শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৯:৫২

সুজানগরে জমিদার আজিম চৌধুরীর বাড়ি ধ্বংসস্তুপে পরিণত

শেখ তৌফিক হাসান; সুজানগর, পাবনা : কালের পরিক্রমায় এবং সময়ের আবর্তনে পাবনার সুজানগরের খ্যাতিমান জমিদার আজিম চৌধুরীর বিলাসবহুল বাড়িটি আজ ধ্বংসস্তুপে পরিণত হতে চলেছে। তবে বাড়িটি ধ্বংসস্তুপে পরিণত হতে চললেও জমিদার আজিম চৌধুরীর কর্মযজ্ঞের স্মৃতি আজও মানুষের মুখে মুখে রয়েছে।
আনুমানিক আড়াই‘শ বছর আগে উপজেলার দুলাই গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন জমিদার আজিম চৌধুরী। তিনি ছিলেন সৌখিন এবং সৌন্দর্যের পূজারী জমিদার। আর তাইতো যখন এ দেশে একটি একতলা ভবন নির্মাণ করা ছিল কোন অপ্রত্যাশিত স্বপ্ন পূরণের ন্যায়, ঠিক সে সময় তিনি দুলাইয়ের মতো নিভৃত পল্লীতে নির্মাণ করেন রাজপ্রাসাদতুল্য দ্বিতল বিশিষ্ট একাধিক দৃষ্টি নন্দন এবং বিলাসবহুল ভবন। অত্যাধুনিক ডিজাইনের ওই ভবন গুলো ছিল বহু দুয়ারী এবং বহু কক্ষের।
এছাড়া ১২০ বিঘা জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত ওই বাড়িটিতে ছিল ১১টি নিরাপত্তা গেট। প্রথম গেটে সর্বদা দ-ায়মান থাকতো বিশাল আকৃতির দু’টি হাতি। হাতি দু’টি জমিদার বাড়ির নিরাপত্তা প্রহরীর কাজে ব্যবহার করা ছাড়াও জমিদার আজিম চৌধুরীর ভ্রমণ কাজে ব্যবহৃত হতো। বাড়ির নিরাপত্তা বিধানে হাতি ছাড়াও ছিল ২টি আধুনিক স্বয়ংক্রিয় কামান। পাশা-পাশি বাড়ির চতুর পাশ ঘিরে খনন করা হয়েছিল বিশাল নিরাপত্তা দীঘি। এ দিঘিতে জমিদার পরিবারের সদস্যরা বিকালে নৌ-ভ্রমণ করতেন। পাশা-পাশি বাড়ির অভ্যন্তরে একটি মসজিদ, জমিদার দরবারে কর্মরত-কর্মকর্তা কর্মচারীদের গোসলের জন্য একটি বিশাল পুকুর এবং জমিদার পরিবারের বিবিদের গোসলের জন্য অন্দরমহলের অভ্যন্তরে খনন করা হয়েছিল আরও একটি দর্শনীয় পুকুর। আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কথাতো বলে শেষ করার নয়। গোটা বাড়িটি ছিল দেশি-বিদেশী গাছপালায় আবৃত্ত। সে কারণে বাড়িটি দেখতে প্রতিদিন দূর-দূরান্ত-থেকে ছুটে আসতেন অগণিত পর্যটক। বাড়িটি বর্তমানে ধ্বংসের পথে। কিন্তু তার পরও স্থানীয় পর্যটকরা আজও ধ্বংসাবশেষ বাড়িটি দেখতে ভিড় করেন। বিশেষ করে বর্ষা এবং শীতের মৌসুমে স্থানীয় পর্যটকরা বাড়িটিতে এসে বনভোজন করেন। এলাকার শিক্ষাবিদ গোলাম রসূল বলেন জমিদার আজিম চৌধুরী ছিলেন একজন প্রজাবান্ধব জমিদার। তিনি তার জমিদারি কার্যকালে নিজের পরিবারপরিজনের চেয়ে প্রজাসাধারণের সুখের কথা বেশি ভাবতেন। আর সেকারণে আনুমানিক আড়াই‘শ বছর আগে জমিদার আজিম চৌধুরী পরলোক গমন করলেও তার কর্মযজ্ঞের স্মৃতি আজও তাকে অমর করে রেখেছেন। তিনি জমিদার আজিম চৌধুরীর কর্মযজ্ঞের স্মৃতিকে আরো স্মরণীয় করে রাখতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় তার ধ্বংসাবশেষ বাড়িটিকে পরিকল্পিত এবং দৃষ্টিনন্দন একটি পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত করতে চৌধুরী পরিবারের প্রতি আহবান জানান। আজিম চৌধুরীর বংশধর আহসান জান চৌধুরী বলেন বাড়িটিকে ঘিরে বহুমুখী পরিকল্পনা রয়েছে। তবে সেটি বাস্তবায়ন করতে একটু সময় লাগবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap