শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ১৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১লা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৬ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় দুপুর ২:০৮

পাবনার ৫ আসনেই নৌকার প্রার্থীরা মাঠে, খবর নেই বিএনপির

কৃষ্ণ ভৌমিক, পাবনা : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে জেলার হাটবাজার, মাঠঘাট সরব হয়ে উঠেছে। কোন দলের কে প্রার্থী হচ্ছেন, কার সঙ্গে কার ভোটযুদ্ধ হবে এ নিয়ে গ্রামীণ জনপদে আলোচনা সমালোচনা বেশ জোরেশোরেই শুরু হয়েছে। দিন যত গড়াচ্ছে বিভিন্ন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের হৃদস্পন্দন যেন বেড়েই চলেছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা কেন্দ্রে লবিংসহ মাঠে ময়দানে গণসংযোগে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। তবে জেলার পাঁচ আসনের প্রতিটিতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা যে যার মতো দলবল নিয়ে উঠান বৈঠক, কর্মীসভা, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে গণসংযোগ চালিয়ে ভোটের ময়দান গুছিয়ে নিচ্ছেন। তবে জেলার কোন আসনেই বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের গণসংযোগ এখন পর্যন্ত চোখে পড়ছে না। কোথাও কোথাও বিলবোর্ড, পোস্টার লাগিয়ে বিএনপির সম্ভাব্যপ্রার্থীরা তাদের প্রার্থিতা জানান দিচ্ছে। কোন আসনেই বিএনপির সম্ভাব্যপ্রার্থীরা মাঠে না থাকায় কর্মীসমর্থকদের মধ্যে হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। তৃণমূল বিএনপি কর্মীরা জানিয়েছেন, যতদিন যাচ্ছে ততই যেন তাদের মনোবল ভেঙে পড়ছে।

পাবনা-১ ॥ সাঁথিয়া পৌরসভা ও ১০ ইউনিয়ন, বেড়া পৌরসভা ও পাঁচটি ইউনিয়ন নিয়ে এ আসন। আসনটিতে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৬৬৭। যুদ্ধাপরাধী মামলায় ফাঁসির দ- কার্যকর জামায়াত আমির মাওলানা নিজামীর বাড়ি হওয়ায় আগামী নির্বাচনে আসনটি গুরুত্ব বহন করে। একাদশ জাতীয় নির্বাচন কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্যপ্রার্থীরাই এলাকায় গণসংযোগ করে চলেছেন। এখন পর্যন্ত অন্য কোন দলের গণসংযোগের খবর পাওয়া যায়নি। এ আসনে বর্তমান আওয়ামী লীগ সংসদ সদস্য সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু এবারও মনোনয়ন লাভের জন্য গণসংযোগসহ কেন্দ্রীয় পর্যায়ে লবিং করছেন। তার পরিবারের বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির কারণে এলাকার তৃণমূল নেতাকর্মীদের কাছ থেকে তেমন সাড়া মিলছে না। অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক তথ্যমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাইয়িদের দিকেই তৃণমূলের ব্যাপক সমর্থন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, সংস্কারপন্থী নেতা হিসেবে গত দুটি নির্বাচনে তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি। দলীয় কর্মকা- থেকেও তাকে বিরত রাখা হয়। এবার অধ্যাপক আবু সাইয়িদও আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হতে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। আসনটিতে তিনি শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। আওয়ামী লীগের গোড়াপত্তন এ আসনে তার হাতেই হয়। ১৯৭০, ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে তিনি দু’বার এমপি নির্বাচিত হন। সংবিধানপ্রণেতা সদস্য ও গবর্নরও ছিলেন। ৫০ বছর ধরে তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। এ আসনে ৩১৫ গ্রামেই তার রয়েছে শক্ত অবস্থান। গত রমজানের ঈদের পর শেখ হাসিনা উন্নয়ন মঞ্চ নামে তিনি এলাকায় গণসংযোগে নামলে জনতার ঢল নামে। চারদিনের কর্মসূচীর শেষ দিনে প্রতিপক্ষের সঙ্গে সহিংসতার পরিবেশ সৃষ্টি হলে তিনি গণসংযোগ কর্মসূচী বাতিল করেন। তার পক্ষে গ্রামেগঞ্জে ব্যাপক গণসংযোগ চালানো হচ্ছে। আওয়ামী লীগের অপর সম্ভাব্যপ্রার্থী হলেনÑ তিনবারের উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার আলহাজ নিজাম উদ্দিন। তিনি ব্যাপক গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। জামায়াতের প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন যুদ্ধাপরাধী মামলার মৃত্যুদ- কার্যকর নিজামীর পুত্র ব্যারিস্টার নাজিব মোমেন। বেড়া উপজেলা জামায়াত আমির ডাঃ আবুল বাছেত খান। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে ব্যারিস্টার নাজিব মোমেন ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হবেন বলে তার ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে। আর তা না হলে জামায়াতের ডাঃ আবুল বাছেত খান প্রার্থী হতে পারবেন। এ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী তাঁতীদলের সহ-সভাপতি বিশিষ্ট কেমিক্যাল ব্যবসায়ী আলহাজ ইউনুছ আলী, ধোপাদহ ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন খান। আসনটিতে আওয়ামী লীগ চুলচেরা বিশ্লেষণের মাধ্যমে প্রার্থী মনোনয়ন না দিলে আসনটি হাতছাড়া হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে নির্বাচন বিশ্লেষক ও তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন।

পাবনা-২ ॥ বেড়ার পাঁচ ইউনিয়ন ও সুজানগর পৌরসভাসহ ১০ ইউনিয়ন নিয়ে এ আসন। ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৫৬৩। এ আসনটিতে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরাই মাঠে ময়দানে চষে বেড়াচ্ছেন। তারা নানা কর্মসূচীর মাধ্যমে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে চলেছেন। আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেন বর্তমান এমপি খন্দকার আজিজুল হক আরজু, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ কবির, কৃষক লীগের সাবেক সভাপতি ড. মির্জা আব্দুল জলিল, ট্যারিফ কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মজিবর রহমান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপকমিটির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক রাকসু, ছাত্রলীগের সাবেক তথ্য গবেষণা সম্পাদক এ কে এম কামরুজ্জামান উজ্জ্বল, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপকমিটির তথ্য গবেষণা সম্পাদক বিষয়ক সদস্য আশিকুর রহমান খান সবুজ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ইমরান সিরাজ স¤্রাট। বর্তমান এমপি খন্দকার আজিজুল হক আরজুর বিরুদ্ধে হাইব্রিড নেতাকর্মীদের দিয়ে দল পরিচালনাসহ ত্যাগী নেতাকর্মীদের সঙ্গে বিভাজন সৃষ্টি করায় তাকে নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে। তিনি এমপি থাকাকালীন গ্রামেগঞ্জে তেমন না আসায় দলীয় কর্মীরা তাকে নিয়েও হতাশ। শেষ মুহূর্তে তিনি গ্রামগঞ্জে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনবারের এ আসনের এমপি, দু’বারের উপজেলা চেয়ারম্যান মরহুম আহম্মদ তফিজ উদ্দিনের ছেলে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আহম্মদ ফিরোজ কবির দীর্ঘ দেড় বছর ধরে গ্রামেগঞ্জে উঠান বৈঠকসহ বিভিন্ন কর্মসূচী নিয়ে গণসংযোগ করে চলেছেন। বর্তমান এমপি তৃণমূলে যেসব ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবহেলা করেছেন সেসব নেতাকর্মীরা আহম্মদ ফিরোজ কবিরের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। তিনি বাবার সততা ও সুনাম কাজে লাগিয়ে ভোটারদের মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টা চালাচ্ছেন। তিনি যেখানেই উঠান বৈঠক করতে যাচ্ছেন সেখানেই জনসভায় পরিণত হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ ফিরোজ কবির জানিয়েছেন, তিনি সততার সঙ্গে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে জনগণের কাছাকাছি এসেছেন। দলীয় সভানেত্রী তাকে এ আসনে এমপি পদে মনোনয়ন দিলে তিনি সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে সে দায়িত্ব পালন করতে প্রস্তুত আছেন। আওয়ামী লীগের উপ কমিটির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক রাকসু ছাত্রলীগের সাবেক তথ্য গবেষণা সম্পাদক এ কে এম কামরুজ্জামান উজ্জ্বল জানিয়েছেন, তিনি এক বছর ধরে এ আসনের সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচী নিয়ে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। তার সঙ্গে থানা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি, বেড়া আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি, সুজানগর থানা ছাত্রলীগের সভাপতিসহ ১০ ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি বা সেক্রেটারি গণসংযোগে অংশ নিচ্ছেন। তিনিও এ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী। তাকে মনোনয়ন দেয়া হলে তিনি সততা নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানান। এ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী আশিকুর রহমান খান সবুজ জানান, ছাত্রজীবন থেকেই এ আসনের আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে তিনি জড়িত। শুধু তিনিই না তার গোটাপরিবার আওয়ামী রাজনীতি করায় অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। তিনিও মনোনয়নপ্রত্যাশী তবে দল তাকে মনোনয়ন না দিলেও দলের প্রতীকের পক্ষেই কাজ করতে হবে বলে জানান। বিএনপির প্রার্থীদের গণসংযোগ এখনও চোখে পড়ার মতো নয়। তবে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী হলেন এ্যাড. সেলিম রেজা হাবিব, বিশিষ্ট সমাজসেবী বিএনপি নেতা মোঃ আসলাম হোসেন ম-ল, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, জেলা বিএনপির আইনজীবী ফোরামের সভাপতি আরশেদ আলম, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আব্দুল হালিম সাজ্জাদ। বিএনপির সম্ভাব্যপ্রার্থীদের মধ্যে সাবেক এমপি এ্যাডভোকেট সেলিম রেজা হাবিব ছাড়া এখনও বিজয়ী হওয়ার মতো বিকল্প প্রার্থী নেই বলে তৃণমূল বিএনপি নেতাকর্মীরা জানান। অন্যদিকে আসনটিতে জামায়াতের কোন প্রভাব নেই। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক এমপি মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার মকবুল হোসেন সন্টু জোটভুক্ত নির্বাচন হলে আসনটি দাবি করতে পারেন। আসনটিতে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়নে ভুল করলে আসনটি হাতছাড়া হওয়ার আশঙ্কাও দেখছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

পাবনা-৩ ॥ চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া ও ফরিদপুর উপজেলা নিয়ে জেলার সবচেয়ে বড় এ আসনে ৪ লাখ ২২ হাজার ৭৭৪ ভোটারের মধ্যে জোরেশোরেই ভোটের হাওয়া বইছে। আসনটিতে আওয়ামী লীগ বিএনপি দ্বন্দ্বে দু’দলেরই সম্ভাব্যপ্রার্থী সংখ্যা অনেক। আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মকবুল হোসেন এবারও মনোনয়নলাভে ব্যাপক লবিংসহ গণসংযোগ চালাচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, পরিবারতন্ত্রসহ নানা অভিযোগ তুলে সম্ভাব্যপ্রার্থীরা একজোট হয়েছেন। এসব সম্ভাব্যপ্রার্থী হলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হামিদ মাস্টার, পাবনা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এ্যাডভোকেট শাহ আলম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহসম্পাদক শিল্পপতি আতিকুর রহমান আতিক, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক শিল্পপতি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল আলিম, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সেক্টর কমান্ডার ফোরাম মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আঃ রহিম পাকন, চাটমোহর আওয়ামী লীগ সভাপতি এ্যাডভোকেট সাখওয়াত হোসেন, ভাঙ্গুড়া পৌর চেয়ারম্যান বাকিবিল্লাহ, পাবনা জেলা বিএমএ সভাপতি ডাক্তার গুলজার হোসেন, ফরিদপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান, ফরিদপুর পৌর মেয়র কামরুজ্জামান মাজেদ। সম্ভাব্যপ্রার্থীরা বিভিন্ন কর্মসূচী নিয়ে প্রচার চালাচ্ছেন। তবে সম্ভাব্যপ্রার্থীরা আসনটিতে নতুন প্রার্থী দেয়ার দাবিতে সোচ্চার রয়েছেন। এ ব্যাপারে মনোনয়নপ্রত্যাশী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হামিদ মাস্টার জানিয়েছেন, তিনি দীর্ঘকাল ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় অবস্থানে রয়েছেন। তিনি এবার এ আসনের মনোনয়নপ্রত্যাশী। অপর মনোনয়নপ্রত্যাশী জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আঃ রহিম পাকন জানান, দীর্ঘ ৩০ বছর ভিয়েনা পরমাণু সংস্থায় চাকরির সুবাদে তিনি রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্প বাস্তবায়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি কয়েক বছর ধরে পরিবার পরিজন ভিয়েনায় রেখে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে মানুষের পাশে কাজ করে যাচ্ছেন। তাকে এ আসনে মনোনয়ন দিলে তিনি সততা ও দক্ষতার সঙ্গে এ দায়িত্ব পালন করতে প্রস্তুত আছেন। বিএনপিতেও মনোনয়ন নিয়ে কোন্দল রয়েছে। এ আসনে চাটমোহর উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি আলহাজ কে এম আনোয়ারুল ইসলাম এবারও দলীয় মনোনয়নের লবিং করছেন। বিমানবাহিনীর সাবেক গ্রুপ ক্যাপ্টেন ফখরুল আযম রনিও মনোনয়ন লাভের তালিকায় রয়েছেন। একই পরিবারের তিন ভাইবোন বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে লবিং করছেন। এরা হলেন, চাটমোহর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান হাসাদুল ইসলাম হিরা, তার বড় ভাই শিল্পপতি জিয়া সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সভাপতি হাসানুর রহমান রাজা, ছোটবোন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক আরিফা সুলতানা রুমা। ফরিদপুর উপজেলা সাবেক চেয়ারম্যান উপজেলা বিএনপির সভাপতি জহুরুল ইসলাম বকুল, আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট মাসুদ খন্দকার।

পাবনা-৪ ॥ ঈশ্বরদী ও আটঘরিয়া উপজেলা নিয়ে এ আসন। এ আসনের ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৬২ হাজার ৫৩৮। এ আসনে আওয়ামী লীগের নবীন প্রবীণ মিলে ৭/৮ সম্ভাব্যপ্রার্থী উঠান বৈঠক, শোভাযাত্রা, কর্মী সমাবেশ, মা সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচী নিয়ে নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছে। কিন্তু বিএনপির সম্ভাব্যপ্রার্থীদের এখনও দেখা মিলছে না। দলীয় কোন্দলসহ উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটি না থাকায় নেতাকর্মীরা অভিভাবকহীন হয়ে হতাশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। ২০০৩ সালে উপজেলা বিএনপির ১০১ সদস্যের কমিটি করা হলেও অরাজনৈতিকদের কমিটিতে স্থান দেয়া নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হওয়ায় এ কমিটির ৯৭ জন পদত্যাগ করে। এ থেকে বিএনপি নেতৃত্বশূন্য হয়ে সাংগঠনিক কর্মকা- থেকে বিরত রয়েছে। অপরদিকে আওয়ামী লীগের এ আসনে বার বার এমপি হলেন বর্তমান ভূমিমন্ত্রী জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শামসুর রহমান শরীফ ডিলু। তিনি এবারও আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী। তবে দলে পরিবারতন্ত্র কায়েম, দুর্নীতিসহ বিভিন্ন কারণে আসনটিতে প্রার্থী বদলের দাবি উঠেছে। আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য যেসব প্রার্থী নিয়মিত গণসংযোগে ব্যস্ত আছেন। তারা হচ্ছেন, সুপ্রীমকোর্টের এ্যাডভোকেট রবিউল আলম বুদু, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটি সদস্য শিল্পপতি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল আলিম, স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় নেতা রকিবুল ইসলাম লিটন, পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সাবেক এমপি পাঞ্জাব আলী বিশ্বাস, ডিজিএফআইয়ের সাবেক ডিজি মেজর জেনারেল অবসরপ্রাপ্ত নজরুল ইসলাম রবি। এ আসনে বিএনপির মতো আওয়ামী লীগেও রয়েছে কোন্দল। বর্তমান এমপি ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন অধিকাংশ নেতাকর্মী। ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মী সমর্থকদের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও কোন্দল প্রকাশ্যে রূপ নেয়। দ্বন্দ্বের জেরে হামলা, ভাংচুর ও মামলার ঘটনা ঘটে। এমনকি ভূমিমন্ত্রীর ছেলে তমাল ভাংচুর ও সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় দু’দফা গ্রেফতার হয়ে জেলহাজতে থাকতে হয়েছে। পাবনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভূমিমন্ত্রীর মেয়ে মাহজাবিন প্রিয়া বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় গোটা জেলায় দলের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বেশকিছু সমালোচনা সামলে উঠতে মন্ত্রীকে বেশবেগ পেতে হচ্ছে। এছাড়া এবার আওয়ামী লীগের বেশকয়েক প্রভাবশালী নেতারা মাঠে থাকায় মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলু। তবে তার ইলেকশন মেকার হিসেবে বেশ খ্যাতি আছে। তিনিই যোগ্যপ্রার্থী বলে মনে করেন তার অনুসারীরা। বিগত নির্বাচনে এই আসনে বিএনপি-জামায়াতের ভোট বেশি থাকলেও গত দুটি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি এই আসনে একক প্রার্থী দিতে না পারায় তাদের ভরাডুবি ঘটেছিল। নবম সংসদ নির্বাচনে এই আসন থেকে বিএনপির সাবেক এমপি ও জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সিরাজুল ইসলাম সরদার ও বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিজয়ী হন। প্রভাবশালী এই দুই নেতা পাবনা-৪ আসন থেকে নির্বাচন করায় আওয়ামী লীগকে বিজয় অর্জনে বেগ পেতে হয়নি। বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেন সাবেক এমপি সিরাজুল ইসলাম সরদার, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, শিল্পপতি আকরাম আলী খান সঞ্জু, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক জাকারিয়া পিন্টু, ঈশ্বরদী উপজেলা বিএনপির সভাপতি শামসুদ্দিন আহমেদ মালিথা, সাবেক পৌর মেয়র মোখলেসুর রহমান বাবলুর নাম শোনা যাচ্ছে। তবে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব মনোনয়ন পেতে এলাকায় ব্যাপক যোগাযোগ করছেন। দলীয় কার্যক্রম করে যাচ্ছেন তার অনুসারীদের নিয়ে। তার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও ছেড়ে দেবে না সিরাজ সরদার গ্রুপ। বর্তমান আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াতের। ঈশ্বরদী ও আটঘরিয়া উপজেলায় জামায়াতের বেশকিছু ভোট রয়েছে যা নির্বাচনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। জামায়াতের পাবনা জেলা আমির অধ্যাপক আবু তালেব ম-ল এ আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। পাবনা সদর আসনের সাবেক সংসদ মাওলানা সুবহান জেলে থাকায় এবং সাঁথিয়া আসনের সাবেক এমপি মাওলানা নিজামীর ফাঁসি হওয়ায় এই দু’ আসনে জামায়াতের তেমন কোন প্রার্থী মাঠে না থাকায় ২০ দলীয় জোট থেকে এই আসনে মনোনয়ন চাইবে জামায়াত। সেই লক্ষ্যে অধ্যাপক আবু তালেব ম-ল নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করে চলেছেন। জাতীয় পার্টির তেমন কোন কার্যক্রম চোখে না পড়লেও ঈশ্বরদী উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হায়দার আলীর নাম শোনা যাচ্ছে।

পাবনা- ৫ ॥ পাবনা পৌরসভা ও দশ ইউনিয়ন নিয়ে এ আসন। আসনটিতে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৩৫ হাজার ৮৮৪। এ আসনটিতে এমপি রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স। তিনি নবম সংসদ নির্বাচনে যুদ্ধাপরাধী মামলায় মুত্যদ-প্রাপ্ত জামায়াতের নায়েবে আমির মাওলানা আব্দুস সুবহানকে বিপুল ভোটে হারিয়ে নির্বাচিত হয়ে তাক লাগিয়ে দেন। দু’বার এমপি নির্বাচিত হয়ে দলের কোন্দল নিরসন করে দলকে সুসংগঠিত করেছেন। শুধু তাই নয় তরুণ প্রজন্মের জনপ্রিয় নেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তিনি গ্রামপর্যায়ে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকা- করায় বেশ সমাদৃত হয়েছেন। তিনি অনেক ছেলে মেয়েদের বিনা টাকায় চাকরি দিয়ে সুধীমহলেও দৃষ্টি কেড়েছেন। এছাড়াও এ আসনে গোলাম ফারুক প্রিন্সের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে তিনি আওয়ামী লীগ বিরোধী ভোটের একটি বড় অংশ তার দিকে টানতে পারেন বলে তার বিজয়ী হওয়াটা সহজ হয় বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। তিনি এবারও আওয়ামী লীগের এ আসনের সম্ভাব্যপ্রার্থী হিসেবে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে একটি মহল তাকে সরাতে কেন্দ্রে ব্যাপক তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। এক্ষেত্রে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন দুদকের সাবেক কমিশনার ইসলামী ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দিন চুপ্পু ও
ব্যবসায়ী নেতা অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বিশ্বাস। তবে মাঠপর্যায়ে তাদের গণসংযোগ এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি। গোলাম ফারুক প্রিন্স এ আসনে প্রতিদিন গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। এ ব্যাপারে তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, দলীয় কর্মকা-ে যাদের কোন অংশগ্রহণই নেই বা জনগণ যাদের চেহারাটাও চেনে না তাদের কাউকে এ আসনে হঠাৎ করে মনোনয়ন দেয়া হলে নির্বাচনের ওপর তা ব্যাপক প্রভাব পড়বে। এমনকি মনোনয়নে ভুল হলে আসনটি হাত ছাড়া হওয়ার সম্ভাবনাও বেশি রয়েছে বলে নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন। এ আসনে মনোনয়ন নিয়ে বিএনপি জামায়াতের মধ্যে টানাপোড়েন রয়েছে। জেলা বিএনপি এককপ্রার্থী হিসেবে বিএনপি চেয়ারপার্সনের একান্ত সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসকে ঘোষণা করে। অন্যদিকে জামায়াত পাবনা ইসলামিয়া মহিলা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ইকবাল হোসাইনকে তাদের প্রার্থী ঘোষণা করে। বিএনপির প্রার্থী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস বিভিন্ন মামলায় জেলে থাকায় যদি প্রার্থী হতে কোন বাধা সৃষ্টি হয় তাহলে জামায়াত নেতা অধ্যক্ষ ইকবাল হোসাইনই ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হবেন বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে। এ আসনে অন্য কোন দলের তেমন প্রভাব না থাকায় আওয়ামী লীগের সঙ্গেই বিএনপি জোটের ভোট লড়াই হবে বলে সাধারণ ভোটাররা জানিয়েছেন।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap