শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ২৭শে শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ১১ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১২ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৭:৫১

পশু প্রেম ৪২ ‘বিড়ালের মা’ কাউন্সিলর আলেপা

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর (পাবনা) : পাবনার চাটমোহর পৌর শহরের মাছ বাজারে খুব ভোরে আট পৌড়ে শাড়ি পড়া মধ্যবয়স্কা এক নারীর দেখা মেলে প্রতিদিন। কেনেন মাছ, চাল ও দুধ। ছুটে চলেন বাড়ির পানে। এরপর শুরু হয় রান্না। প্রতিদিন সাড়ে ৩ কেজি চাল ও দুই কেজি টাকি বা সিলভার কাপ মাছ রান্না করতে হয় তাকে। রান্না শেষে শুরু হয় খাওয়া-দাওয়া। খাবারের গন্ধ পেয়ে একে একে ছুটে আসে তার ৪২টি ছেলে-মেয়ে !

এমন পরিবারের কথা শুনে সবাই চমকে উঠলেও দীর্ঘদিন ৪২টি বিড়ালকে নিজের সন্তানের মতো লালন-পালন করে আসছেন পাবনার চাটমোহর পৌরসভার ৪, ৫, ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর আলেপা খাতুন। সকাল হলেই মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খোঁজ নেয়া থেকে শুরু করে নানা কর্মব্য¯Íতায় দিনপার করলেও বিড়ালগুলোই যেন তার সবকিছু। পাড়া প্রতিবেশীসহ এলাকার মানুষ তাকে চেনেন ‘বিড়ালের মা’ আলেপা’।

বর্তমান সমাজে মানুষের মধ্যে যেখানে নিজে ভাল থাকার প্রবণতা বেশি, সেখানে আলেপা খাতুনের পশু প্রেম দেখলে যে কেউ হতবাক হবেন। তবে এখন বিড়ালগুলোর খাবারের জোগান দিতে গিয়ে হিমসিম খেতে হয়। প্রতি মাসে সম্মানী বাবদ যে টাকা পান (১০ হাজার) সেই টাকা দিয়ে পুরো মাস চলে না; করতে হয় ধার-দেনা। হাত পাততে হয় ছেলে মহরমের কাছে।

এ নিয়ে ছেলের সাথে মাঝে-মধ্যেই মনোমালিন্যে হয়। কিন্তু করবেন কি ; মায়ার বাঁধনে আবদ্ধ আলেপা খাতুন। স্বামী মারা যাওয়ার পর অনেক কষ্টে ছেলে মহরমকে মানুষ করেছেন। বাবার বাড়ি থেকে পাওয়া দুই শতক জায়গার ওপর দো-চালা টিনের ঘরে ছেলে ও ছেলে বৌকে নিয়ে বাস করেন কাউন্সিলর আলেপা। অন্যান্য জন প্রতিনিধিরা যখন নিজেদের আঁখের গোছানো নিয়ে ব্য¯Í ঠিক এমন সময় মমতাময়ী আলেপা খাতুন ব্য¯Í তার ৪২টি বিড়াল নিয়ে।
সরেজমিনে আলেপা খাতুনের বাড়িতে গেলে শোনা যায় মধুর ডাক। যেমনটা মায়ের ডাকে সন্তানরা ছুটে আসে, তেমনি আলেপার মধুর ডাকে একের পর এক বিড়ালগুলো ছুটে আসে সাজানো খাবার খেতে। আলেপা খাতুন বলেন, ‘ভাইরে বিড়ালগুলোকে নিয়ে খুব কষ্টে আছি। সম্মানীর সব টাকা ওদের পেছনে ব্যয় হয়। তাতেও পেরে উঠি না। প্রতি মাসে ধার-দেনা করে ওদের (বিড়াল) খাবার কিনতে হয়। আমি খাব কি আর ওদের খাওয়াবো কি ? অবলা প্রাণি, ফেলতেও পারি না। ওরা আমার সন্তানের মতো। ভীষণ মায়া লাগে।’

আলেপা খাতুন আরও বলেন, ‘টাকি বা সিলভার কাপ ছাড়া অন্য কোন মাছ খেতে চায়না বিড়ালগুলো। মারামারি লাগলে তাদের শাসন করতে হয়। যদি বকাঝকা করি তাহলে তাদের খুব মন খারাপ হয়। পরে আদর করলেই আবার ঠিক হয়ে যায়।’ বিড়ালগুলোর বসবাসের জন্য একটি ঘর ও খাবার খরচের জন্য সরকারিভাবে কোন সহযোগিতা পেলে কষ্ট দূর হতো বলে জানালেন কাউন্সিলর আলেপা খাতুন।

চাটমোহর সরকারি কলেজের প্রভাষক মনজুর রশীদ বাবু জানান, আলেপা খাতুনের এমন পশুপ্রেম সবাইকে মুগ্ধ করেছে। বিশেষ করে একজন জনপ্রতিনিধি হয়েও নানা কর্মব্য¯Íতার মাঝে এতগুলো বিড়ালকে লালন-পালন করা সত্যিই কঠিন কাজ। এমন মানুষ সাধারণত চোখে পড়ে না।’সহযোগিতার ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকার অসীম কুমার জানান, এমন পশু প্রেম মানুষ আজকাল আর চোখে পড়ে না। আমি অবশ্যই তার (আলেপা) বাড়িতে যাব এবং খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap