শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৮:১০

পাবনায় পরীক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনায় ছয় দফা দাবিতে বিক্ষোভ

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনার ভাঙ্গুড়ায় দুই স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে একজন এসএসসি পরীক্ষার্থীকে পিটিয়ে জখমের ঘটনায় করার অভিযোগ উঠেছে। এর প্রতিবাদে ছয় দফা দাবিতে মঙ্গলবার সকালে এলাকাবাসি ও বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা ক্লাস বর্জন করে ক্লাস রুমে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ করেছে।
খবর পেয়ে ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেন। সকালে উপজেলার উপজেলার রূপসী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।
এসময় বিক্ষোভকারীরা ছয় দফা লিখিত দাবি সবার উদ্দেশ্যে পড়ে শোনান। দাবী সমূহ, ছাত্রকে নির্যাতনের সঠিক বিচার চাই। পরবর্তিতে কোন ছাত্রকে শারিরীক নির্যাতন করা যাবে না।
সকারের বিধি মোতাবেক প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতে হবে। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি তৈরি ক্ষেত্রে বহিরাগত ছাত্র ও অভিভাবকের ভোট বা মতামত গ্রহন করা যাবে না। বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি গঠনে শিক্ষিত সুশীল সমাজের মধ্য থেকে তৈরি করতে হবে। ইকলাসের প্রহারের সঠিক বিচার না হওয়া র্পযন্ত অভিবাবকেররা ছাত্রছাত্রীদরে স্কুলে পাঠাবে না।
বিক্ষোভকারীরা বলেন প্রধান শিক্ষক তার এক আলাপনীতে বলেন “স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীরও আমাকে কোনকিছু করার ক্ষমতা নেই” এই কটুক্তির সঠিক বিচার চাই। আহত ইকলাস বলেন,আমি পরীক্ষার খাতা স্বাক্ষর করাতে গিয়েছিলাম। আমাকে রাসেদুল ও সাঈদ স্যার মিথ্যা অপবাদে নির্যাতন করেছেন। আমার কোন অপরাধ ছিল না।
অভিযুক্ত শিক্ষক রাসেদুল ও সাঈদ বলেন ইকলাস স্কুলে এসে আমাদের উপর চড়াও এতে উভয়পক্ষের মধ্যে ইকলাসের সাথে হতাহাতি হয়েছিল।
কটুক্তির বিষয়ে প্রধান শিক্ষকে জিজ্ঞেস করলে তিনি বিষয়টি অস্বিকার করেন।
ভাঙ্গুড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মাসুদ রানা বলেন, এঘটনায় সোমবার রাতে উভয়পক্ষ থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে ওই ঘটনার প্রতিবাদে ছয় দফা দাবিতে এলাকাবাসি ও বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা ক্লাস রুমে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল আলম বলেন,আমি ঘটনাস্থলে আছি। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
উল্লেখ্য,গত কিছুদিন পূর্বে ওই স্কুলের ছাত্র ও এসএসসি পরীক্ষার্থী ইকলাস রহমান (১৬) অন্য একটি স্কুলের শিক্ষার্থীদের তাদের স্কুলে আসতে নিষেধ করে।
এ ঘটনায় পরে আর কিছুই হয়নি। তবে সোমবার সকালে ইকলাস ব্যবহারিক পরীক্ষার খাতা স্বাক্ষর করাতে স্কুলে যায়।
এসময় সহকারি প্রধান শিক্ষক রাসেদুল ইসলাম ও সহকারি শিক্ষক আবু সাঈদ শিক্ষার্থী ইকলাসকে ডেকে অফিস রুমে নিয়ে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালিসহ বেত দিয়ে পেটাতে শুরু করে বলে এলাকাবাসী জানান তার এর প্রতিবাদ করায় তার ওপর আরও বেশি নির্যাতন চালায়।
এতে ইকলাসের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে জখম হয়। খবর পেয়ে ওই ছাত্রের ফুফু হাসিনা খাতুনতাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেকে ্র ভর্তি করে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap