শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১১:০৮

চলনবিলে ঘরে ঘরে চলছে বাংলার চিরায়িত নবান্ন উৎসব

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর (পাবনা) : অগ্রহায়ন মাস শুরু হয়েছে। বাংলা পুঞ্জিকা মতে গ্রাম গঞ্জের বাংলার চিরায়িত ঐতিহ্যবাহী নবান্ন উৎসব। এ উৎসবকে সামনে রেখে পাবনার চাটমোহরসহ চলনবিলের প্রতিটি ঘরে ঘরে পালিত হচ্ছে নবান্ন। গৃহিনীরা বাড়ি ঘর লেপন, আলপনা আকাঁ ও পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করতে ব্য¯Í সময় পার করছে। বাড়িতে বাড়িতে ভাপাপিঠে, কুসলি পিঠে, পায়েস, মুড়ি, চিড়া তৈরির করার ধুম পরেছে। নতুন ধানের মৌ মৌ সুগন্ধে বাড়ির আঙিনা ভরে উঠেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চলনবিলের চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর, গুরুদাসপুর, তাড়াশ, রায়গঞ্জ, বড়াইগ্রাম, উলøাপাড়াসহ আশে-পাশের উপজেলাগুলোতে পুরোদমে আমন ধান কাটা শুরু হয়েছে। চলনবিলের কৃষকরা ধান কেটে ঘরে তোলা কৃষানীরা নবান্ন উৎস পালন করতে ব্য¯Í সময় পার করছে। গ্রামের মেয়েরা ঢেঁকিতে নতুন ধানের চাল গুড়া করতে, মুড়ি ভাজতে এবং ভোরে উঠে শীতের ভাপা পিঠা তৈরি করার সকল প্রস্তুতি চলছে।

ভোর রাতে গৃহিনীরা উঠে শীতের ভাপাপিঠা তৈরি করে বাড়ির সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আনন্দ উৎসব করে খাওয়া হবে। শীতের ভাপা পিঠা খাওয়ার জন্য খেজুরের পাটারী গুড় সংগ্রহ ইতি মধ্যেই করা হয়েছে। বর্তমান বাজারে প্রতি কেজি খেজুরের পাটারী গুড় ৯০ টাকা থেকে ১১০ টাকায় বিক্রয় হচ্ছে। নবান্নকে সামনে রেখে খেজুরের তৈরি পাটারী গুড়ের বাজার বেশি বলে নবান্ন উৎসব কারীরা জানিয়েছেন। বাড়িতে বাড়িতে জামাইÑঝি নায়েরে আনা হয়েছে। পাড়ায় পাড়ায় ছেলে মেয়েরা ভাপাপিঠে খাওয়ার জন্য আনন্দ উৎসব প্রকাশ করছে।

নবান্ন উৎসবটি হিন্দু স¤প্রদায়ের মধ্যে বেশি প্রচলন থাকলেও তা বর্তমানে সকল ধর্মের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। সালেহা বেগম জানান, প্রতি বছর অগ্রহায়ন মাসের প্রথম দিনেই ভাপাপিঠা খাওয়ার ধুম পরে যায়। শীতের সময় ভাপাপিঠা খেজুরের পাটারী গুড় দিয়ে খেতে খুব মজা। তাই সকালে ঘুম থেকে উঠেই চাল গুড়া করতে বসেছি। ভোরে ফজরের নামাজ পড়ার আগেই ভাপাপিঠে তৈরি করা হবে এবং নামাজ পড়ার পর বাড়ির ছোটÑবড় সবাইকে নিয়ে এক সঙ্গে পিঠে খাওয়া হবে।

আমেনা খাতুন বলেন, আগে বাড়ি বাড়ি ঢেঁকি ছিল চাল গুড়া করতে সময় লাগে নাই। কিন্তু এখন আর আগের মত ঢেঁকি পাওয়া যায় না। মিলে চাল গুড়া করলে তা দিয়ে ভাপাপিঠে হয় না। বাধ্য হয়ে অন্যের বাড়িতে এসে চাল গুড়া করে নিয়ে যাচ্ছি। রমেছা খাতুন জানান, বাড়িতে নতুন ধান এসেছে। জামাই ঝি নিয়ে আনন্দের সাথে পিঠে খাওয়ার রেয়াজটি পূর্ব পুরুষ থেকেই চলে আসছে।

চলনবিলের হান্ডিয়াল গ্রামের খালেদা বেগম বলেন, নশংন ধান ঘরে তুলে তা মাড়াই শেষে সিন্ধ করার পর মেশিনে ভাঙ্গিয়ে চাল দিয়ে খেজুরী রান্না করে তা বাড়ি বাড়ি বিলির মাধ্যমে নবান্ন উৎস পালন করা হয়। রাতে গ্রামের মধ্যে নবান্নকে কেন্দ্র করে নেচে গেয়ে ধর্মীয় উৎসব পালন করা হয়।
টপি রানী সাহা জানান, নতুন ধানকে বরণ করতে নবান্ন উৎসব পালন করা হয়। কি জন্য নবান্ন উৎসব পালন করেন জানতে চাইলে তিনি জানান, পূর্ব পুরুষ থেকেই চলে আসছে বলেই আমরা তা পালন করি। নতুন ধানের চাল দিয়ে পিঠ, পায়েস, ীরসহ হরেক রকমের খাবার তৈরি করা হয়।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap