শিরোনামঃ

আজ সোমবার / ১৮ই আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ৩রা অক্টোবর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৬ই রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৩:০৬

সিরাজগঞ্জের যেখানে বাদুড়ের রাজত্ব !

মোঃ মনিরুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : সারিতে সারিতে ভীষণ লম্বা বেশ কয়েকটি ইউক্যালিপটাস গাছ। গাছগুলোর ডালে ডালে পাতার ফাঁকে উল্টো হয়ে ঝুলে আছে শত শত বাদুড়। দেখলে মনে হবে এ যেন বাদুড়ের রাজত্ব। সিরাজগঞ্জ জেলার সলঙ্গা থানার হাটিকুমরুল ইউনিয়নের রানীনগর গ্রামের হাজী মোঃমোকছেদ আলীর এক বাগানের গাছগুলোতে এমন দৃশ্য প্রতিদিনের। নিশাচর এ প্রাণীটি সন্ধ্যা হলেই এখান থেকে দলবেঁধে বের হয়ে যায় খাবার সংগ্রহে। লম্বা লম্বা গাছে হাজারও বাদুড় দিনের বেলায় টান টান হয়ে ঝুলে থাকে। এমন দৃশ্য পথচারীদেরও নজর কাড়ে।

নিরাপত্তা পায় বলে ওরা এখানে থাকে।
হাজী মোঃ মোকছেদ আলী জানান, দীর্ঘ আট বছর যাবত দেখে আসছেন এখানে বাদুড়ের রাজত্ব। তবে আগের চেয়ে এখন বাদুড় কিছুটা কমেছে।
সন্ধ্যার আগে বাদুড়গুলো যখন আহার সংগ্রহের জন্য উড়তে শুরু করে তখন আকাশ ছেয়ে যায়। দেখতে ভীষণ ভালো লাগে। গাছগুলোতে কোনো পথচারী বিরক্ত করে না। যার কারণে এ স্থানকে অভয়ারণ্য মনে করে বাদুড়রা।
তিনি আরো জানান, বাদুড় সাধারণত থাকার স্থান পরিবর্তন করে না। তবে মানুষ যদি অত্যাচার শুরু করে তাহলে ওরা বাধ্য হয়ে অন্যত্র চলে যায়।
স্থানীয়রা জানান-অনেক দূরদুরান্ত থেকে অনেকেই এটি দেখতে আসে৷ তবে বাদুর গুলো এলাকাবাসীর কোন ক্ষতি করে না৷ তাই আমরা তাদেরকে কোন বিরক্ত ও করি না৷
জানা যায়, বাদুড় কোনো পাখি নয়। বাংলাদেশে স্তন্যপায়ী প্রাণীদের এক-চতুর্থাংশ বাদুড় রয়েছে। বাদুড়ের বৈজ্ঞানিক নাম: Pteropus giganteus। বাংলাদেশে প্রায় ১১৩ প্রজাতির বাদুড় রয়েছে। সূর্য ডোবার সঙ্গে সঙ্গে তারা খাবারের খোঁজে বেরিয়ে পড়ে। তখন শব্দেন্দ্রিয় ব্যবহার করে তারা একে অন্যকে গাইড করে। অনেক দূরে খাবারের খোঁজে পৌঁছে যায়। পৃথিবীতে ১১০০ প্রজাতির বাদুড় রয়েছে। কোনো প্রজাতির বাদুড়ই দিনের আলো পছন্দ করে না।

রাতে তারা স্বাধীন ভাবে উড়ে বেড়ায়। কারণ তারা নিশাচর প্রাণী। সবচেয়ে বড় বাদুড়ের পাখার দৈর্ঘ্য আট ফুট। ভারতে এ বাদুড়ের বিচরণ অনেক বেশি দেখা যায়। বেশিরভাগ মানুষেরই ধারণা বাদুড় চোখে দেখে না। এরা চলার সময় শব্দোত্তর তরঙ্গ সৃষ্টি করে এবং সেই শব্দ প্রতিধ্বনিত হয়ে ফিরে আসলে সে অনুযায়ী পথ চলে। এমনকি তারা শিকারও করে এভাবেই।

অনেকেরই ধারণা প্রাণী হিসেবে বাদুড় প্রকৃতিতে তেমন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে না। কিন্তু কথাটা একদমই সত্যি নয়। মাঝেমধ্যে ফলফলাদির ক্ষতি করলেও বাদুড় বুনো গাছপালার পরাগায়ণ, বীজ-বিস্তরণ ও কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। কলাবাদুড়রা নরম ও মাংসল ফলের বৃক্ষের অনেকগুলো প্রজাতির সুদক্ষ বংশবর্ধক।

কিছু আদিবাসী সমাজে কলাবাদুড় ভক্ষণের রেওয়াজ আছে। কোনো কোনো প্রজাতি জলাতঙ্কের ভাইরাসবাহী হলেও নিজে তাতে আক্রান্ত হয় না। তাই বাদুড় কামড়ালে জলাতঙ্করোধী টিকা নেওয়া আবশ্যক।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap