শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ৯ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৪শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ২৯শে রবিউস সানি ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১১:১০

চলনবিলে এখন মাছশুন্য, দেশী মাছের তীব্র সংকট

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর (পাবনা) : মৎস্যভান্ডার পাবনার চাটমোহরসহ চলনবিলে মাছের এখন দেশী মাছের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। ভরা বর্ষা মৌসুমেও দেখা মিলছে না ছোট-বড় দেশী মাছের। নির্বিচার পোনা নিধন আর দখল দূষণে বিচরণত্রে হ্রাস হওয়ার কারণেই মাছশূন্য হয়ে পড়ছে উত্তরবঙ্গের সর্ববৃহৎ মৎসভান্ডার চলনবিল।
এতে কর্মহীন হয়ে পড়েছে বিলের উপর নির্ভরশীল সহস্্রাধিক জেলে পরিবার। মৎস সম্পদ রায় অভয়াশ্রম গড়ে তোলা ও প্রশাসনিক নজরদারী বাড়ানোর দাবি করেছেন পরিবেশবিদরা।
সুস্বাদু দেশীয় মাছের প্রাচুর্যতার কারণে এক সময় চলনবিলের সুখ্যাতি ছিল দেশ জুড়ে। এক সময় চলনবিলের মাছের অপোয় থেকেছে কলকাতার বাঙালীরাও। অবিভক্ত বাংলায় চলনবিল থেকে ট্রেন বোঝাই করে মাছ যেত কলকাতায়। অথচ সেই চলনবিল এখন মাছশূন্য। এ যেন এক অভাবনীয় বা¯Íবতা।
মৎস বিভাগ সূত্রে জানা যায়, গত ৩০ বছরে চলনবিলের মাছের উৎপাদন কমেছে ৬৩ শতাংশ। গাঙচিংড়ি, খরশলা, লেটুকি, বাঁশপাতা, ফাতাশি, নান্দিনা, বউ, ভাঙ্গন, ঘোড়া, মহাশোল, তিলাশোল, রেনুয়াসহ অসংখ্য মাছের নাম উঠেছে বিলুপ্তির খাতায়। বিলপ্তির পথে দেশী কৈ, মাগুর, ভেদাসহ বিভিন্ন প্রজাতি। ভরা মৌসুমে মিলছে না মাছ। চরম দুর্দশায় দিন কাটছে বংশ পরম্পরায় মাছ ধরে আসা জেলে পরিবারগুলোর।

সংশিøষ্টরা বলছেন, গত শতকের আশির দশকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অপরিকল্পিত ¯øুইচ গেট ও বাঁধে, শুরু হয় চলনবিলের মরুকরণ। কমে যায় গভীরতা। পলি পড়ে ভরাট হয় জলাভূমি। এতে কমে যায় মাছের বিচরণত্রে, স্বাভাবিক প্রবাহ না থাকায় বাধাগ্রস্থ হয় প্রজনন। কৃষি জমিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ব্যবহারের প্রতিক্রিয়ায় অ¯িÍত্ব হারায় দেশী মাছের বিভিন্ন প্রজাতি।

শুষ্ক মৌসুমে প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় অবৈধ সোঁতি, কারেন্ট ও বাদাই জাল দিয়ে চলে ডিমওয়ালা মাছ নিধন। প্রাকৃতিক জলাধার সেচে মাছ ধরা নিষিদ্ধ হলেও তা মানছে না কেউ। মানুষের নির্মম লালসায় মারা পড়ছে বিভিন্ন প্রজাতির মা মাছ। এ প্রসঙ্গে কথা হল পাবনার চাটমোহর উপজেলার চিনাভাতকুর হালদার পাড়া গ্রামের কয়েকটি মৎসজীবী পরিবারের সঙ্গে। মাছের অভাবে প্রায় কর্মহীন হয়ে পড়া এ পরিবারগুলোর কন্ঠে কেবল পূর্বপূরুষের পেশা টিকিয়ে রাখার আকুতি।

মৎসজীবী নিতাই হালদার বলেন, ‘ আগে এক খ্যাও জাল ফেলায়া যে মাছ মারিছি, তা সারাদিন ধইরেও বেচি শ্যাষ করবের পারিনি। আর এহন দিনভর খ্যাও দিয়েও এককেজি মাছ পাওয়াই কঠিন ’। মৎসজীবী সন্তোষ হালদার বলেন, আগে চলনবিলে সারা বছর পানি থাকত। বাঁধ, ¯øুইচগেট তৈরী করে বিলে পানি ঢোকা বন্ধ করা হয়েছে। দিনে দিনে বিল শুকিয়ে ভরাট হয়েছে মাছ থাকবে কোথায় ? এর পাশাপাশি বিলের জমিতে রাসায়নিক সার ও কীটনাশক প্রয়োগে যেটুকু মাছ ছিল তাও টিকে থাকতে পারছে না। এখন বিলের মাঝে অনেকে হাইব্রীড মাছের চাষ করে চলনবিলের মাছ হিসেবে বিক্রি করলেও, চলনবিলের নিজস্ব দেশীয় মাছ পুরোটাই ধ্বংস হয়ে গেছে।

মাছ না পেয়ে নিদারূন অর্থকষ্টে পেশা পরিবর্তনে বাধ্য হচ্ছেন জেলেরা। হালদার পাড়া জেলে পলøীর তুষার হালদার জানালেন সে কথা। তিনি বলেন, চৌদ্দ পুরুষের পেশা পরিবর্তন করতে কখনোই মনে সায় দেয়নি। কিন্তু নিতান্তই বাধ্য হয়ে এ পেশা ছেড়ে ঢাকায় চাকুরি নিয়েছেন তিনি।
মৎস সম্পদ কমে যাওয়ার পেছনে অপরিকল্পিত স্থাপনা ও চাষাবাদে যথেচ্ছ রাসায়নিক কীটনাশকের ব্যবহারকে দায়ী করেছে স্থানীয় মৎসবিভাগ।

চাটমোহর উপজেলা সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান বলেন, চলনবিলকে তবিত করে নির্মিত বিভিন্ন স্থাপনার কারণে চলনবিল খন্ডিত হয়েছে, পলি পড়ে ভরাট হয়ে কমেছে আয়তন। এর পাশাপাশি বিলের স্বাভাবিক চলন বা প্রবাহ বাধাগ্রস্থ হওয়ায়, এর সাথে যেসব মাছের প্রজনন সম্পর্ক রয়েছে, তার অনেকটাই আজ বিলুপ্ত। এছাড়া চাষাবাদে যথেচ্ছ রাসায়নিক কীটনাশক দেশী মাছের প্রজাতি ধ্বংসের একটা বড় কারণ। এরপরও, মৎসবিভাগ অভয়াশ্রম করে দেশীয় মাছের প্রজাতি রায় কাজ করছে।

পরিবেশবিদরা বলছেন, উন্নয়নের নামে পরিবেশের উপর অযাচিত হ¯Íপে আর তথাকথিত কৃষি বিপবের রাসায়নিক সার ও কীটনাশকের প্রতিক্রিয়ায় গত ৩০ বছরে হারিয়ে গেছে চলনবিলের অন্তত ৪০ প্রজাতির দেশীয় মাছ। অ¯িÍত্ব সংকটে রয়েছে আরো বিভিন্ন প্রজাতি। এখন উদ্যোগ না নিলে প্রাকৃতিক এ মৎস ভান্ডার অচিরেই হয়ে পড়বে মাছশূন্য। মৎস সম্পদ রায় স্থানীয় জনগণকে সম্পৃক্ত করে অভয়াশ্রম গড়ে তোলার পরামর্শ পরিবেশবিদদের।

এ প্রসঙ্গে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মোঃ নাজমুল ইসলাম বলেন, চলনবিল কেন্দ্রিক বিভিন্ন অপরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মকান্ডের কুফল হিসেবে এ বিলের জীববৈচিত্র্য ও মৎস সম্পদ বিপন্ন হয়ে পড়েছে। এর প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে বিলনির্ভর বিশাল জনগোষ্ঠীর জীবন জীবিকায়।

এ ছাড়া মানুষের নির্মম লালসা কারণে অভয়াশ্রম থেকেও মাছ ধরে নেয়া হচ্ছে। কাজেই স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সম্পৃক্ততা ও সচেতনতা ছাড়া কোনভাবেই মৎস সম্পদ রা করা সম্ভব হবে না। এেেত্র স্থানীয় জনগোষ্ঠী নির্ভর সংরণ (কমিউনিটি বেসড প্রিসারভেশন) পদ্ধতির প্রয়োগ করা যেতে পারে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap