শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ৯ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৪শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ২৯শে রবিউস সানি ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১১:১১

চাটমোহরে ইসলামী জালসায় হেলিকপ্টারে আসা মাওলানা জনরোষের শিকার

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনার চাটমোহর উপজেলার গুয়াখাড়া হাফিজিয়া মাদরাসায় বাৎসরিক ইসলামী জালসার প্রধান বক্তা মাওলানা হাফিজুর রহমানকে (কুয়াকাটা) জনরোষের শিকার হয়েছেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে পৌর শহরের বালুচর মাঠে এ ঘটনা ঘটে। হেলিকপ্টারে চড়ে জালসা করতে এসে চুক্তি অনুযায়ী ওয়াজ না করায় আয়োজক ও মুসলøীদের জনরোষের শিকার হতে হয়েছে প্রধান বক্তাকে।
পরিস্থিতি বেগতিক দেখে তাকে ছাড়াই হেলিকপ্টার ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে চলে যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে হাফিজুর রহমান সিদ্দিককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

জালসা কমিটি ও স্থানীয়রা জানান, উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের ছোট গুড়াখাড়া-চিরইল-সাড়োরা-ইঁচাখালী সম্মিলিত হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিম খানায় ইসলামী জালসার দিন ছিল বৃহস্পতিবার। জালসার প্রধান বক্তা মওলানা মো. হাফিজুর রহমান সিদ্দিক (কুয়াকাটা) কে প্রায় এক বছর আগে ৫০ হাজার টাকা বায়না দেন। চুক্তি ছিল জালসার দিন বাদ জোহর থেকে বাদ আসর পর্যন্ত ওয়াজ করবেন। সেই সাথে হেলিকপ্টারে যাওয়ার জন্য ভাড়া বাবদ ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা দিতে হবে। চুক্তি অনুযায়ী জালসা কমিটি হেলিকপ্টারের ভাড়া পরিশোধ করেন।

দুপুর সোয়া ২টার দিকে ঢাকা থেকে একটি হেলিকপ্টারে চড়ে পৌর শহরের বালুচর মাঠে নামেন প্রধান বক্তা হাফিজুর রহমান সিদ্দিক। এর আগে সকাল থেকেই এই হেলিকপ্টার হুজুর প্রধান বক্তার বক্তব্য শুনতে দূর দূরান্ত থেকে জালসা স্থলে হাজির হতে থাকে। এরপর আড়াইটার সময় জালসা স্থলে গিয়ে ওয়াজ শুরু করেন। আধা ঘণ্টা মোনাজাতসহ ওয়াজ করে তড়িঘড়ি করে বালুচর মাঠে এসে হেলিকপ্টারে চড়ার সময় জালসা কমিটি ও মুসলøীরা বাধা দিলে সেখানে উত্তেজনা শুরু হয়।

ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং হাফিজুর রহমান সিদ্দিককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এরপর সন্ধ্যায় রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী আন্তঃনগর পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনে তাকে তুলে দেয় থানা পুলিশ।

জালসা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মো. নজরুল ইসলাম বলেন, প্রতি বছর চার গ্রামের মানুষ মিলে বড় জালসার আয়োজন করে থাকি। চুক্তি অনুযায়ী তিনি (হাফিজুর রহমান সিদ্দিক) ওয়াজ না করে দ্রæত সময়ে চলে যাওয়ার সময় স্থানীয় মুসলøীরা বাধা দিলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

এ ব্যাপারে চাটমোহর থানার অফিসার ইনচার্জ সেখ মো. নাসীর উদ্দিন বলেন, ভুল বোঝাবুঝি থেকে জনরোষের সৃষ্টি হয়েছিল। পরে মাওলানা সাহেবকে উদ্ধার করে চাটমোহর রেলস্টেশন থেকে ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনে টিকিট কেটে তুলে দেওয়া হয়েছে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap