শিরোনামঃ

আজ শনিবার / ২৫শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১০ই ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৫ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সকাল ৬:১৯

পাবনায় ২৮৯ বিদ্যালয় থেকে অতিরিক্ত ১৫ কোটি টাকা আদায়ের অভিযোগ

পাবনা প্রতিনিধি : চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার ফরম পুরণে পাবনা জেলার প্রায় সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাত্রাতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জেলার ৯টি উপজেলার ২৮৯ মাধ্যমিক স্কুল থেকে প্রায় ১৫ কোটি টাকা অতিরিক্ত আদায় করা হয়েছে। এ অতিরিক্ত টাকার জন্য কোন রশিদ দেওয়া হচ্ছে না। এমনকি এ বিষয়ে কোন অভিভাবক যদি ‘মুখ খোলে’ তা হলে সে শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ নষ্ট করে দেওয়া হবে বলেও হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের বলে দেওয়া হচ্ছে ‘কেউ যদি জানতে চায় কত টাকা দিয়েছে তা হলে বলবে ১৮‘শ’ টাকা।

জেলা শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, পাবনা জেলার ৯টি উপজেলায় ২৮৯ মাধ্যমিক স্কুল রয়েছে। চলতি বছর এ সব স্কুল থেকে ৭৫ হাজার ২০১ শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিবে। সরকার এবং বোর্ড অনুমোদিত বিজ্ঞান বিভাগের জন্য ১ হাজার ৮৩৫ টাকা এবং বাণিজ্য ও কলা বিভাগের জন্য ১ হাজার ৭৩৫ টাকা ফি নির্ধারিত রয়েছে। তবে জেলার প্রতিটি স্কুলেই ‘অন্যান্য ও বিভিন্ন খাত’ সৃষ্টি করে প্রায় ৩ হাজার ৪০০ টাকা থেকে ৪ হাজার টাকা করে আদায় করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুজানগর উপজেলার নাজিরগঞ্জ গ্রামের জনৈক অভিবাবক বলেন, আমি মাঠে কাজ করে অল্প টাকা আয় করি। আমার ছেলে নাজিরগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজ থেকে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষা দেবে। তার ফরম পুরনের জন্য প্রায় ৩ হাজার টাকা দিতে হয়েছে। এ ভাবে শুধু ঐ স্কুলের শতাধিক জন এসএসসি পরীক্ষার্থীর কাছ থেকে অতিরিক্ত আদায় করা হচ্ছে প্রায় দেড় লাখ টাকা। তাছাড়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক একবার সিদ্ধান্তে জেএসসি পরীক্ষার ব্যবহারিক পরীক্ষার আগে ৪ টি ব্যাবহারিক পরীক্ষার জন্য প্রায় ১৫০ শিক্ষার্থীকে জিম্মি করে তাদের কাছ থেকে ৮০ টাকা করে আদায় করেছে।

এ ব্যাপারে পাবনার নাজিরগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ রুকিনা বেগম অতিরিক্ত টাকা আদায়ের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমরা স্কুলের উন্নয়নের জন্য কিছু বেশি নেই তবে অনেক স্কুলের মত অতিরিক্ত না। বোর্ডের কিছু খরচ আছে পাবনার কিছু সরকারি কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করতে হয় সে জন্য সবার সম্মতিতেই এই অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হয়। এমন অভিযোগ পাবনা সদর ঈশ্বরদী, আটঘোড়িয়া, চাটমোহর, ভাংগুড়া, ফরিদপুর, বেড়া, সাঁথিয়া উপেজেলার স্কুল থেকে পাওয়া গেছে। অনেক অভিভাবক মন্তব্য করেছেন, জেলা শিক্ষা অফিস ঠিকমত মনিঠরিং না করায় এমন ঘটনা ঘটছে।

পাবনার ইমাম গাযযালী স্কুল এন্ড কলেজে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ৩ হাজার ৪০০ থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকা। স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এবার প্রায় আড়াই ‘শ জন পরীক্ষা দেবে। এভাবে শুধু ঐ স্কুল থেকেই অতিরিক্ত আদায় করা হয়েছে চার লক্ষাধিক টাকা।

এব্যাপারে পাবনার ইমাম গাযযালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ বেগম সুরাইয়া বলেন, তার অগোচরে শুধুমাত্র একটি বাচ্চার কাছ থেকে ৩৪০০ টাকা নেওয়া হয়েছিল। ঐ বাচ্চার অভিভাবক আসলে বাড়তি টাকা ফেরত দেওয়া হবে। এভাবে পাবনা জেলা স্কুল পাবলিক স্কুল, আদর্শ গার্লস স্কুল, সেন্ট্রাল গার্লস হাই স্কুল, জাগির হোসেন একাডেমি, শহীদ ফজলুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয়, আর এম একাডেমি, বালিয়াহালট আমজাদ হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়, শহীদ নজরুল ইসলঅম হাবু স্কুল এন্ড কলেজসহ পাবনা সদর উপজেলার ৬৫টি স্কুলে মাত্রারিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে পাবনা জেলা শিক্ষা অফিস এসএম মোসলেম উদ্দিন বলেন, “আমি নতুন যোগদান করেছি। তেমন কিছু জানিনা। তবে খোজ নেব”।

পাবনার জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন বলেন, অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার বিষয়ে তার কাছেও অনেকে অভিযোগ করেছেন। তবে টাকা আদায়ের রশিদসহ অভিভাবকের লিখিত অভিযোগ করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, অভিযোগ পেলে তদন্ত করে দোষী বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যবস্থা নেব।

দুদক পাবনার উপ-পরিচালক আবু বকর ছিদ্দিক বলেন, এসব বিষয়ে অভিযাগ পাওয়া যাচ্ছে। দুদক বিভিন্ন স্কুলে নজরদারী করছে। প্রমাণ পেলেই হাতে নাতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap