শিরোনামঃ

আজ শনিবার / ১৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ৩রা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৮ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১১:৩৯

বাবা-মায়ের খোঁজে পাবনায় বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত ডেনিশ নাগরিক মিন্টো কারস্টেন সোনিক

মিজান তানজিল, পাবনা: বাবা-মায়ের খোঁজে স্ত্রীকে নিয়ে পাবনার পথে পথে ঘুরছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত ডেনিশ নাগরিক মিন্টো কারস্টেন সোনিক। ছয় বছর বয়সে হারিয়ে যাওয়া মিন্টো জানেন না তার বাবা,মা এমনকি গ্রামের নামও। ছোটবেলার একটি ছবিকে সম্বল করে নিজের পরিবার ফিরে পেতে,মিন্টোর এই অসম্ভব অভিযান আবেগতাড়িত করেছে স্থানীয়দেরও।
স্থানীয়রা জানান, আত্মপরিচয় সন্ধানে পাবনার অলি গলি পথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এই ভীনদেশী মিন্টো ও এনিটি দম্পতি। জনে জনে লিফলেট দিয়ে কিছু একটা জিজ্ঞেস করছেন । বহুদিনের পুরোনো এক বালকের ছবি দেখিয়ে জানতে চাইছেন চেনেন কিনা?
মিন্টোর বিলি করা লিফলেট থেকে জানা যায়, ১৯৭৭ সালে ছয় বছর বয়সে পাবনার নগড়বাড়ী ঘাটে হারিয়ে যান মিন্টো। সেখান থেকে চৌধুরী কামরুল হোসেন নামের কোন এক ব্যক্তি মিন্টোকে পৌছে দেন ঢাকার ঠাটারিবাজারের এক আশ্রমে। ১৯৭৮ সালে ওলে ও বেনফি নামের ডেনিশ দম্পতি দত্তক নিয়ে ডেনমার্ক নিয়ে যান মিন্টোকে।
বিস্তারিত অনুসন্ধানে জানা যায়, সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম দিকে সস্ত্রীক পাবনায় এসেছেন মিন্টো কারস্টেন সনিক। কিছুদিন আগে ফেসবুকের মাধ্যমে যোগাযোগ করেন পাবনায় স্বাধীন বিশ^াস নামের ্এক ব্যক্তির সাথে। আত্মপরিচয় অনুসন্ধানে চলে আসেন বাংলাদেশে। পাবনায় এসে উঠেছেন শহরের একটি হোটেলে।
মিন্টোর হোটেলে গিয়ে কথা হয় এই ডেনিশ দম্পতির সাথে। মিন্টো জানান, ছেলেবেলার কোন স্মৃতিই মনে নেই তার,জানেন না বাংলা ভাষা। তবে, পেশায় চিত্রশিল্পী মিন্টোর গায়ের রং জানান দেয় তার বাঙালী নৃতাত্ত্বিক পরিচয়। নাটাই ছেঁড়া ঘুরির মত জীবনে সব সময়ই তাড়া করে ফিরেছে বাবা মায়ের পরিচয় জানার আকুতি। অসম্ভব এই অভিযাত্রায় জয়ী হবার সম্ভাবনা ক্ষীণ, তবু প্রচেষ্টা টুকুই সান্তনা জানালেন মিন্টো।
মিন্টো কার্টসটেন সনিক জানান, পুরনো কাগজ ঘেঁটে জেনেছেন মাত্র ৬ বছর বয়সে পাবনার বেড়া উপজেলার নগরবাড়ী ঘাট এলাকা থেকে হারিয়ে যান তিনি। সেখান থেকে ঢাকার ঠাটারীবাজার টেরি ডেস হোমস নামের শিশু সদনে ছিলেন। পরে শিশু সদন থেকে ১৯৭৮ সালে ডেনমার্কের এক নিঃসন্তান দম্পতি মিন্টুকে দত্তক নিয়ে যায়। সেখানেই তার শৈশব কৈশর কাটে, বিত্ত বৈভবের মাঝে লেখাপড়া শিখে বড় হয়। পেশায় একজন চিত্র শিল্পী। ডেনমার্ক নাগরিক এনিটি হোলমিহেভ নামের এক চিকিৎসককে বিয়ে করে সংসার জীবন শুরু করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে এক ছেলে ও মেয়ে জন্ম নেয়।
জীবনের শুরুতে তেমন সমস্যার সৃষ্টি না হলেও বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথেই সে সব সময় হীনমন্যতায় ভুগতেন। পরিবারের লোকজনের সাথে খুবই দূর্ব্যবহার করতেন। মাঝে মধ্যেই মেজাজ খিটমিটে হয়ে যেত, কোন কিছুই ভালো লাগতো না তার। অবশেষে পরিবারে সবার সিদ্ধান্তে ড্যানিশ স্ত্রীকে সাথে নিয়ে ছোট বেলার একটি ছবিকে অবলম্বন করেই ছুটে আসেন পাবনায়। গত দশদিন ধরে পাবনা শহরসহ নগরবাড়ি এলাকায় চষে বেড়াচ্ছেন এই দম্পতি নিজ বাবা-মা কিংবা স্বজনদের খোজে। সকালে হোটেল কক্ষ থেকে বের হয়ে রাস্তায় রাস্তায় লিফলেট বিলি করছেন, নিজ স্বজনদের সন্ধানে।
এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে মিন্টো বলেন, যদিও ডেনমার্কে আমার পালক পিতা-মাতা ও স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে খুব সুখেই আছি, তবুও আমার অন্তর এখনো বার বার কেঁদে ওঠে বাংলাদেশের বাবা-মা ও তার স্বজনদের জন্যে। মনে হয় তাদের পেলেই তার জীবনটা সম্পূর্ণ হয়ে উঠবে। আমি চোখ বন্ধ করে একটি দীর্ঘ নিঃশ্বাস নিলেই, মনে হয় আমার সেই স্বজনদের গন্ধ পাচ্ছি। প্রতিটি মানুষই নিজের বাবা মায়ের পরিচয় জানতে চায়।
মিন্টো আরো বলেন, শেকড়ের কথা মনে হলে আমি প্রচন্ড শুন্যতা অনুভব করি। যদি বাবা , মায়ের খোঁজ পাই তাহলে সেটা অসাধারণ হবে। না পেলে মৃত্যুর আগে জানব তাদের খুঁজে পেতে আমি চেষ্টা করেছিলাম।
বাংলাদেশে এসে কেমন লাগছে জানতে চাইলে মিন্টো কারস্টেন সনিক বলেন, আমার মনে হচ্ছে যেন ডাঙায় থাকা একটি মাছ পানিতে ফিরেছে। প্রতিটি মানুষকে মনে হচ্ছে আমার আপন,আমার চেহারার সাথে তাদের মিল। যেন আমি আয়নায় নিজেকেই দেখছি।
মিন্টোর আবেগকে শ্রদ্ধা করে তার পরিবারও। আশ্রমে থাকাকালীন ছোটবেলার দু,একটি ছবি ছাড়া কোন সূত্র নেই। এরপরও এক বুক আশা নিয়ে, পাবনার পথে পথে মিন্টোর শেকড় খুঁজে বেরাচ্ছেন তারা।
বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত মিন্টোর স্ত্রী এনিটি হোলমিহেভ বলেন, মিন্টোর এ দেশে কাটানো শৈশবের কোন স্মৃতিই মনে নেই। যে আশ্রমে সে ছিল তারও অস্তিত্ব খুজে পাই নি আমরা । জানি এটা খুব কঠিন,তারপরও মিন্টো যদি তার স্বজনদের খুঁজে পায়,তবে দারূন কিছু হবে।
সাত সাগর তের নদী পাড়ি দিয়ে বাবা মাকে খুঁজতে আসা মিন্টোর আবেগ ছুঁয়েছে পাবনাবাসীকেও। প্রশাসন দিয়েছে সহযোগীতার আশ^াস।
এ বিষয়ে পাবনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) শামিমা আকতার বলেন, বিষয়টি আমরা জেনেছি, পুলিশের পক্ষ থেকে যতটুকু সহযোগিতা করার আমরা করছি। ইতিমধ্যেই তিনি পাবনা সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন। তার উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে আমাদের পাশাপাশি দেশের গণমাধ্যম গুলোরও মিন্টুর পাশে দাঁড়ানো দরকার বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
এরই মাঝে সুযোগ সন্ধানী কেউ কেউ নিজেদের মিন্টোর স্বজন বলে দাবী করলেও দিতে পারেনি যুতসই প্রমাণ। ডিএনএ পরীক্ষার কথা শুনে পালিয়ে গেছেন। আত্মপরিচয়ের শেকড় সন্ধানী মিন্টো স্বজনদের দেখা না পেলেও যেন প্রতারিত না হন,জন্মভূমি থেকে সুখস্মৃতি নিয়ে ফিরতে পারেন প্রশাসনের নিকট সে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী করেছেন স্থানীয়রা।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap