শিরোনামঃ

আজ শুক্রবার / ১০ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৫শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৩০শে রবিউস সানি ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় দুপুর ২:৪৭

বড়াল নদীতে বাঁশের সাঁকো ১০ গ্রামের মানুষের একমাত্র ভরসা

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর (পাবনা) : পাবনা চাটমোহর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নে গোপালপুর গ্রামে বড়াল নদী উপর দিয়ে প্রতিদিন চলে হাজারো মানুষ। প্রায় ১০ গ্রামের মানুষের একমাত্র ভরসা বাঁশের সাঁকো। এসব এলাকার মানুষের দীর্ঘ দিনের প্রাণের দাবি একটি সেতু নির্মাণের। ভোটের সময় জনপ্রতিনিধিরা সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রæতি দিলেও ভোটের পর আর খোঁজ থাকে না। দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে চলাচল করতে হয় এ অঞ্চলের মানুষদের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বড়াল নদীর উপর দিয়ে কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রতিদিন হাজারো মানুষ যাতায়াত করছে। বিশেষ করে ছাত্র-ছাত্রী যারা দূর্গাদাস স্কুল এন্ড কলেজ, হরিপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, জোনাইল সেন্ট রিটার্স হাইস্কুল, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন কিন্ডান গার্টেনে ছাত্র-ছাত্রীরা সাঁকোর উপর দিয়ে চলাচল করছে। প্রতিনিয়ত ভোগান্তি পোহাতে হয়। ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে গিয়ে পানিতে পরে হতাহতের ঘটনাও ঘটে।

জানা গেছে, গোপালপুর, ধুলাউড়ি পশ্চিমপাড়া, সুদভা, বন্নি, পার-বন্নি, চামটা, হরিপুর, জোনাইলসহ আশে-পাশে অন্তঃত ১০টি গ্রামের মানুষ এই বাঁশের সাঁকো দিয়ে চলাচল করছে। চাটমোহর উপজেলার হরিপুর বাজার থেকে বড়াইগ্রাম জোনাইল বাজার পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার রা¯Íা মাঝ দিয়ে বড়াল নদী অতিবাহিত হয়েছে। নদীর উপারের ৭/৮টি গ্রামে মানুষের চলাচল করতে হয় গোপালপুর বাঁশের সাঁকো দিয়ে। সাঁকো না থাকলে প্রায় ৪ কিলোমিটার ঘুরে স্কুল, কলেজের শিÿার্থীসহ সকলকে চলাচল করতে হয়।

অপর দিকে এলাকার কৃষিতে খামারের ফসলসহ যাবতীয় মালামাল পারাপার করে ওই বাঁশের সাঁকোর উপর দিয়ে যেতে হয়। যা একজন কৃষকের জন্য অনেক কষ্টের। যার উপর দিয়ে একা একা পার হওয়া যায় না তার উপর দিয়ে বড় বড় ফসলি বোঝা বহন করে কৃষকেরা।

গোপালপুর গ্রামের ইউপি সদস্য মো. বাবলু হোসেন জানায়, এ সাঁকোর উপর দিয়ে একা একাই পার হওয়া যায় না তার উপর দিয়ে কৃষি েেতর ফসলি বোঝা পারাপার করা যায় না। স্থানীয়রা জানায়, পূর্বে থেকে এলাকার বাড়ি বাড়ি থেকে বাঁশ ও টাকা তুলে সাঁকো তৈরি করা হয়। শুকনো মৌসুমে নদীতে পানি না থাকলে বাঁশের সাঁকো প্রয়োজন পড়ে না। বর্ষা মৌসুম আসলে এলাকার মানুষদের দুর্ভোগে পড়তে হয়। তখন সাঁকো ছাড়া পারাপার হওয়া যায় না। তা না হলে জোনাইল হয়ে প্রায় কয়েক কিলোমিটার ঘুরে গ্রামে প্রবেশ করতে হয়।

চামটা গ্রামের জহুরুল ইসলাম জানায়, এ দুর্ভোগ দেখার কেউ নেই। নির্বাচনের সময় আসলে বিভিন্ন পার্থীরা এসে প্রতিশ্রæতি দেয় ব্রিজ নির্মাণের। কিন্তু নির্বাচনের পর আর তাদের খোঁজ থাকে না। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি মানুষের দুর্ভোগ দুর করার স্বার্থে একটি ব্রীজ নির্মাণের জন্য। তারা সরকারের প্রতি সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।

এ ব্যাপারে চাটমোহর হরিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. মকবুল হোসেন বলেন, ব্রীজ না থাকায় মানুষ দূর্ভোগের মধ্য দিয়ে চলাচল করছে। নদীতে ব্রীজ নির্মাণ প্রয়োজন।

চাটমোহর উপজেলা প্রকৌশলী কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম জানায়, সেতু নির্মাণের জন্য বরাদ্ধ চাওয়া হয়েছে। সরকারি ভাবে এ অনুমোদন আসলে তথা সময়ে সেতু নির্মাণ করা হবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap