শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ২৭শে শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ১১ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১২ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৯:৩২

দ্বিতীয় দিনের মতো শ্রমিক ধর্মঘট চলছে, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

স্বাধীন খবর ডেস্ক : সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে সারাদেশে দ্বিতীয় দিনের মতো আজও চলছে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘট। ধর্মঘটের কারণে দেশের বাস টার্মিনালগুলো থেকে কোন বাস ছেড়ে যায়নি। এতে বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে বের হওয়া যাত্রীরা পড়েন চরম দুর্ভোগে।

প্রথম দিনের মতো আজ সকালেও রাজধানীর অফিসগামী হাজার হাজার মানুষ হেঁটে চলছেন। বেশি ভাড়া দিয়ে রিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও রাইডশেয়ারিং অ্যাপ পাঠাও-উবারের মোটরসাইকেলে করে গন্তব্যস্থলে যাচ্ছেন অনেকে।

রাজধানী ঢাকার গাবতলী, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, শাহবাগ, গুলিস্তানসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় মানুষকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। রাজধানীর বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে হাজারো মানুষের জটলা সকাল থেকে শুরু হয়।

সরকারি পরিবহন সংস্থা বিআরটিসির বাসও গতকালের চেয়ে আজকে বেশি ছিল। রাজধানীর রাস্তায় ব্যক্তিগত গাড়ি ছাড়া কোনো গণপরিবহন চলতে দেখা যায়নি। এতে দিনের শুরুতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন অফিসগামী মানুষ ও স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরা। বিশেষ করে নারী ও বৃদ্ধরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

সপ্তাহিক ছুটি শেষে কর্মদিবসের প্রথম দিনে রোববার সকাল থেকে সারা দেশে শুরু হওয়া এ পরিবহন ধর্মঘটকে এরই মধ্যে ‘নৈরাজ্য’ উল্লেখ করে সমালোচনা শুরু হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

রোববার সড়কে শ্রমিক নেতাদের অবস্থান নিতে দেখা যায়। এদিন মোটরসাইকেলের চালক, ব্যক্তিগত গাড়ির চালক কিংবা আরোহীদের মুখেও পোড়া মবিল মেখে দিয়ে ফেরত পাঠিয়ে দেয় ধর্মঘটের সমর্থনে রাস্তায় নামা শ্রমিকরা। যা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনা

এরআগে, গতকালও পরিবহন ধর্মঘটে দুর্ভোগ পোহান সাধারণ মানুষ। দূরপাল্লার গাড়ি চলাচলের পাশাপাশি বাধা দেয়া হয় ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচলেও। নাজেহাল করা হয় ব্যক্তিগত গাড়ি চালকদের। চলতে দেয়নি স্কুল কলেজের বাসও।

শনিবার বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে ধর্মঘটের সিদ্ধান্তের কথা গণমাধ্যমকে জানানো হয়। গত ১৯ সেপ্টেম্বর সংসদে পাস হয় সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮। এতে দুর্ঘটনা কবলিত যানবাহনের চালক জামিন পাবেন না বলে উল্লেখ করা হয়। একই সাথে চালক অপরাধী হিসেবে প্রমাণিত হলে ৩০২ ধারায় ফাঁসির বিধান রাখা হয়।

মূলত এরপর থেকেই আইনটি সংশোধনের দাবি জানিয়ে আসছে যানবাহনের শ্রমিকরা। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার ভোর ৬টা থেকে টানা ৪৮ ঘণ্টা ধর্মঘট পালনের ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap