শিরোনামঃ

আজ সোমবার / ২০শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ৫ই ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১০ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৪:৪৮

জৈব সারের দিকে ঝুকছে পাবনার কৃষক

শফিউল আলম দুলাল, পাবনা : আমাদের দেশে একদিন গোবরের সার দিয়ে চাষাবাদ করতো কৃষক। খাদ্যের চাহিদার কারনে জমির উর্বরতা বৃদ্ধিতে ব্যবহার কর হয় রাসায়নিক সার। প্রথম দিকে এ রাসায়নিক সার ব্যবহারে অনিহা ছিল কৃষকদের। কৃষি বিভাগ সে সময় কৃষকদের রাসায়নিক সার ব্যবহারের পরামর্শ দিলে তারা ভর্সনাৎ করতো। কৃষকেরা মনে করতো রাসায়নিক সার ব্যবহারের মাধ্যমে খাদ্য উৎপাদন করলে তাদের ছেলে মেয়েদের বিষ খাওয়ানো হবে।

প্রয়াত কৃষিবিদ কাজী আতাউল হক বলেছিলেন, রাসায়নিক সারের প্রতি কৃষকদের আকৃষ্ট করার জন্য রাতের আধারে কৃষি াবভাগ কৃষকদের আবাদকৃত ধানের এক পশের কিছু জায়গায় ইউরিয়া সার ছিটিয়ে দিয়ে আসতো। সপ্তাহ খানেক পড়ে ওই কৃষকের কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করা হতো একই জমির ধান এক পাশে ভাল সবুজ ও হৃষ্ট-পুষ্ঠ হয়েছে-বাকী জমির ধান দূর্বল কেন? কৃষক সদোত্তর দিতে না পারায় তারা বলতো জমির উর্বরতা বৃদ্ধির জন্য এখানে কিছু ইউরিয়া সার ছিটিয়ে দেয়া হয়েছিল। তাতেই ধানের এ সুন্দর চেহারা হয়েছে। এ ধানে ফলনও বেশী হবে।

সে থেকেই ধীরে ধীরে কৃষকের মাঠে রাসায়নিক সার প্রয়োগ শুরু হতে থাকে। কিন্তু মাটির জৈব শক্তির ÿমতা বিবেচনা না করে ইচ্ছা মত রাসায়নিক সার ব্যবহার করায় সাময়িক সুফল পেলেও দীর্ঘ মেয়াদি সেটা মাটি, পরিবেশ ও জীববৈচিত্রের জন্য কুফল বয়ে আনতে থাকে। সে দিক বিবেচনা করে যে ফসল গুলো জৈব সার ব্যবহার করে আবাদ করা সম্ভব; সে ফসলগুলো বর্তমানে জৈব সার ব্যবহারের মাধ্যমে আবাদ করার পরামর্শ দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। আর এ জন্য মাঠ পর্যায়ে চলছে প্রচার-প্রচারনা। হাতে নেয়া হয়েছে প্রকল্পও।

এক সময় কেচোকে বলা হতো কৃষকের বন্ধু ও প্রাকৃতিক লাঙ্গল। আবাদ করার পর মাঠে মাটি ভেদ করে কেচো মাটির ভেতরে চলে যেত। যাবার সময় যে মল ত্যাগ করতে সেটা জৈব সারের কাজ করতো। এ ছাড়াও কেচোর গর্ত দিয়ে মাটির নীচে আলো বাতাস প্রবেশ করে ফসল উৎপাদনে সহায়ক ভুমিকা পালন করতো। কিস্তু রাসায়নিক সার ব্যবহারের ফলে মাঠ থেকে কেচো নিশ্চিহ্ণ প্রায়। বর্তমানে কৃষি বিভাগের সহায়তায় প্রকল্পের মাধ্যমে অর্থ ব্যয় করে সেই কেচো কম্পোষ্টের মাধ্যমেই তৈরী করছে জৈব সার। প্রানীজ ও উদ্ভিদ বিভিন্ন ধরনের জৈব বস্তুর সমন্বয়ে বিশেষ প্রজাতীর কেচোর সাহায্যে কম সময়ে জমিতে প্রয়োগ উপযোগী উন্নতমানের জৈব সার রূপান্তর করার পদ্ধতিকে বলা হয় ভার্মি বা কেচো কম্পোষ্ট।

পাবনা কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. আজাহার আলী জানান, সারা বিশ্বে ৪ হাজার ২০০ শতাধিকের বেশী প্রজাতির কেচো রয়েছে। তার ভেতর বাংলাদেশে বিভিন্ন অঞ্চলে পাঁচ শতাধিক প্রজাতির কেচো দেখতে পাওয়া যায়। এর মধ্যে বৈজ্ঞানিক ভাবে আইসেনিয়া ফিডিটা, ইউড্রিলাস ইউজেনি, পেরিওনিক্স ও ফেরেটিমা নামক চার প্রজাতির কেচো ব্যবহার করে জৈব সার তৈরী করা হয়ে থাকে। গবেষকেরা মনে করে উন্নতমানের ভার্মি কম্পোষ্ট তৈরী করতে ইউড্রিলাস ইউজেনি ও আসেনিয়া ফিডিটা প্রজাতির কেচো ব্যবহারে ভাল ফল পাওয়া যায়।

জৈব সার তৈরী ও উদ্ভুদ্ধ করার জন্য পাবনার সুজানগর থানার দুলাই দÿিন পাড়ায় সম্প্রতি এক কৃষক সমাবেশের আয়োজন করে কৃষি বিভাগ। ন্যাশনাল এগ্রিকালচার টেনোলোজি প্রোগ্রাম বা এনএটিপি দ্বিতীয় পর্যায়ের আওতায় ওই সমাবেশে ভার্মি কম্পোষ্ট বা কেচো কম্পোষ্টের মাধ্যমে জৈব সার উৎপাদনের উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়। এ সমাবেশে পাবনা কৃষি সম্প্রসারনের উপ পরিচালক কৃষিবিদ মো. আজাহার আলী বলেন, বৈরী আবহাওয়া ও বিরূপ জলবায়ূর প্রভাবে আমাদের কৃষি উৎপাদনকে টিকিয়ে রাখতে হলে রাসায়নিক সারের ব্যবহার পরিহার করা সম্ভব নয়।

তবে অপরিকল্পিত সার ব্যবহার থেকে কৃষকদের সরে আসতে হবে। ধান-পাট-গম ছাড়া যে ফসল জৈব সার দিয়ে উৎপাদন করা সম্ভব, সে ফসল জৈব সারের মাধ্যমে উৎপাদন করে মাটির উর্বরতা শক্তি টিকিয়ে রাখতে হবে। পাবনা জেলাতে বর্তমানে ব্যাপক হারে সবজির আবাদ হচ্ছে। এ সবজি আবাদ জৈব সার দিয়ে করা সম্ভব। তাতে ফলনের কোন তারতম্য হবে না। জমির উর্বরা শক্তিও বৃদ্ধি পাবে। শীতকালীন সবজি, ডাল জাতীয় ফসল ও রবি মৌসুমে আবাদকৃত অন্যান্য ফসলের জন্য জৈব সার অত্যান্ত কার্যকরী বলে জানান এ কৃষিবিদ।

ভার্মি বা কেচো কম্পোষ্টের মাধ্যমে জৈব সার তৈরী কারক চাষী শাহীন জানান, এ সার তৈরী করতে প্রথমে একটি ছোট চেম্বার তৈরী করতে হয়। এ চেম্বারের মধ্যে গোবর, মাটি, তরিতরকারীর ফেলে দেয়া অংশ, ফলমূলের খোসা, পশুপাখির নাড়িভুরি, হাস-মুরগির বিষ্ঠা, খড়কুটা ও আবর্জনা দিয়ে তার ভেতরে লাল প্রজাতির কেচো দিতে হয়। গোবর, মাটি ও আবর্জনা খেয়ে ওই কেচো যে মল ত্যাগ করে সেটা চেম্বারের অন্যান্য দ্রব্যের সাথে মিশে জৈব সার তৈরী হয়ে থাকে। সবজি জাতীয় ফসলে এ সার ব্যবহার করে ফল পাওয়া গেছে। সবজি উৎপাদনে ফলন ভাল হয়েছে। প্রতি মাসে প্রতিটি চেম্বার থেকে ১৫ থেকে ২০ কেজি জৈব সার উৎপন্ন করা হয়ে থাকে।

আটঘড়িয়া উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ প্রশান্ত কুমার সরকার জানান, রাসায়নিক সার ব্যবহারে নির্দিষ্ট মাত্রা রয়েছে। রয়েছে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও। কিন্তু জৈব সার প্রযোগে কোন নির্দিষ্ট মাত্রা নেই। পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও নেই। এ সার বেশী দিলে জমির কোন ÿতি হবে না। বরং উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধি পাবে। ভুগর্ভে পানির ধারন ÿমতা বাড়ে, সেচের পানির ব্যবহার হ্রাস পেয়ে থাকে। এ ছাড়াও রাসায়নিক সারের বদলে জৈব সার ব্যবহার করলে ফসলে রোগ, পোকামাকরের উপদ্রব কম হয়। অঙ্কুরোদগম ÿমতা বৃদ্ধি পেয়ে ফলন বেশী হয়। রাসায়নিক সারের তুলনায় খরচ অত্যান্ত কম। জৈব সার রাসায়নিক সারের সম্পূরক হিসেবে কাজ করে থাকেবলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে পাবনা কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের প্রশিÿন কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. লোকমান হোসেন জানান, পাবনা জেলার নয়টি উপজেলাতে এনএটিপি ফেজ-২ প্রকল্পের আওতায় ১ হাজার ১২৯টি ভার্মি কম্পোষ্ট নির্মান করা হয়েছে। এ কম্পোষ্ট থেকে উৎপাদিত জৈব সার ব্যবহারের মাধ্যমে শবজি, ডাল ও রবি মৌসুমে আবাদকৃত বিভিন্ন ফসল আবাদ করে কৃষকেরা লাভবান হচ্ছে। সে সাথে জমির জৈব শক্তি অÿুন্ন থাকছে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap