শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৮:২৬

পাবনায় সরিষার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে

শফিউল আলম দুলাল, পাবনা : ভোজ্য তেল হিসেবে সমাদৃত সরিষার উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে পাবনায়। ভোজ্য তেল আমদানী হ্রাস করে বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ের অংশ হিসেবে সরিষা আবাদের উপর গুরুত্ব দিয়েছে কৃষি বিভাগ। আর এ জন্য কৃষি মন্ত্রনালয় থেকে নেয়া হয়েছে ডাল, তেল ও মসলা জাতীয় ফসল উৎপাদন বৃদ্ধির প্রকল্প। উচ্চ ফলনশীল নতুন নতুন উদ্ভাবিত জাতের মাধ্যমে সীমিত জমিতে সরিষা সহ তেল জাতীয় ফসল বেশী উৎপাদনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।
খাদ্য মন্ত্রনালয়ের বরাদ দিয়ে বাংলাদেশ পরমানূ কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট, বিনার মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আব্দুল মালেক জানান, দেশে লোক সংখ্যার হিসেবে ভোজ্য তেলের বাৎসরিক চাহিদা রয়েছে ২০ লাখটন। কিন্তু দেশে উৎপাদিত বিভিন্ন তৈল জাতীয় ফসল থেকে যোগান আসে ৫লাখ টন। বাকী ১৫ লাখ টন ভোজ্য তেল বিদেশ থেকে আমদানী করতে হয়। এ তেল ক্রয় করতে সরকারের ১৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করতে হয়।

পাবনা কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের অধীনে জেলার নয়টি উপজেলাতে গত রবি মৌসুমে ২৯ হাজার ৫২৫ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ করা হয়। আর এ আবাদ থেকে ৩৮ হাজার ৮৭ টন সরিষা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত থাকলেও উৎপাদন হয়েছে ৩৮ হাজার ৩০৩ টন। ১৯১৭-১৮ অর্থ বছরে জেলার নয়টি উপজেলাতে সরিষা আবাদ হয়েছিল ২৫ হাজার ৯৮৭ হেক্টর। উৎপাদন এসেছিল ৩১ হাজার ৮৪০ টন।

পাবনা কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের উপ পরিচালক কৃষিবিদ আজাহার আলী জানান, পাবনা জেলার নয়টি উপজেলাতে সরিষার বাম্পার ফলন হয়েছে। বিশেষ করে বারি-১৪ জাতের সরিষা আবাদে আশাতীত ফলন ঘড়ে তুলেছে কৃষক। তিনি জানান, গত রবি মৌসুমে পাবনা সদর উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬ হাজার ৫০০ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮ হাজার ৩৮৫ টন, আটঘড়িয়া উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ হাজার ৯০৫ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ৪৫৭ টন, ঈশ্বরদী উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮০০ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ হাজার ৩২ টন,

চাটমোহর উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫ হাজার ৭১০ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭ হাজার ৩৬৬ টন, ভাঙ্গুড়া উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫ হাজার ৬১৫ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭ হাজার ২৪৪ টন, ফরিদপুর উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ হাজার ১০০ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫ হাজার ২৮৯ টন,

বেড়া উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ৩৬০ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩ হাজার ৪৪ টন, সাথিয়া উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ হাজার ৮০০ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ৩২২টন এবং সুজানগর উপজেলাতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭৩৫ হেক্টর, এ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯৪৮ টন।
ঈশ্বরদী উপজেলার ইস্তা গ্রামের সিজানুর রহমান ও সাথিয়া উপজেলার গোপালপুর গ্রামের সরিষা চাষী সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সরিষা আবাদে সাধারনত অলটার নারিয়া ব্রাইট রোগে আক্রান্ত হয়। কৃষি দফতরের সহায়তা ও পরামর্শে রোগবালাইহীন ভাবে সরিষা আবাদ করে বিঘাপ্রতি প্রায় সাতমন ফলন পেয়েছি। এ বছর সরিষা চাষীরা বেশ লাভবান হবে। বর্তমানে প্রায় দুই হাজার টাকার দরে পন্যটি বাজারে বিক্রি হচ্ছে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap