শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৮:২৬

সনদ ও নিবন্ধন নম্বর জাল করেছিলেন ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ করিম, রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে

পাবনা প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার একটি ক্লিনিকের জনৈক ম্যানেজার সাহেব আলীর মাধ্যমে ঢাকার বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. মাসুদ করিমের সনদ ও বিএমডিসি নিবন্ধন নম্বর জাল করেছিলেন পাবনার ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানা। আর সেই জাল সনদ ও নিবন্ধন নম্বর দিয়ে ৭ বছর ধরে লক্ষাধিক টাকা বেতনে চিকিৎসা করছিলেন পাবনার ভাঙ্গুড়ার একটি ক্লিনিকে। আর নিজে ভুয়া চিকিৎসক ছিলেন বলেও স্বীকার করেছেন মাসুদ রানা।

মঙ্গলবার দুপুরে পাবনা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন শেষে গণমাধ্যমকে এসব কথা জানান মাসুদ রানা। এর আগে নীলফামারীর সৈয়দপুর থেকে আটক ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানাকে পাবনায় নিয়ে আসা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে হাজির করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

সেখানে পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম জানান, বন্ধু চিকিৎসকের মাধ্যমে ভুয়া চিকিৎসকের বিষয়টি জানতে পেরে পাবনায় আসেন প্রকৃত চিকিৎসক ডা. মাসুদ করিম। আর তার আগেই বিষয়টি জানাজানি হলে পালিয়ে যায় ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানা। এরপর অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাকে ধরতে মাঠে নামে পুলিশ। অবশেষে তার অবস্থান নির্নয় করার পর সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) তাকে আটক করা হয়। ২০০৫ সালে একই অপরাধে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানায় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানা। সেখানে তার বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলন শেষে আটক ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, তিনি ৬ মাসের প্যারামেডিকেল একটি কোর্স সম্পন্ন করে ডাক্তার সেজেছিলেন। চিকিৎসা ক্ষেত্রে তার নেই কোনো ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা, নেই কোনো অভিজ্ঞতা। অভিজ্ঞতা না থাকলেও তিনি বিভিন্ন রোগের ব্যবস্থাপত্র লিখেছেন, আলট্রাসনোগ্রাফি করেছেন। ডা. মাসুদ করিমকে তিনি চেনেন না, কখনও দেখেননি বলেও জানান।

এ বিষয়ে ডা. মাসুদ করিম পাবনার গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, বিভিন্ন মিডিয়াতে ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানা কে নিয়ে সংবাদ প্রচার করায় তাকে চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়েছে। তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তার পেছনে কারা জড়িত সব বেরিয়ে আসবে বলে মনে করেন ডা. মাসুদ করিম।

পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম (বিপিএম-পিপিএম) বলেন, ইতিমধ্যে এ ঘটনায় মাসুদ রানাকে আসামী করে ভাঙ্গুড়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এই জালিয়াতির সাথে অন্য কেউ বা কোনো প্রতিষ্ঠান জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। তদন্তের পর বিস্তারিত বেরিয়ে আসবে বলে জানান তিনি।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap