শিরোনামঃ

আজ শনিবার / ২৫শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১০ই ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৫ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় বিকাল ৫:২১

প্রেমের স্বীকৃতি নিতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরে এলো কলেজ ছাত্রী

ঈশ^রদী প্রতিনিধি \ হিন্দু প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমের স্কীকৃতি নিতে গিয়ে ধর্মীয় জাত ভেদের বাঁধায় আত্মহত্যা করে লাশ হয়ে ফিরে এলো মুসলিম মেয়ে নাহিদা খাতুন (১৭) নামের এক কলেজ ছাত্রী। গত বুধবার সন্ধ্যায় সিরাজগঞ্জ বঙ্গবন্ধু সেতুর উপর এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত কলেজ ছাত্রী ঈশ^রদীর পাকশী ইউনিয়নের নতুন রুপপুর স্কুলপাড়ার নান্টু প্রামানিকের মেয়ে ও ছলিমপুর কলেজের ছাত্রী। এ বছর নাহিদা এইচ এসসি পরীা পাশ করেছে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিহত কলেজ ছাত্রীর লাশ নিজ বাড়িতে পৌঁছালে খবরটি এলাকায় চাউর হয়ে যায়।
নিহত নাহিদার মা বিলকিস খাতুন জানান,এবছর এইচ এসসি পরীা চলাকালে নাহিদার সঙ্গে হৃদয় ওরফে বিজয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এই সম্পর্কের জের ধরে নাহিদা ইতোপুর্বে বেশ কয়েকবার হৃদয়ের বাড়িতে যায়। যখন হৃদয়ের সঙ্গে নাহিদার পরিচয় হয় তখন হৃদয় বলেনি সে হিন্দু পরিবারের ছেলে। বুধবার নাহিদা প্রেমিক হৃদয়ের বাড়িতে চলে যাওয়ার খবর তাকে আনতে হৃদয়ের বাড়ি টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর রেললাইন সংলগ্ন গ্রামে যাওয়া হয়। সেখানে গিয়েই প্রথমে জানতে পারি হৃদয় হিন্দু। হৃদয়ের পরিবার মুসলিম মেয়েকে পুত্রবধু হিসেবে মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানায়। কিন্তু নাহিদা প্রেমের স্বীকৃতি স্বরুপ হৃদয়ের বাড়িতে থাকতে চায়। এই পর্যায় তারা নাহিদাকে জোর করে বাড়ি থেকে বের করে বাসে উঠিয়ে দেয়। এতে অভিমান করে চলন্ত বাস থেকে নাহিদা যমুনা নদীতে লাফ দেয়। কিন্তু নদীতে না পরে সেতুর উপর পড়ে রা¯Íার আইল্যান্ডের সঙ্গে মাথায় আঘাত লেগে গুরুতর আহত হয়ে মারা যায়।
বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি শহিদ আলম জানান,বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিমপাড়া থানা সংলগ্ন হিন্দু পরিবারের ছেলে হৃদয় পাবনার ঈশ^রদী সরকারী কলেজের ছাত্র থাকাকালীন একই উপজেলার ছলিমপুর কলেজের ছাত্রী নাহিদার সঙ্গে পরিচয় হয়। এই থেকে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। দুই জনই চলতি বছরে এইচ এসসি পরীায় পাশ করেছে। মেয়েটি ইতোপুর্বে বেশ কয়েকবার ছেলেটির খোঁজে এলাকায় এসেছিলো। গত বুধবার মেয়েটি তার মা বিলকিস খাতুনকে নিয়ে ছেলেটির বাড়িতে আসে। কিন্তু তারা এসে দেখে ছেলেটি হিন্দু পরিবারের। হৃদয়ের পরিবার থেকে মুসলিম পরিবারের মেয়ে নিতে অস্বীকার করে। হৃদয়ের পরিবারসহ এলাকাবাসীর প হতে মা ও মেয়েকে একটি বাসে তুলে দেয়। মেয়েটি বাসের সুপারভাইজারের সিটে ও মা বাসের ইঞ্জিন সিটে বসেছিলো। বাসটি সেতু পার হওয়ার কালে মেয়েটি যমুনা নদীতে লাফিয়ে পড়া চেষ্টা করে। কিন্তু নদীতে না পড়ে সেতুর উপর পড়ে আইল্যান্ডের সঙ্গে ধাক্কা লেগে গুরুতর আহত হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। বৃহস্পতিবার বিকেলে পরিবারের স্বজনদের নিকট লাশটি হ¯Íান্তর করা হয়েছে।
পাকশী ইউপি মেম্বার সানি মিলন জানান,গতকাল বিকেলে মেয়ের মা বিলকিস খাতুন,স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ এলাকার কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ কে নিয়ে ঘটনাস্থলের থানায় গিয়ে লাশটি সন্ধ্যার পর এলাকায় নিয়ে আসা হয়। ধর্ম ও জাত ভেদের বাঁধায় প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে বলেও জানান এই মেম্বার।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap