শিরোনামঃ

আজ রবিবার / ১৯শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ৪ঠা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৯ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১১:২৪

বড়াইগ্রামে এক গৃহবধূকে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে গণধর্ষণ

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি : বড়াইগ্রাম এক গৃহবধূকে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে আট দিন ধরে একটি রিসোর্টে আটকে রেখে গণধর্ষণ করেছে মাসুদ রানাসহ ৪ বখাটে যুবক। তবে নির্যাতিতা গৃহবধু তার প্রতিবেশী মাসুদ রানার নাম বলতে পারলেও অন্যদের চিনতে না পারায় তাদের পরিচয় জানাতে পারেননি। শনিবার (২ মার্চ) বড়াইগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক শামসুল ইসলাম লিখিত অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে উপজেলার মাঝগ্রাম এলাকার গৃহবধূর ভগ্নিপতি।

তবে গৃহবধূর কোন সন্ধান না পেয়ে তার স্বামী বখাটে মাসুদের নাম উল্লেখ করে বড়াইগ্রাম থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন। পুলিশ, এলাকাবাসী ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ই ফেব্রুয়ারি মাঝগ্রাম হাদিস মোড় এলাকার মালেক হোসেনের ছেলে মাসুদ রানা ঐ গৃহবধূকে ঈশ্বরদী সরকারী ইক্ষু খামারে চাকরি দেওয়ার কথা বলে নিয়ে যায়। পরে মাসুদ তাকে ইন্টারভিউ দেয়ার জন্য ঈশ্বরদীর পাকশী এলাকার মঞ্জুয়ার রিসোর্টে নেয়। সেখানে একটি কক্ষে ৮ দিন ধরে আটকে রেখে আরো তিন বন্ধুসহ চারজন মিলে তাকে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে ঐ গৃহবধূ সুযোগ পেয়ে কৌশলে রিসোর্ট থেকে পালিয়ে একই এলাকার এম এস কলোনীর একটি বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেয়। পরে ঐ বাড়ির লোকজনের সহায়তায় তিনি চিকিৎসা শেষে নিজ বাড়িতে ফিরে আসেন।

পাকশী এম এস কলোনীর খানকা শরীফ পাড়া এলাকায় ঐ গৃহবধূকে আশ্রয় দেয়া ফাতেমা বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করেছেন। এদিকে গৃহবধূর বড় বোন অভিযোগ করেছেন, অভিযুক্ত মাসুদের বাবা ও ভাইসহ স্থানীয় প্রভাবশালী গ্রাম্য প্রধান ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ঐ গৃহবধূ ও তার স্বজনদের ক্রমাগত হুমকি দিচ্ছেন। গৃহবধূকে ধর্ষণের স্বীকারোক্তি দিলেও হুমকির বিষয়টি অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত ধর্ষক মাসুদ। বড়াইগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক শামসুল ইসলাম জানান, অভিযুক্তদের আটকের চেষ্টা চলছে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap