শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / গ্রীষ্মকাল / ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৭ই শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি / এখন সময় সকাল ১০:২৫

ফুলবাড়ীতে সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

মাহবুব হোসেন সরকার লিটু, (ফুলবাড়ী) কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : শিশির ভেজা সকাল ঘন কুয়াশার চাদরে মোড়ানো কৃষকের বিস্তারিত মাঠজুড়ে সরিষার দু-চোখ জুড়ানো হলুদ ফুলের সমারোহ ।

যেন চারিদিক সরিষা ফুলের হলুদ রঙে ভরে উঠেছে ফসলের মাঠ আর মাঠ। নয়ন জুড়ানো দৃশ্যে মেতে উঠেছে ফসলের মাঠ ।

ঋৃতু পরিবর্তেনর সঙ্গে সঙ্গে বদলে গেছে প্রকৃতির রুপ বৈচিত্র। যেন মাঠ জুড়ে হলুদ রঙ সাজিয় তুলিছে প্রকৃতির অপরুপ সৌদর্যের দৃশ্য রুপ। সরিষা ফুলের নয়নাভিরাম দৃশ্য পাল্টে দিয়েছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার দৃশ্যপট ।

সরিষার মাঠজুড়ে এক দিকে মৌমাছির গুনগুন শব্দে মধু সংগ্রহ করছে । অন্য দিক প্রজাপতির দল এক ফুল থেকে আরেক ফুল যাচ্ছে ।

এ অপরুপ প্রাকৃতিক দৃশ্য সত্যিই যেন এক মনোমুগ্ধকর মুহুর্ত । উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এ বছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় কৃষকের মূখে হাসির ঝিলিক দেখা দিয়েছে ।

উপজেলা কৃষি অফিসর কর্মকর্তাগণ কৃষকের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ ও সরিষা ক্ষেত দেখে বিভিন্ন পরামর্শ দিচ্ছেন। আমন ধান ঘরে তোলার সঙ্গে সঙ্গে এ অঞ্চলের প্রান্তিক চাষিরা একই জমিতে সরিষা চাষ করছে ।

সরিষার ফলন ঘরে তোলার সঙ্গেই আবারও একই জমিতেই কৃষকরা বোরো চাষ করবেন। সরিষা বিক্রি করে কৃষকরা বোরো আবাদের জন্য স্বল্প খরচ ও কম পরিশ্রমেই সরিষার জমিতে ইরি-বোরো আবাদ হওয়ায় কৃষকরা লাভবান হওয়ায় সরিষা চাষ দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এ অঞ্চলে।

সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় ভালো দামের আশায়ও করছেন কৃষকরা।

উপজেলার ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নের নগরাজপুর গ্রামের কৃষক নুরহোসেন সরকার বলেন, উপজেলা কৃষি বিভাগের পরামর্শে সাড়ে ২ বিঘা জমিতে বিভিন্ন জাতের সরিষার আবাদ করেছি। গাছে প্রচুর পরিমান ফুল ধরায় আশানুরুপ ফলন হবে বলে মনে করছেন তিনি।

এ বছর ভালো ফলন হওয়ার আশা করছেন বিঘা প্রতি ৫ থেকে ৬ মন করে সরিষা ঘরে তুলবেন বলে আশা করছন এই কৃষক।

একই ইউনিয়নের নগরাজপুর গ্রামের কৃষক বাদশা পাঠায়ারীসহ অনেকেই বলেন,সরিষার জমিতেই বোরৌ আবাদ ভালো হয় এবং খরচও কিছুটা কম। এছাড়াও বোরো আবাদে যে টাকা খরচ হয় তা সরিষা বিক্রির টাকা দিয়ে মেটানো সম্ভব হয় বলে আমন ধান ঘরে তোলার সঙ্গে সঙ্গে ঐ জমিতে তারা সরিষার আবাদ করেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছা: নিলুফা ইয়াছমিন বলেন, আবহাওয়া অনুকুল থাকায় এ বছর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে বিভিন্ন চরাঞ্চল ও দাসিয়ারছড়াসহ মৌট ১ হাজার ৩শ ৫০ হেক্টর জমিতে চাষিরা সরিষার চাষবাদ করছে।

সরিষা আবাদর জন্য ১ হাজার ১শ ৮০ জন কৃষককে প্রণোনা দেওয়া হয়েছে । এছাড়াও কৃষি বিভাগ সব সময় কৃষকের মাঠে মাঠে গিয়ে সর্বাত্বক সহযোগিতা ও পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে । গত বছরের চেয়ে এ বছর সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে । আশা করছি কৃষকরা সরিষা চাষে লাভবান হবেন।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap