শিরোনামঃ

আজ শনিবার / ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ / শীতকাল / ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ২৫শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি / এখন সময় সকাল ৬:৪৩

চলনবিলের শুঁটকি রপ্তানি হচ্ছে দেশ-বিদেশে

বিশেষ প্রতিনিধি : মৎস্যভান্ডার খ্যাত পাবনার চাটমোহরসহ চলনবিলের শুঁটকি রপ্তানি হচ্ছে দেশ বিদেশে। বষা পানি নদী গুলো কমতে শুরু করলে শুঁটকি ব্যবসায়ী বিলপাড়ে চাতাল মিলাতে শুরু করে। বর্ষা মেীসুমে উৎপাদিত শুঁটকি দেশের চাহিদা মিটেয়ে বাহিরের দেশ গুলো রপ্তানি হয় বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। বর্ষা মৌসুমে চলনবিল কে ঘিরে শতশত পারিবার মাছ ধরে তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহ হয়ে থাকে। বিশেষ করে কার্তিক মাসের দিকে বর্ষার পানি চলে যাওয়ার সময় প্রচুর মাছ ধরা পড়ে। আর তখনই এই বিলের রা¯Íার পাশে নদীর তীরে সুবিধা মতো স্থানে গড়ে ওঠে ছোটো, বড়, মাঝারি ধরণের শুটকী মাছের চাতাল। চলে মাঘ মাসের কিছু অংশ পর্যন্ত। আর এই শুটকী মাছ দেশে চাহিদা মিটিয়ে ট্রাক যোগে সৈয়দ পুর হয়ে রপ্তানি হচ্ছে বিদেশে। তবে চায়না জালের প্রভাবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর মাছের পরিমান কম বলে জানান শুঁটকি মাছ চাতালের একাধিক মালিক।
পাবনা-নাটোর-সিরাজগঞ্জ জেলার প্রায় ষোলটি উপজেলার বুক জুড়ে রয়েছে দেশের অন্যতম বৃহত্তম চলনবিল। বিভিন্ন ফসলের পাশাপাশি বর্ষা মৌসুমে নানান প্রজাতির মাছ পাওয়া যায়। পুরো বর্ষা মৌসুমে এই চলনবিলে চলে মৎস শিকারীদের মাছ ধরা। মাছ ধরেই তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন শতশত পরিবার। বিশেষ করে কার্তিক মাসের শেষের দিকে বর্ষার পানি চলে যাওয়ার সময় প্রচুর পরিমনে মাছ ধরা পড়ে। সেগুলির মধ্যে পুটি, বোয়াল, সোল, টাকি, সিং, মাগুড়, কৈসহ নানান প্রজাতির মাছ রয়েছে। আর এই মাছকে কেন্দ্র করে চলনবিল পাড়ের সুবিদামতো স্থানে গড়ে উঠেছে অর্ধশাতাধিক শুঁটকির চাতাল। মৌসুমী এই শুঁটকির চাতাল গুলিতে শতশত শ্রমিক কাজ কারে তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহ করছেন।
সরেজমিন ভাঙ্গুড়া উপজেলার কলকতি গুমানী নদীর তীরে, চাটমোহর উপজেলার বোয়ালমারি খলিশাগাড়ি বিল ঘুরলে সেখানে শুঁটকি মাছের একাধিক চাতাল দেখা গেছে। সেখানে একাধিক চাতাল মালিকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কার্তিক মাসে শেষ দিকে থেকে মাঘ মাস পর্যন্ত এই সকল এলাকায় প্রচুর মাছ ধরা পড়ে। সেই সুবাদে বিলপাড়ে গড়ে ওঠে একাধিক শুঁটকির চাতাল।
তারা আরও জানান, প্রতিটি চাতালে চার থেকে ছয়জন করে শ্রমিক থাকে তাদের মাসিক বেতন ছয় থেকে পনেরো হাজার পর্যন্ত। পুঠি মাছ আকার ভেদে দুই হাজার থেকে সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত ক্রয় করেন তারা। প্রতি মণ মাছে তিন থেকে চার কেজি লবণ লাগে আর আবহাওয়া ভালো থাকলে শুকাতে প্রায় চারদিন সময় লেঘে যায়। প্রায় তিনমণ মাছ শুকিয়ে একমণ হয়। শুকানো মাছ ট্রাকযোগে সৈয়দ পুরে নিয়ে আকার ভেদে ১৮ থেকে ২৫হাজার টাকা পযন্ত প্রতিমণ বিক্রি করা যায়। সেখান থেকে রপ্তানি হয় বিদেশে।
ভাঙ্গুড়ার চাতাল শ্রমিক জমির উদ্দীন বলেন, ‘স্থানীয় ভাবে এই শুঁটকি মাছ বিক্রিয় হয় না। শুঁকিয়ে ব¯Íায় পুরে রেখে বেশি হলে ট্রাক যোগে সৈয়দপুরে নিয়ে বিক্রিয় করতে হয়।’
চাটমোহর উপজেলার খলিশাগাড়ি বিল পাড়ের চাতাল মালিক আব্দুর রহমান বলেন, এই মৌসুমে তারা বিলপাড়ে চাতালের পাশেই অবস্থান করেন এবং মাছ ক্রয় করে শুঁটকির চাতাল করে মাছ শুকিয়ে থাকেন। এ কাজ প্রায় ২৫বছর ধরে করছেন। তবে এবছর মাছের পরিমান অনেকটাই কম। বিশেষ করে চায়না নামক একধরণের নতুন জাল দিয়ে মাছ শিকার করার কারণে মাছের পরিমাণ কম বলে তার ধারণা।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap