শিরোনামঃ

আজ শুক্রবার / ১০ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৫শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৩০শে রবিউস সানি ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় বিকাল ৫:৩২

ভালোবাসার রং নেই

এম জাহাঙ্গীর আলম : প্রচীন সূর্য আজ প্রভাতেও দশদিগন্তে সোনাঝরা আলোর নাচন তুলবে প্রতিদিনের মতোই। হৃদয়বনে ছড়িয়ে দেবে চঞ্চলা-গুঞ্জরণ। মনে লাগবে দোলা। ভালেবাসার রঙে রাঙাবে হৃদয়। এই দিন স্বপনের দিন। এই দিন স্বপ্ন রঙিন। আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। ভালোবাসার দিন। আজ ভালোবাসা দিবসে চারিদিকে নানা আয়োজনের ছড়াছড়ি।
আমাদের দেশে এদিন কেবল প্রেম বিনিময় নয়, তরুণ-তরুণীদের মধ্যে গোপনে বিয়ের হিরিক পড়ে। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছেন ‘তোমরা যে বলো দিবসও রজনী ভালোবাসা ভালোবাসা, সখী ভালোবাসা কারে কয়’-বহু বছর আগে এভাবেই ভালোবাসার অর্থ খুঁজেছিলেন। কারণ, ভালোবাসার অর্থ যে গভীর দ্যোতনাময়।
১৪ ফেব্রæয়ারি কেবল যে তরুণ-তরুণীদের তা নয়, এদিনে পিতা-মাতা- সন্তানের ভালোবাসাও এ দিবসকে বড়মাত্রায় উদ্ভোসিত করে। যারা একটু বিজ্ঞ, তারা বলে থাকেন, প্রেমের দিন থাকে না, ভালোবাসলেই ভ্যালেন্টাইস, সেলিব্রেট করলেই ভালেন্টইস ডে।
প্রেম পিয়াসী যুগলরা বছরের এই একটি দিনকে বেছে নিয়েছে হৃদয়ের ব্যাকুল কথার কলি ফুটাতে। আজ হৃদয় গহনে তারাপুঞ্জের মতো ফুটবে সেই চীদাসের আনাদিকালের সুর দুঁহু তার দুঁহু কাঁদে বিচ্ছেদ ভাবিয়া/অর্ধতিল না দেখিলে যায় যে মরিয়া/সখি কেমনে বাঁধির…। কারো কারো এদিন কাটবে সখি ভালোবাসা কারে কয়…আকুতি নিয়ে। আর প্রেমিক-প্রেমিকার প্রাণে এক অলৌকিক শিহরণ যূথবদ্ধ দ্যোতনা তুলবে, মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়ে জানিব তুমি আছ আমি আছি।
আজ বর্ণাঢ্য আনুষ্ঠানিকতায়, নিভৃত চারণে আর ভালোবাসার উৎসবে মুখর হবে জনপদ। এদিনে চকোবিন, পারফিউম, কার্ড, ই-মেইল, মুঠো ফোনের এসএমএস, ফেসবুকে প্রেমবার্তা-গিফট, আংটি, প্রিয় পোশাক, খেলনা মার্জার, বই আথবা বুকের ভেতর থাকে যে গোলাপের ইশারা, সেই রক্তগোলাপ হয়ে ওঠে প্রথম অনুষঙ্গ।
নীল খামে হালকা লিপস্টিকের দাগ, একটা গোলাপ ফুল, চকোলেট ক্যান্ডি আর ছোট্ট চিরকুট। তাতে দুছত্র গদ্য আথবা পদ্যে প্রেমের উর্মি। আরোও কত কি ? এ যেন ভালোবাসার রং নেই।
ভ্যালেন্টাইন্স ডে পালনের এই রীতিটি মূলত পশ্চিমা ঘরানার। আমাদের দেশে বিগত কয়েক বছর ধরে এ দিবস পালন করছে তারুণ-তরুণীরা। অনেকে মনে করেন সনাতন ধর্মাচারীগণ দোল যাত্রা, বাসন্তী পূজা, হোলি উৎসবে প্রণয়কে মুখ্য করে রেখেছিল। প্রচারণা দােিণ্য আমাদের বসন্ত উৎসবকে পাশ্চাত্য ভ্যালেন্টাইন্স ডের মোড়কে অধিকার করে নিয়েছে। পাশ্চাত্যে সেই খ্রিস্ট্রীয় ষোড়শ শতাব্দী থেকেই ভ্যালেন্টাইন্স ডে উদযাপিত হয়ে আসছে। হালে তরুণ-তরুণীদের মধ্যে এটা উৎসবের রূপ পাচ্ছে।
বিশ্ব সংসার তন্ন তন্ন করে এনেছি একশ’ ৮টি নীলপদ্ম কিংবা তোমার জন্য আনতে পারি ৭টি অমরাবতী। প্রেমিকের জন্য এই অসাধ্য আকুলতার পেছনের গল্পটি শুরু হয়েছিল সেই ২৬৯ খ্রিস্টাব্দে। প্রধান যে কাহিনীটি প্রচলিত আছে তা হলথ রোমান একজন খ্রিস্টান পাদ্রি বা সেন্টের কাহিনী অনুসারে। তার নাম সেন্ট ভ্যালেন্টাইন। তিনি ছিলেন একজন পাদ্রি এবং একই সঙ্গে চিকিৎসক। কিন্তু সে সময় রোমানদের দেব-দেবী পূজার বিষয়টি ছিল মুখ্য। তারা খ্রিস্টান ধর্মে বিশ্বাসী ছিল না। খ্রিস্টান ধর্ম প্রচারের অভিযোগে ২৭০ খ্রিস্টাব্দে রোমের সম্্রাট দ্বিতীয় কডিয়াসের আদেশে ভ্যালেন্টাইনকে মৃত্যু দন্ড দেওয়া হয়।
রোমের চিকিৎসক তরুণ যাজক সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের চিকিৎসায় দৃষ্টি ফিরে পেয়েছিল নগর জেলারের দুহিতা। সেই থেকে জন্ম নিয়েছিল তাদের ভালোবাসার অমরগাথা। ভালোবাসার অপরাধে তাকে ফাঁসিতে ঝুলতে হয় ফেব্রæয়ারির এই ১৪ তারিখে। মৃত্যুর আগে প্রেমিকার উদ্দেশে ভ্যালেন্টাইন লিখে যায় তার শেষ চিঠি। হৃদয়ের সবটুকু কথা শেষে লেখা থাকে ‘ফ্রম ইওর ভ্যালেন্টাইন’।
অতঃপর এই ভালোবাসাকে স্বীকৃতি পেতে দুই শতাব্দী নীরবে-নিভৃতে পালন করতে হয়েছে ১৪ ফেব্রæয়ারিকে। ৪৯৬ খ্রিস্টাব্দে রোমের রাজা পপ জেলুসিয়াস এই দিনটিকে ভ্যালেন্টাইন্স দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন। আরো একজন ভ্যালেন্টাইনের নাম পাওয়া যায় ইতিহাসে। যুবকদের বিয়ে করতে রোমান সম্্রাট কডিয়াস নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।
তার যে উদ্দেশ্য ছিল তা হলথ যুদ্ধের জন্য ভালো সৈন্য মিলবে না। কিন্তু ভ্যালেন্টাইন এই নিয়ম ভেঙে প্রেম করেন। তারপর আইন ভেঙে বিয়ে করেন। ফলে তার মৃত্যু দন্ড হয়। লেখক- সাংবাদিক।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap