শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ৯ই শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ২৪শে জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৬ হিজরি / এখন সময় বিকাল ৫:৫৯

পাবনায় জোরপূর্বক ক্যানালের মুখ বন্ধ করে দেয়ায় প্রায় ২’শ বিঘা জমির শিমখেত নষ্ট, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক 

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার মাজপাড়া ইউনিয়নের নাদুরিয়া এলাকায় জোরপূর্বক ক্যানালের মুখ বন্ধ করে দিয়ে প্রায় ২শ বিঘা জমির শিমখেত নষ্ট করে দেয়া হয়েছে বলে শহিদুল,তরিকুল ও হজরুর অভিযোগ উঠেছে।

এতে প্রান্তিক১১৭ জন কৃষকদের প্রায় ২ কোটি টাকা ক্ষতি সাধিত হয়েছে বলে ভুক্তভোগী কৃষকেরা জানান।

এবিষয়ে ভুক্তভোগী কৃষককেরা সমাধান চেয়ে উপজেলা প্রশাসন বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করলে আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহারুল ইসলাম মাজপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ দ্রত ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিলে চেয়ারম্যান ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।

সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, মাজপাড়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের নাদুরিয়া গ্রামের প্রভাবশালী শহিদুল, তরিকুল ও হজরু ক্যানালের মুখ জোর পৃ্বক বন্ধ করে দিলে শিমখেতে ব্যাপক জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে সমস্ত শিমগাছ মরা গেছে।

এতে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় নাদুরিয়া এলাকায় প্রায় কয়েকশ প্রান্তিক কৃষকের উঠতি ফসল শিম খেত পানিতে ডুবে মরে পঁচে নষ্ট হয়ে গেছে।

কৃষক মোক্তার, জাবেদ, রমিজা খাতুন, হামেজ উদ্দিন, সদু, আতাউর, হামিদ, রমজান আলী, জাহান, সাইদুল ইসলাম সহ ১১৭ জন স্বাক্ষরিত অভিযোগ জানা গেছে, এলাকায় পানি নিষ্কাশনের জন্য যে ক্যানাল ছিল সেটা প্রভাবশালী শহিদুল, তরিকুল, হজরু ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে গায়ের জোরে বন্ধ করে দেয়।

ফলে জমি গুলো নিচু হওয়ায় ব্যাপক পানি জমে থাকায় এসকল শিমখেতে জলাবদ্ধতা হয়েছে। পানি বের করে দেয়ার কোন ব্যবস্থা না থাকায় শিমগাছ মরে গেছে।

কৃষকদের অভিযোগ, আমরা যারা প্রান্তিক কৃষক বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ গ্রহণ করে জমি লিজ নিয়ে শিমের আবাদ করেছি আমরা অনেক ক্ষতি গ্রস্থ হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিগত প্রবল বর্ষণে মাজপাড়া ইউনিয়নেই নাদুরিয়া ও ভুঁইয়া বাজার এলাকার শিম ক্ষেত পানিতে তলিয়ে যায়। পানি নিষ্কাশনের ক্যানাল বন্ধ করে দেয়ায় তৈরি হয় জলাবদ্ধতা। ফলে কৃষকের চোখের সামনেই তাদের স্বপ্ন শিমগাছ পচে নষ্ট হয়ে যায়।

কয়েকদিন আগের বৃষ্টির পানিতে হাবুডুবু খাওয়ার পর অবশেষে পচে নষ্ট হয়ে গেছে। এক-মুঠো শিমও ঘরে তোলা সম্ভব হয়নি। এতে কৃষকরা চোখে-মুখে অন্ধকার দেখছেন। দ্রুত প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী কৃষকরা।

 

 

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap