শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ২৭শে শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ১১ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১২ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সকাল ৭:৪০

রাজশাহীতে চেকপোস্টের নামে চলছে প্রতিদিন পুলিশী হয়রানি

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীতে প্রতিদিন মেইন রোডে চেক পোস্টের নামে সাধারন মানুষদেরকে হয়রানি করছেন থানা ও হাইওয়ে পুলিশ। এ ছাড়াও যে কোনো স্থানে হঠাৎ করেই তল্লাশির নামে পুলিশী হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। এমনকি রোগী থেকে শুরু করে কেউ তাদের হাত থেকে রেহায় পাচ্ছেন না। রাজশাহীর পুঠিয়া থেকে বিনোদপুর,বায়া হতে দুয়ারী এবং নওহাটা আম চত্বর হতে খোরখড়ী মোড় পর্যন্ত রাস্তায় পুলিশী চেক পোস্টের নামে নিয়মিত হয়রানির ঘটনা ঘটছে। ফলে রোগী থেকে শুরু করে সবাই পড়ছেন বিভিন্ন থানা ও হাইওয়ের রাস্তায় ডিউটিরত পুলিশের খপ্পরে। পুলিশের এমন কার্যক্রমে শুরু হয়েছে সমালোচনা।

এলাকাবাসি সুত্রে জানাগেছে,রাজশাহী মহানগরসহ পুঠিয়া থেকে বিনোদপুর,বায়া হতে দুয়ারী এবং নওহাটা আম চত্বর হতে খোরখড়ী মোড় পর্যন্ত রাস্তায় প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর এবং বিকেল থেকে গভীর রাত পর্যান্ত রাস্তার মধ্যস্থলে চেক পোস্ট বসানো হয়।এবং সেখানে চেক পোস্টে যাওয়া মাত্রই প্রতিটি মিশুক, সিএনজি,মাইক্রোবাস,মটরসাইকেল আটকিয়ে কাগজপত্র দেখার নামে শরীর তল্লাশিসহ হয়রানি করা হচ্ছে সাধারন মানুকে। কাগজপত্র সঠিক দেখিয়েও কোনো লাভ হয় না তাদের কাছে এবং টাকা দিলেই সব ছাড়।কিন্তু টাকা ছাড়া কোনো কথা বলা চলে না তাদের কাছে।

এমনকি মিশুক কিংবা সিএনজি বা মোটরসাইকেলে নারীদের দেখলে বেপোরয়া হয়ে ওঠেন পুলিশ সদস্যরা। গতকাল শনিবার রোগী নিতে যাচ্ছিলেন রাজশাহী মেডিকেলে নাটোর থেকে দুইজন গণমাধ্যম কর্মী ও একজন সাধারণ ব্যক্তি। এসময় বিনোদপুরের আগে বসানো হয়েছিল চেকপোস্ট। কাছে যেতেই দুই মটরসাইকেল দাড় করিয়ে কোনো কিছু বুঝে উঠার আগে আবলতাবল কথাবার্তা এমনকি নোংরা ভাষায় গালমন্দ করতে থাকেন তাদেরকে পুলিশেরা।এবং মটরসাইকেল থেকে জোর করে নামিয়ে শুরু করেন তাদের শরীর তল্লাশি।

এসময় গণমাধ্যম কর্মীর পরিচয় দেয়া হলে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন পুলিশেরা। চোখ মুখ রাঙিয়ে বলেন,রাস্তার মাস্তান পুলিশ। এখানে কোনো গণমাধ্যম কর্মী কিংবা নারী পুরুষ রোগী বলে কোনো কথা চলবে না। কয়েকজন মটরসাইকেল আরোহী জানান, কাগজপত্র সঠিক থাকলেও গুণতে হয় ৩শ’ থেকে ৫শত টাকা। টাকা বের করতে দেরি হলে চড় থাপ্পর মেরে বসেন ডিউটিরত পুলিশ। এসব পুলিশের বিরুদ্ধে একাধিকবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেও কোনো লাভ হয় না। হবেই বা কি করে।

কারণ সবার কাছে যায় টাকার ভাগ। এক পুলিশ কর্মকর্তা দম্ভোক্তি প্রকাশ করেন বলেন, আমাদের কথায় এ চেক পোস্টের শেষ কথা। ইচ্ছে হলে থাকতে পারি নইলে না। পুলিশের উপর বাড়াবাড়ি করলে লাইফ বরবাদ করা হবে বলে হুংকার দেন তারা। এদিকে,তল্লাশির সময় মানুষ হয়রানির শিকার হয় বেশি।

পুলিশ কর্মকর্তাদের অনুপস্থিতিতে কনস্টেবল বা তাদের সমমানের যারা সেখানে কাজ করেন, তারা অনেক সময় উদ্দেশ্য মূলকভাবেও যাত্রীদের সঙ্গে অসদাচরণ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।একই সঙ্গে চেকিংয়ের নামে হয়রানি থেকে প্রতিকার চান ভুক্তিভুগিরা।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap