শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৬:৪৫

ফেনীতে এমপি পদে নারীদের তৎপরতা বাড়ছে

ফেনী প্রতিনিধি : নারীদের রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। রাজনৈতিক দলগুলোতে নারীদের পদচারণা যদিও এখনো উল্লেখ করার মতো নয়। ১৯৭৩ সালের প্রথম সংসদে মাত্র ১৫ জন নারী সংসদ সদস্য ছিল, কিন্তু বর্তমানে সংসদে ৭২ জন নারী সংসদ সদস্য রয়েছে যার মধ্যে ২২ জন সরাসরি প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েছেন।অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, পরিবর্তন ইতিবাচক কিন্তু সংসদে যেভাবে জনগণের আস্থার প্রতিদান দিতে হয় নারী সদস্যরা তা পারছেন কি-না তা কিছুটা হলেও প্রশ্ন রয়ে গেছে।

বর্তমান সংসদে প্রধানমন্ত্রী, সংসদ উপনেতা, স্পিকার এবং বিরোধীদলীয় নেত্রীসহ চারজন মন্ত্রী নারী থাকা সত্ত্বেও সর্বশেষ পৌরসভা নির্বাচনে কেন্দ্র থেকে দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হলেও নারী প্রার্থীর সংখ্যা ছিল নগণ্য। সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়ার সময়ও নারীর তুলনায় পুরুষের ব্যাপক প্রাধান্য পরিলক্ষিত হয়।

রাজনৈতিক দলগুলোর চিত্র পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম প্রেসিডিয়ামের ১০ জন সদস্যের মধ্যে তিনজন নারী এবং দলটির সভাপতিও একজন নারী। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ১৭ জন, যার মধ্যে নারী সদস্য মাত্র একজন, যদিও দলটির সভাপতি একজন নারী। অন্যদিকে বর্তমান বিরোধী দল জাতীয় পাটির প্রেসিডিয়ামের সদস্য ৩৯ জন, নারী সদস্য মাত্র চারজন।

এদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ফেনীর রাজনীতির মাঠের নারী প্রার্থীদের তৎপরতা ততই বাড়ছে। সভা-সমাবেশ, পোস্টার ও ব্যানারে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা চোখে পড়ছে। ফেনীর তিনটি আসনেই পুরুষ প্রার্থীদের পাশাপাশি বেশ ক’জন নারী প্রার্থী ও তাদের প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এরা হলেন- ফেনী-১ আসনের এমপি জাসদ (ইনু) সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার। তবে এ আসনের হেভিওয়েট প্রার্থী বেগম খালেদা জিয়ার কারাবন্দী থাকায় কোনো তৎপরতা নেই। এছাড়া জাতীয় পার্টি থেকে কেন্দ্রীয় নেত্রী নাজমা আকতারকে প্রাথমিকভাবে ফেনী-১ আসনে প্রার্থী ঘোষণা করেছে জাতীয় পার্টি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ফুলগাজী, পরশুরাম ও ছাগলনাইয়া উপজেলা ও পৌরসভা নিয়ে গঠিত ফেনী-১ সংসদীয় আসন। ১৯৯০, ১৯৯৬, ২০০১ ও সর্বশেষ ২০০৮ সালসহ সর্বমোট চারবার এ আসন থেকে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। এ নির্বাচনী আসনের ফুলগাজী উপজেলার শ্রীপুর গ্রামে তার পৈতৃক বাড়ি হওয়ায় এ আসনটি খালেদার আসন হিসেবে খ্যাত। আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করলে এ আসনে নিশ্চিতভাবেই এমপি পদে প্রার্থী হবেন খালেদা জিয়া- এমনটাই মনে করছেন নেতা-কর্মীরা।

এ আসনে ১৯৯০ থেকে ২০১৪, দীর্ঘ ২৪ বছর আওয়ামী লীগ থেকে কোনো প্রার্থী জয়লাভ করেনি। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে জাসদনেত্রী শিরিন আখতার বেগম খালেদা জিয়ার আসনে মহাজোট প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হন। সর্বশেষ কাউন্সিলে জাসদ একাংশের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় তাকে স্থানীয়ভাবেও শক্তিশালী করেছে। এমপি হওয়ার পর সংসদীয় আসনে নিয়মিত জনসংযোগ ও যাওয়া-আসার মাধ্যমে জাসদের সাংগঠনিক ভিত্তি পুনর্গঠনেও তিনি ভূমিকা রেখেছেন। আগামী নির্বাচনে এই আসনে তাকে বড় প্রার্থী হিসেবেই দেখছেন স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়নে কমিটি গঠনের পাশাপাশি সাংগঠনিক দক্ষতা বাড়াতে তিনি নিয়মিত এলাকায় কর্মীদের নিয়ে উঠান বৈঠক করে যাচ্ছেন। মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে আগামী নির্বাচনেও এ আসনটি জাসদ পাবার সম্ভাবনা বেশ জোরালো। আর সে কারণেই কিছুটা স্বস্তিতে আছেন শিরিন আখতার।

প্রার্থিতা সম্পর্কে তিনি বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির পতনে মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে কাজ করতে হবে। মনোনয়নের ব্যাপারে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে। নৌকা প্রতীক নিয়ে জনগণের জন্য এলাকার কাজ করতে চাই। তবে জাতীয় পার্টি থেকে নাজমা আক্তারের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় এ নেত্রীকে জেলা ও উপজেলা জাতীয় পার্টির বিভিন্ন কর্মসূচিতে দেখা যাচ্ছে।

ফেনী-২ আসনে যে দুজন নারীনেত্রী নারী সাংসদ হিসেবে মনোনয়নপ্রত্যাশী এরা হলেন- সংরক্ষিত মহিলা আসনের বর্তমান এমপি মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জাহানারা বেগম সুরমা।
তিনি জানান, সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি জেলায় অনেক কাজ করেছেন এবং প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। মনোনয়নের ব্যাপারে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। তবে তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে জনগণের জন্য এলাকার কাজ করে যেতে চান।

ফেনী-২ আসনে বিএনপি থেকে সরাসরি নির্বাচন করতে চান সংরক্ষিত মহিলা আসনের দুবারের সাবেক সাংসদ রেহানা আক্তার রানুু। কেন্দ্রীয় বিএনপির এ নেত্রী জানান, দলের দুঃসময়ে রাজনৈতিক অগ্নিপরীক্ষায় নারীনেত্রী ও কর্মীরা পুরুষ নেতাকর্মীদের তুলনায় সাফল্য দেখিয়েছেন। দল মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করার লক্ষ্যে আগে থেকেই তৎপর রয়েছেন তিনি।

সোনাগাজী ও দাগনভূঞা উপজেলা নিয়ে বর্তমান ফেনী-৩ আসনটি গঠিত। এ আসনে নারী প্রার্থী হিসেবে ইতোমধ্যে দুজন নারীনেত্রীর নাম আলোচনায় এসেছে। দুজনই মঞ্চ, টিভি ও চলচ্চিত্র অভিনেত্রী- একজন হলেন রোকেয়া প্রাচী ও অন্যজন শমী কায়সার। দুজনের মধ্যে আবার এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরে রোকেয়া প্রাচীর তৎপরতা চোখে পড়ার মতো। এ আসন থেকে আরো যারা আলোচনায় রয়েছেন- সোনাগাজী উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা দলনেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস মিতা ও উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফেনী জেলা পরিষদ সদস্য খাদিজা খানম শাহিন।

মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডগুলো তৃণমূলের জনগণের কাছে এসে তুলে ধরছি। মানুষের পাশে থেকে তাদের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আশা করছি প্রধানমন্ত্রী আমাকে এ আসনে মনোনয়ন দিয়ে এলাকার সেবা করার সুযোগ করে দেবেন। বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়নে কমিটি গঠনের পাশাপাশি সাংগঠনিক দক্ষতা বাড়াতে তিনি নিয়মিত এলাকায় কর্মীদের নিয়ে উঠান বৈঠক করে যাচ্ছেন। মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে আগামী নির্বাচনেও এ আসন থেকে নির্বাচন করতে চান।

এদিকে ফেনীর কৃতী সন্তান শহীদ শহীদুল্লা কায়সারের মেয়ে এক সময়ের টিভি ও মঞ্চের অভিনেত্রী বর্তমানে ব্যবসায়ী শমী কায়সার ও ফেনী-৩ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন চাইবেন বলে জানান।
উল্লেখ্য, গত সংসদে তার মা পান্না কায়সার ও আওয়ামী লীগ মনোনীত সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি ছিলেন।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap