শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১১:২৬

চাটমোহরে অরক্ষিত শহীদ মিনারে মাদকসেবীদের আখড়া

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি : ৫২’ এর সালে ভাষা আন্দোলনে নিহতদের স্বরণে নির্মিত পাবনার চাটমোহরে শহীদ মিনার গুলো সারা বছর অযতœ-অবহেলা ও অরক্ষিত অবস্থায় থাকে। সন্ধার নামার সাথে শুরু হয় মাদকসেবীদের আখড়া। অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণ হলেও সংস্কার হয়নি। শিÿা প্রতিষ্ঠানের কতৃপক্ষ ফেলে রেখেছেন।

সরকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণ বাধ্যকর্তা সৃষ্টি করলেও অনেকে তা বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছেন। তারা শহীদ মিনার নির্মাণ কাজ অসমাপ্ত রেখেছেন। আবার যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মিত হয়েছে, বেশির ভাগই অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে। এ সকল শহীদ মিনারের বেদিতে সন্ধার পর থেকে শুরু হয় মাদকসেবীদের আড্ডা।

বাংলা ভাষার মর্যাদা বৃদ্ধি, ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে বর্তমান প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রতিটি শিা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার স্থাপন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

সূত্র মতে, উপজেলায় মাধ্যমিক স্কুল ৪২টি, মাদ্রাসা ৩৯টি, ৭টি কারিগরি ও ৭টি কলেজ, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ১৫৬টি শিা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হলেও বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানে মিনার গুলো বেহাল অবস্থায় রয়েছে।
আর দিনের বেলায় অনেকেই জুতা-সেন্ডেল পরেই মিনারের বেদিতে ঘোরাফেরা করে। চলে নানা ধরণের অপকর্ম। এদিকে ভাষা শহীদের সম্মানার্থে শহীদ মিনারের মর্যাদা ও পবিত্রতা রÿায় জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন সচেতন মহল।

অভিযোগ রয়েছে, শহীদ মিনারের মূল বেদিতে সেন্ডেল পরে বসে ধুমপান করে এক শ্রেণীর তরুনরা। কেউ কেউ শহীদ মিনারের পেছনে বেদিতে দাঁড়িয়ে প্রসাব করে। এছাড়া প্রতিদিন সন্ধার পর মাদক সেবীদের আড্ডা বসে। সরজমিনে দেখা যায়, শহীদ মিনারের মুল বেদিতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে সিগারেটের প্যাকেট ও অসংখ্য উচ্ছিষ্ট অংশ,

ময়লা আর্বজনায় ভরে আছে মিনারের বেদি, শহীদ মিনারের পেছনটা অস্থায়ী প্রসাবখানা।
ভাষা সৈনিকরা বলছেন, শহীদ মিনার গুলো যেভাবে মর্যাদা হানি হচ্ছে, এর চেয়ে বড় দুংখ আর কিছু হতে পারে না। যারা শহীদ হয়েছেন, তাদের স্মরণেই এ শহীদ মিনার। তিনি আরোও বলেন, শহীদ মিনারের মর্যাদা রÿা না করা হয়, তাহলে স্বাধীনতা যুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ ও ভাষা আন্দোলনের শহীদদের অপমান করা হয়।
চাটমোহর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, সে সকল শহীদ মিনার অহেলিত ও অরক্ষিত ভাবে রাখা হয়েছে। সেগুলো কতৃপক্ষকে অবহিত করা হবে।
চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার বলেন, শহীদ মিনার নির্মাণকাজ অসমাপ্ত রয়েছে এবং যে সকল প্রতিষ্ঠান গুলোতে শহীদ মিনার অবহেলিত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap