শিরোনামঃ

আজ শুক্রবার / ১৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২রা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৭ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৪:৪২

পাবনায় ৩৪১ মন্দিরে শারদীয় দুর্গাপূজা

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনায় শারদীয় দুর্গাপূজার সব প্রস্তুতি শেষ। মাটির কাজ শেষ, রঙ তুলির আঁচড়ে সেজে উঠেছে দেবী দুর্গা। এখন অপেক্ষা দেবীর বোধনের। সোমবার (১৫ অক্টোবর) দেবীর বোধনের মধ্যে দিয়ে শুরু হচ্ছে শারদীয় দুর্গাপূজা। এবার পাবনা জেলার ৯টি উপজেলায় ৩৪১টি মন্দিরে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৫৫টি, আটঘরিয়ায় ১৫টি, চাটমোহরে ৫২টি, ভাঙ্গুড়ায় ১৯টি, ফরিদপুরে ১৩টি, সাঁথিয়ায় ৪৯টি, বেড়ায় ৫৪টি, সুজানগরে ৫৯টি ও ঈশ্বরদীতে ২৫টি মন্দির রয়েছে।

প্রশাসনের তরফ থেকে এসব মন্দিরের মধ্যে ১৪২টিকে অধিক গুরুত্বপূর্ণ, ১০৬টিকে গুরুত্বপূর্ণ ও ৯২টি মন্দিরকে সাধারণ ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। পুলিশ দুর্গোৎসবকে শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপনের জন্য ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে মন্দিরগুলো সেজেছে নতুন সাজে। পাশাপাশি পূজা উপলক্ষে হিন্দু ধর্মালম্বীদের ঘরে ঘরে শুরু হয়েছে নানা আয়োজন। বাড়িঘর পারিষ্কার থেকে শুরু করে নতুন পোশাক কেনা, অতিথি আপ্যায়নের জন্য নারকেলের নাড়ু ও মুড়ির মোয়াসহ বিভিন্ন মিষ্টান্ন তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন নারীরা। সুষ্ঠু ও সুন্দরভারে পূজা উদযাপনের লক্ষ্যে জেলা-উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী নিয়েছে নানা প্রস্তুতি।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। এ বছর জেলার ৯টি উপজেলায় ৩৪১টি মন্দিরে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি চলছে।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বাদল কুমার ঘোষ জানান, সুষ্ঠু, সুন্দর ও শৃঙ্খলভাবে পূজা উদযাপনের লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই কয়েক দফা বৈঠক করা হয়েছে। প্রতিটি মন্দিরে পুরোদমে পূজার প্রস্তুতি চলছে। মন্দিরগুলোতে বরাবরের মতো আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রশাসনের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস বলেন, পূজায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ইতিমধ্যেই পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে বৈঠক হয়েছে। এছাড়া পূজা উদযাপন পরিষদ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রতিটি মন্দিরে পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকে পুলিশ মোতায়েন থাকবে। আশা করছি প্রতিবারের মতো এবারও শান্তিপূর্ণ ও আনন্দঘন পরিবেশে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।

শহরের শালগাড়িয়া এলাকার পলি সান্যাল জানান, ইতিমধ্যেই বাড়িঘর পরিষ্কারের কাজ শেষ হয়েছে। অতিথি আপ্যায়নে জন্য নারকেলের নাড়ু, গুড় দিয়ে মুড়ি-খইয়ের মোয়া ও দুধ-চিনির সন্দেশ তৈরি করা হয়েছে। পূজার দিনগুলোর জন্য পায়েস ও লুচি তৈরির জন্য প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এছাড়া সিঁদুর খেলার জন্য সিঁদুর, আলতা ও আবির কেনা হয়েছে।

পল্টু ক্লাব পূজা উদযাপন কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সঞ্জয় কুমার সাহা বলেন, আমরা মন্দিরে পূজার প্রস্তুতি নিচ্ছি। বাড়ির নারী সদস্যরা অতিথি আপ্যায়নসহ অন্যসব প্রস্তুতিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap