শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ২৭শে শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ১১ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১২ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় বিকাল ৪:৪৫

নতুন দিগন্ত কৃষকের কৃষি সেবা কেন্দ্র

শফিউল আলম দুলাল : কৃষিতে সাফল্য এসেছে অল্প দিন হলো। এ সাফল্য আসার পর সনাতন পদ্ধতিতে চাষাবাদ থেকে বেড়িয়ে এসে আধূনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ শুরু করেছে এ দেশের কৃষক। গত চার দশকে কৃষিতে আমুল পরিবর্তন এসেছে এ দেশে। আর এর কৃতিত্ব কৃষি বিভাগকেই দিয়েছে কৃষক। অগনিত প্রতিকুলতার মাঝেও রোদ-ঝড়-বৃষ্টি মাথায় করে দেশকে খাদ্যে স্বয়ং স্বনির্ভরতায় পৌছে দেবার জন্য কৃষি বিভাগের সাথে জড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ভুমিকা অনস্বীকার্য।

দেশের মাঠ পর্যায়ে কাজ করার এ প্রতিষ্ঠানটির নেই তেমন সুযোগ সুবিধা। সম্প্রসারন দফতরে বাহনের অভাবে কৃষকের কাছে যাবার তেমন সুযোগ-সুবিধা না থাকলেও তারা ঘড়ে বসে না থেকে প্রতিকুলতার মাঝেও কৃষকের দিয়েছেন উৎপাদনের পরামর্শ। সময়োপযোগী ফসলের জাত উদ্ভাবনে কাপূর্ণ ছিল না বিজ্ঞানীদের। গবেষক, বীজ উৎপাদন, সম্প্রসারন ও কৃষকদের চতুর্মুখি প্রচেষ্টায় দেশের জিডিপির সিংহভাগ যোগান দিচ্ছে আমাদের কৃষি।
কৃষিতে এ অভুতপূর্ব সাফল্যের কারনে কৃষকের দোড়গোড়ায় সম্প্রসারন সেবা পৌছে দিতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে ইউনিয়ন কৃষি সেবা কেন্দ্র চালু করছে সরকার। এর ফলে প্রত্যন্ত গ্রামের কৃষকদের কৃষি সংক্রান্ত সেবা নিতে আর উপজেলা সদরে যেতে হবে না। ইউনিয়ন থেকেই কৃষি সম্পর্কিত সব ধরনের সেবা পাবেন তারা। প্রাথমিক পর্যায়ে পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলার পার্শ্বডাঙ্গা ইউনিয়নে সম্প্রতি এ সেবা কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। এর পÿে-বিপÿে বিভিন্ন মতামত জানিয়েছেন কৃষকেরা।
স্থাপিত ত্রিতল বিশিষ্ট সেবা কেন্দ্রটিতে নীচে রয়েছে একটি হলরুম। যেখানে বসে কৃষক-কৃষাণীরা বিভিন্ন ফসলের উপর প্রশিÿন নিতে পারনে। উপরে রয়েছে উপসহকারীদের জন্য তিনটি আবাসিক ভবন ও একটি ষ্টোর রুম। ফসলে আক্রান্ত কোন পোকা-মাকড় বা রোগ বালাইয়ের জন্য কৃষকেরা এখান থেকেই সেবা পাবে। সময়মত বীজ তলা সৃজন ও চারার সঠিক বয়সকালমত রোপনের পরামর্শও পাবেন এখান থেকে। উপসহকারী কর্মকর্তা যেখানেই থাক না কেন-সন্ধ্যায় এখানে এসে পরামর্শ নিতে পারবেন কৃষক।
কৃষি সেবা কেন্দ্র স্থাপনের কয়েকটি উদ্দ্যেশ রয়েছে বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ হাসান রশিদ হোসাইনী বলেন, ইউনিয়ন কৃষি প্রযূক্তির উন্নয়ন, চাহিদা ভিত্তিক ফসল উৎপাদন প্রযূক্তি সম্প্রসারন, কৃষি বিষয়ক পরামর্শ, কৃষক প্রশিÿন, কৃষক সমাবেশ, কৃষি মিউজিয়াম, ফসলের রোগ ও পোকা নিরাময়, মাটি পরীÿার জন্য সংগ্রহ, আপদকালীন চারা উৎপাদন পদ্ধতি এবং কৃষি উপকরন বিতরন কৃষি সেবা কেন্দ্রটি কৃষকের কাছে নব দিগন্তের সূচনা করেছে।
পার্শ্বডাঙ্গা ইউনিয়নের মহেলা গ্রামের কৃষক আ. মান্নান বলেন, সেবা কেন্দ্রটি চালু হবার কারনে কৃষকদের অনেক উপকার হয়েছে। বর্তমান প্রেÿাপটে ছোট খাট কোন অসুবিধার জন্য উপ-সহকারীদের পরামর্শ নিতে উপজেলা সদরে যেতে হবে না। এ জন্য কৃষকদের সময় ও অর্থ সাশ্রয় হবে।
একই ইউনিয়নের অর্জূন গ্রামের কৃষক মো. ময়েন উদ্দিন বললেন অন্য কথা, সব জিনিষেরই ভাল মন্দ দিক রয়েছে। সেবা কেন্দ্রটি নি:সন্দেহে কৃষকদের উপকার হবে। তবে আমাদের দেশের উপসহকারীগন ডিপ্লোমা ডিগ্রী ধারী। অনেক জটিল বিষয় গুলো তারা সমাধান দিতে না পারলে উর্দ্ধতন কর্তৃপÿের কাছ থেকে কৃষকদের জেনে নিতে হয়। সে কারনে পাÿিক বা মাসিক জেলা পর্যায়ে একজন কর্মকর্তা এ কেন্দ্র পরিদর্শন ও আমাদের পরামর্শ দিলে ভাল ফলাফল পাওয়া যায়। পার্শ্বডাঙ্গা ইউনিয়নটি চলনবিল অধ্যূসিত এলাকা। রা¯Íা ঘাটের তেমন ভাল অবস্থা না থাকার কারনে যোগাযোগ বেশ কষ্ট সাধ্য।

অতীতে দেখেছি, প্রযূক্তিগত বিষয় জানতে এবং ফসলের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অবগত হবার জন্য এ এলাকার কৃষক উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সরনাপন্ন হলেও বাহনের অভাবে তারা সময় মত আসতে পারেন নাই। মুঠো ফোনে ব্যবস্থা দিলেও বা¯Íবতা বুঝা বেশ কঠিন। এ সম¯Í কর্মকর্তাদের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং মাঠে বসে কৃষকদের পরামর্শ দেবার কারনে কৃষক ও কৃষি দফতরের যৌথ প্রচেষ্টায়ই দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ন হয়েছে। অথচ প্রশাসনের যেখানে বাহন প্রয়োজন নেই; সেখানেও বাহন দেয়া হয়েছে। কিন্তু এ ব্যাপারে কৃষকদের কল্যানে বৈরী নীতি আমরা লÿ্য করেছি। ফলে অধিকতর উৎপাদন থেকে আমরা এখনো পিছিয়ে আছি।
এ ব্যাপরে পাবনা কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের উপ পরিচালক কৃষিবিদ মো. আজাহার আলী বলেন, সম্প্রসারন বিভাগে জেলা পর্যায়ে কৃষি প্রশিÿন অফিসার ও অতিরিক্ত উপ পরিচালক হিসেবে চারজন কর্মকর্তার কর্মরত রয়েছেন। পাবনাতে শুধু উপ-পরিচালকের একটি বাহন রয়েছে। সেটাও পুরাতন। প্রায় সময়ই তা অকেজো হয়ে পড়ে থাকে। ফলে মাঠ পরিদর্শন ও কৃষকদের জরুরী পরামর্শ প্রদান করা দূরুহ হয়ে পড়ে। দূর্গত উপজেলা গুলোতে জটিল সমস্যা দেখা দিলে অফিসারগনদের পাবলিক বাহনে পৌছাতে বেশ দেরী হয়ে থাকে। তখন কৃষকদের প্রকৃত সেবা প্রদানে অসুবিধা দেখা দেয়। তারপরেও কৃষি ও কৃষকের স্বার্থে যথাসাধ্য কৃষকদের কোন সমস্যায় তাদের কাছে গিয়ে যথাযথ পরামর্শ দিয়ে সমস্যার সমাধান করা হয়ে থাকে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap