শিরোনামঃ

আজ রবিবার / ১৯শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ৪ঠা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৯ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ২:২৮

চলনবিলে পলো দিয়ে মাছ ধরার বাউত উৎসব চলছে

জাহাঙ্গীর আলম : পাবনার চাটমোহরসহ চলনবিলের অধ্যুষিত উপজেলাগুলোর বিল ও নদীতে শুরু হয়েছে পলো দিয়ে মাছ ধরার বাউত উৎসব। হাজারো মানুষ মেতে উঠেছে মাছ ধরার এই বাউত উৎসবে। চাটমোহর উপজেলার খলিশাগাড়ি বিলে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত পলো বাওয়া বাউত উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। প্রতি বছর এই সময় পলো দিয়ে বিলে উৎসব মুখর পরিবেশে মাছ ধরা হয় বলে একে স্থানীয় ভাষায় ‘বাউত উৎসব’ বলা হয়। পাবনার চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, আটঘরিয়া, পাবনা সদর, নাটোরের বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর এবং সিরাজগঞ্জের তাড়াশ এলাকার হাজার হাজার মানুষ বাউত উৎসবে যোগ দেয়।
এ উৎসবে যোগ দিতে আসা বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল গ্রামের আব্দুল আলী, আরশেদ আলী, চাটমোহর উপজেলার হরিপুর গ্রামের আঃ ছাত্তার, ধানকুনিয়া গ্রামের মোতালেব হোসেন, জালেশ্বর গ্রামের ওফাজ আলী, সাদ্দাম প্রামানিক, রামচন্দ্রপুর গ্রামের রেজাউল করিম ধনিসহ অন্যান্য বাউত জানায়, হাজার হাজার মানুষ এক সঙ্গে মাছ ধরার আনন্দই আলাদা। মাছ সবাই পায় না। একজন পেলে আনন্দ ভাগাভাগি করে সবাই। কে মাছ পেলো আর কে পেলো না, তা নিয়ে দুঃখ নেই কারও।


প্রতি বছর আনন্দের জন্য, মাছ ধরার জন্য এই সময়ের অপোয় থাকেন তারা। শুধু খলিশাগাড়ি বিলেই নয়। বাউতের দল নেমে পড়ে চাটমোহরের গুমানী নদীতেও। পলো ও জাল দিয়ে মাছ ধরা হয়। অনেকে মাছ পেয়ে আনিন্দিত আবার মাছ না পেয়েও অনেকে উৎসবে আসতে পেরেই খুশী।
তারা আরো জানায়, হাত পলো, পাও পলো, নেট পলো ছাড়াও খেওয়া জাল, ঠেলা জাল, কারেন্ট জাল, ডোরা জাল, হাত খড়াসহ মাছ ধরার বিভিন্ন উপকরণ নিয়ে মাছ ধরতে দেখা যায় সৌখিন মৎস শিকারীদের। কৃষক, জেলে, ছাত্র, শিক, ব্যবসায়ী, চিকিৎসকসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের মিলন মেলায় পরিণত হয় বিল গুলোতে। মাছ পাওয়া না পাওয়া বড় কথা নয় এ উৎসবে অংশ গ্রহণের আনন্দ বলে জানান সৌখিন মৎস শিকারীরা।
মজনুর রহমান বাবু, এনামুল হকসহ কয়েকজন বাউত জানান, প্রায় প্রতি বছরই এ বিলে মাছ শিকারে আসেন তারা। অন্য বছরের তুলনায় এবার মাছ কম পাওয়া যাচ্ছে। খলিশা গাড়ি বিলে পলো দিয়ে মাছ শিকারের আনন্দটাই অন্যরকম। আমরা মাছ শিকারের আনন্দ উপভোগের জন্য এ সময় টার অপোয় থাকি।
এ ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান জানান, বাউত উৎসব গ্রামবাংলার ঐতিহ্য। দেশের অন্যান্য এলাকায় এ উৎসব বিলুপ্তির পথে। তবে এ এলাকায় ঐতিহ্যটি এখনও টিকে আছে। বড় বিল, ডেঙ্গার বিল, খলিশাগাড়ি বিল, রহুল বিল, ডিকশীবিলসহ অন্যান্য বিলে বাউতরা মাছ ধরছে। তবে বাউত উৎসবের ফলে জীববৈচিত্র নষ্ট হচ্ছে। দেশি প্রজাতির ছোট মাছ, শেওলা জাতীয় প্রাকৃতিক মৎস্য খাদ্য, পানির উপকারী অণুজীব এতে নষ্ট হয়ে যায়। এ ব্যাপারে সতর্কতা দরকার।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap