শিরোনামঃ

আজ শুক্রবার / ২৪শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ৯ই ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৪ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৬:০৮

পাবনায় বহুমুখী খামার করে স্বাবলম্বী মামুন

সুজানগর (পাবনা) : সুজানগরে বহুমুখী খামার করে মামুন হোসেন নামে এক যুবক স্বাবলম্বী হয়েছেন। তিনি উপজেলার ঘোড়াদহ গ্রামের মরহুম আব্দুস শুকুর মোল্লার ছেলে। ছাত্রজীবন থেকেইে মামুনের স্বপ্ন ছিল বেকারত্বের অভিশাপ থেকে বাঁচতে তথা সংসারে সচ্ছলতা আনতে একটি বহুমুখী খামার করা। তবে তার স্বপ্ন যে এক সময় বাস্তবে রূপান্তরিত হবে সেটি সে নিজেও ভাবেনি। ১৯৯৮সালে তিনি ৪টি উন্নত জাতের গাভী কিনে নিজ বাড়িতে ডেইরি খামার শুরু করেন। প্রায় ২লক্ষ টাকা দিয়ে ৪টি গাভী কিনে শুরু করা খামারে এখন গরুর সংখ্যা ১২০টি। মাত্র ৪টি গাভী দিয়ে শুরু করা এই খামারটি আস্তে আস্তে উপজেলার মধ্যে সব চেয়ে বড় খামারে পরিণত হয়। তবে তিনি শুধু ডেইরি খামার করেই থেমে থাকেননি। ডেইরি খামারের পাশাপাশি তার বিশাল বিস্তৃত বাড়িতে টার্কি মুরগি ও উন্নত জাতের ভেড়ার খামারসহ পানির হাউসে মাছ চাষ এবং দৃষ্টিনন্দন ফলজ বাগান প্রতিষ্ঠা করেছেন। ফলে সময়ের আবর্তনে ওই খামার এখন সত্যই তার স্বপ্নের বহুমুখী খামারে পরিণত হয়েছে। খামারী মামুন জানান, মাছ এবং বাগান থেকে তেমন লাভ হয়না। তবে দুগ্ধ, টার্কি মুরগি ও ভেড়ার খামার তার সংসারে ব্যাপক সচ্ছলতা বয়ে এনেছে। বর্তমানে তার ডেইরি খামার থেকে প্রতিদিন সাড়ে ৩‘শ লিটার দুধ উৎপাদন হয়। এ সব দুধ ব্র্যাক এবং আড়ং কোম্পানির চিলিং সেন্টারের পাশাপাশি স্থানীয় হোটেল-রেঁস্তোরায় বিক্রি করা হয়। প্রতিমাসে দুধ বিক্রি করে শ্রমিক ও খাদ্যসহ অন্যান্য খরচ বাদে তার প্রায় তিন লক্ষ টাকা আয় হয়। এছাড়া টার্কি মুরগি এবং ভেড়া পালন করেও খরচ বাদে বছরে ৮/১০ লক্ষ টাকা আয় হয়। মাত্র ৩০বছর বয়সী এই যুবক মামুন খামার করে শুধু নিজেই স্বাবলম্বী হননি এলাকার অনেক বেকার মানুষেরও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন। বর্তমানে তার খামারে ১৮জন শ্রমিক চাকরি করে পরিবারপরিজন নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। সেই সঙ্গে মামুনের সাফল্য দেখে এলাকার অনেক বেকার যুবক খামার করার দিকে ঝুঁকছেন। খামারী মামুনও ওই সকল যুবককে বুদ্ধি-পরামর্শ দিয়ে খামার প্রতিষ্ঠায় উদ্বুদ্ধ করছেন। সফল খামারী মামুন বলেন যেকোন কাজে সফলতার জন্য প্রয়োজন আত্মবিশ্বাস ও ধৈর্য। এ পর্যন্ত আসতে তার বিভিন্ন প্রতিকূল অবস্থার শিকার হতে হয়েছে। তবে তিনি ধৈর্য হারাননি। আর সেকারণেই আজ তার এই সফলতা। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা জামাল উদ্দিন বলেন আল কায়েদ ডেইরি ফার্ম উপজেলার মধ্যে একটি অনুকরণীয় এবং অনুসরণীয় ফার্ম। মামুনের কর্মনিষ্ঠতা এবং প্রাণিসম্পদ বিভাগের সঠিক পরামর্শ এবং প্রয়োজনী চিকিৎসাসেবার কারণে ফার্মটি সত্যই উপজেলার মধ্যে একটি রোগ-বালাইমুক্ত আদর্শ ফার্মে পরিণত হয়েছে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap