাষ করে তারা লাভবান হতে পারছে না। প্রায় বাৎসরিক এ ফসলটি আবাদ করে সুগার মিলে আখ সরবরাহ করে যে অর্থ পাওয়া যায়, তার থেকে বাৎসরিক দুইটি অথবা তিনটি ফসল আবাদ করে আখ চাষ থেকে তারা লাভবান হতে পারছে। সে কারনে অনেক আখচাষী তাদের ইচ্ছামত ফসল আবাদ করছে।

পাবনা সুগার মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কৃষিবিদ জাহিদ আনসারী জানান, কোন নীতিমালা না থাকায় কৃষকেরা তাদের ইচ্ছামত ফসল আবাদ করছে। যার প্রেক্ষিতে মিলে আখের যোগান পর্যাপ্ত না হওয়ায় মৌসুম শেষের আগেই মিল বন্ধ করতে হচ্ছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, পাবনা সুগার মিলে প্রতিটি মৌসুমে ২লাখ টন আখের প্রয়োজন। সেখানে যোগান পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ৫২ হাজার মে.টন। উৎপাদিত এ আখ মিল জোনের আওতাভূক্ত জমি থেকে কৃষকেরা উৎপাদিত করছে। এ কারনে মিলটি লাখের মুখ দেখতে পাচ্ছে না।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap