শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ২৭শে শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ১১ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১২ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সকাল ১১:৪০

শ্রমবাজারে নতুন হাওয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক : তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় মধ্যপ্রাচ্যে শ্রমিক চাহিদা বাড়ছে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেবে গ্রিস : চলতি মাসেই মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়া শুরু হবে হাজার হাজার কর্মী স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাচ্ছেন।

বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রবাহের সবচেয়ে বড় উৎস প্রবাসী শ্রমিকদের পাঠানো অর্থ। কিন্তু বৈশ্বিক মহামারি করোনায় শ্রমবাজারে বিপর্যয় নেমে এসেছিল। তবে দীর্ঘ স্থবিরতা কাটিয়ে বিভিন্ন দেশের শ্রমবাজারে শ্রমিকদের চাহিদা বেড়ে গেছে। এতে স্বস্তি ফিরতে শুরু করছে আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারে কর্মরত শ্রমিকদের। নতুন করে মালয়েশিয়া, ইতালি ও গ্রিসে শ্রমিক নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করায় জনশক্তি রফতানির পালেও হাওয়া লেগেছে।

দুই বছরের মহামারির ধাক্কা সামলে সউদী আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় চাঙ্গা হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর অর্থনীতি। এতে করে তাদের অভিবাসী কর্মীর চাহিদা বেড়ে গেছে। তাই বাড়ছে বাংলাদেশের জনশক্তি রফতানি। মধ্যপ্রাচ্যের সউদী আরবে সর্বোচ্চ জনশক্তি রফতানি হচ্ছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, ওমান, কাতার, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, মরিশাসে কর্মী গমনের সংখ্যা বাড়ছে। পূর্ব এশিয়ার জাপানেও শিক্ষানবিস কর্মী যাওয়া শুরু হয়ে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে সউদী ভ্রাতৃপ্রতিমসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সাথে চমৎকার সম্পর্ক বিরাজ করছে। সউদী নিয়োগকর্তারা বাংলাদেশ থেকে সবচেয়ে বেশি কর্মী নিচ্ছে। গত ১ জুলাই থেকে ২৭ জুলাই পর্যন্ত ৩৭ হাজার ৯১৪ জন নারী-পুরুষ কর্মী সউদী আরবে চাকরি লাভ করেছেন। একই সময়ে ওমানে ১৩ হাজার ৩১৩ জন, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৪ হাজার ৬০৩ জন, সিঙ্গাপুরে ৫ হাজার ১১৪ জন, মরিশাসে ৪১৪ জন, পোল্যান্ডে ১০৩ জন এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় ৪২৬ জন কর্মী চাকরি লাভ করেছেন।

প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য শিগগিরই মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার চালু হতে যাচ্ছে। চলতি মাসেই দেশটিতে কর্মী যাওয়া শুরু হবে। এদিকে, ডলার সঙ্কটের মধ্যে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স অর্থনীতিতে নতুন আশার সঞ্চার করেছে। বিদায়ী অর্থবছর রেমিট্যান্স নিয়ে যে শঙ্কা দেখা দিয়েছিল নতুন অর্থবছরের প্রথম মাসেই তা অনেকটাই কেটে গেছে। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় এক হাজার মালয়েশিয়াগামী কর্মীর নিয়োগানুমতি দিয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ এ তথ্য জানিয়েছেন। প্রবাসী মন্ত্রী বলেন, উভয় দেশের চুক্তি অনুযায়ী বিএমইটির ডাটা ব্যাংক থেকে মালয়েশিয়া গমনেচ্ছু কর্মী নিয়োগের কথা। কিন্তু এজেন্সিগুলো এ ব্যাপারে এগিয়ে আসছে না। মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে ডাটা ব্যাংক থেকে কর্মী নেয়ার জন্য বিএমইটির ডিজি শহিদুল আলমের মাধ্যমে এজেন্সিগুলোকে চিঠি দেয়া হচ্ছে।

কুয়ালালামপুরস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের কাউন্সেলর লেবার মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম ইনকিলাবকে জানান, মালয়েশিয়ার বিভিন্ন খাতে প্রচুর বাংলাদেশি কর্মীর চাহিদা রয়েছে। গতকাল পর্যন্ত দেশটির প্রায় ৪শ’ কোম্পানি বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগের জন্য আবেদন জানিয়েছে। আমরা দ্রুত যাচাই বাছাই করে কর্মী নিয়োগের সত্যায়ন দিচ্ছি। তবে দালাল চক্রের মাধ্যমে মালয়েশিয়া গমনেচ্ছু হাজার হাজার কর্মী রাজধানীর সংশ্লিষ্ট মেডিক্যাল সেন্টারগুলোতে চড়া দামে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাচ্ছে। এসব কর্মী আদৌ দেশটিতে যেতে পারবে কি না তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

বিএমইটির সূত্র জানায়, জনশক্তি রফতানির ক্ষেত্রে গত বছরের রেকর্ড ভেঙেছে চলতি বছরের ৭ মাসেই। এর মধ্যে গত বছরের তুলনায় বিভিন্ন দেশে দ্বিগুণের চেয়ে বেশি জনশক্তি রফতানি হয়েছে। গত ১ জুলাই থেকে ২৬ জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন দেশে ৭১ হাজার ৮২৩ জন নারী-পুরুষ কর্মী চাকরি লাভ করেছে। গত জানুয়ারি থেকে ২৬ জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন দেশে ৬ লাখ ৮৭ হাজার ৪২৬ জন কর্মী চাকরি লাভ করেছে। ২০২১ সালে বিভিন্ন দেশে চাকরি লাভ করেছিল ৬ লাখ ১৭ হাজার ২০৯ জন কর্মী।

জনশক্তি রফতানি বাড়তে থাকায় প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সেও গতি ফিরেছে। গত জানুয়ারি মাসে ১৭০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা, যা ডিসেম্বরের তুলনায় ৮ কোটি ডলার বেশি। ডলার সঙ্কটের মধ্যে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স অর্থনীতিতে নতুন আশার সঞ্চার করেছে। বিদায়ী অর্থবছর রেমিট্যান্স নিয়ে যে শঙ্কা দেখা দিয়েছিল নতুন অর্থবছরের প্রথম মাসেই তা অনেকটাই কেটে গেছে। সদ্য বিদায়ী জুলাই মাসে প্রবাসীরা দেশে প্রায় ২ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলার বা ২০৯ কোটি ৬৯ লাখ ১০ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৯ হাজার ৮৫৬ কোটি টাকা) রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। এটি একক মাস হিসাবে গত ১৪ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ এবং গত অর্থবছরের জুলাইয়ের তুলনায় ১২ দশমিক ৫৬ শতাংশ বেশি। জনশক্তি রফতানি বৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী দিনগুলোতে দেশে রেমিট্যান্সের পরিমাণও বাড়বে বলে জানান বায়রা নেতৃবৃন্দ।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের জুলাই মাসে প্রবাসীরা ১৮৭ কোটি ডলার রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। এর আগের বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের একই মাসে ২৫৯ কোটি ৮২ লাখ ডলার রেমিট্যান্স বাংলাদেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। অন্যদিকে, চলতি বছরের গত জুনে প্রবাসীরা ১৮৪ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। ফলে গত জুন মাসের তুলনায় সদ্য শেষ হওয়া জুলাইয়ে রেমিট্যান্স বেড়েছে ৩৬ কোটি ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বায়রার সাবেক যুগ্ম মহাসচিব ও আল রাবেতা ইন্টারন্যাশনালের স্বত্বাধিকারী আবুল বাশার কুয়ালালামপুর থেকে ইনকিলাবকে জানান, বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় মালয়েশিয়ার নিয়োগকর্তাদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। প্রায় প্রতিদিনই বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগের অনুমতির জন্য কুয়ালালামপুরস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে নতুন নতুন ফাইল জমা হচ্ছে। বিএমইটির সূত্র জানায়, ২০২১ সালের প্রথম ৭ মাসে বিভিন্ন দেশে জনশক্তি রফতানি হয়েছে ২ লাখ ৫৬ হাজার ১৮৭ জন। আর চলতি বছরের প্রথম সাত মাসে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনশক্তি রফতানি হয়েছে ৬ লাখ ৮৭ হাজার ৪২৬ জন। ২০২১ সালে পুরো বছরেই এই সংখ্যা ছিল ৬ লাখ ১৭ হাজার ২০৯ জন। বিগত ডিসেম্বরে বিভিন্ন দেশে সবচেয়ে বেশি কর্মী গেছেন ১ লাখ ৩১ হাজার।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap