শিরোনামঃ

আজ রবিবার / ১২ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ২৭শে নভেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ২রা জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ১:১৪

চলছে সুপারি বিক্রির ধুম, রফতানি হচ্ছে বিদেশেও

ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলার ঐহিত্যবাহী জমাদ্দার হাটে সুপারি কেনাবেচার হাট জমে উঠেছে। এছাড়াও বটতলা বাজার ও তালতলা বাজারে প্রতিদিন জেলা ও জেলার বাইরে থেকে ভীড় জমাচ্ছেন শত শত পাইকার। বিনা খরচে ও পরিচর্যায় উৎপাদিত এ সুপারি প্রতিদিন কেনা-বেচা চলছে লক্ষ লক্ষ টাকার।

কাঁঠালিয়ার ৬ ইউনিয়নেই এবার সুপারির বাম্পার ফলন হয়েছে। স্থানীয় বাজারগুলোতে এ বছর সুপারির দামও ভালো। ফলন ও দাম ভালো পাওয়ায় খুশি চাষিরা। কাঁঠালিয়ায় উৎপাদিত সুপারি জেলার চাহিদা মিটিয়ে বস্তায় প্যাকিং করে ট্রাকে করে পাঠানো হচ্ছে দেশের নানা প্রান্তে এমনকি রফতানি হচ্ছে বিদেশেও। সুপারি কিনতে দুর-দুরান্তের পাইকাররা এখন স্থানীয় বাজারগুলোতে ভিড় জমাচ্ছেন।

সুপারি চাষিরা জানিয়েছেন, একবার এ গাছ লাগালে তেমন কোনো পরিচর্যা ছাড়াই ৩০-৩৫ বছর ফলন দেয়। এতে আয় হয় ধানের চেয়ে তিন-চারগুণ বেশি। তাই এ অঞ্চলের কৃষকরা সুপারি চাষের দিকে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। তা ছাড়া সুপারি বাগানে অনায়াশে লেবু, হলুদসহ বিভিন্ন ফসল চাষ করা যায়।

কাঁঠালিয়া উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এ বছর কাঁঠালিয়া উপজেলার ৫৪ টি গ্রামের ৩৮৫ হেক্টর জমিতে বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা সুপারির বাগানে বাম্পার ফলন হয়েছে। অনেকে আবার বাড়ির পাশে সুপারি গাছ লাগিয়েও ভালো ফলন পেয়েছেন। গত এক যুগের মধ্যে এ বছর সবচেয়ে বেশি ফলন হয়েছে বলে দাবি করছে কৃষি বিভাগ।

বর্তমানে স্থানীয় বাজারগুলোতে সুপারির দামও বেশ ভালো থাকায় সুপারি বাগান মালিকরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। বাজারগুলোতে স্থানীয় হিসাব মতে প্রতি কুড়ি (২১০টি সুপারিতে এককুড়ি) সুপারির মূল্য ২শ’ থেকে ৩শ’ ৫০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। স্থানীয় বাজার ও বাগানগুলো থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকাররা এসে সুপারি কিনে নিচ্ছেন। তাদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্নস্থানে চলে যাচ্ছে কাঠালিয়ার সুপারি।

দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে কাঠালিয়ার সুপারির সুখ্যাতি থাকায় পাইকারদের হাত ঘুরে বড়জাতের সুপারি দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রফতানি হচ্ছে।

কাঁঠালিয়ার দক্ষিন চেচঁরি জমাদ্দার হাট এলাকার সুপারির বাগান মালিক মোঃ কামাল হোসেন হাওলাদার বলেন, বিগত এক যুগের চেয়ে এ বছর ফলন হয়েছে তিনগুণ। আর সুপারির আকারও হয়েছে অনেক বড়। এ বছর বৃষ্টির কারণে সুপারির ফলন ভাল হয়েছে। কোনো পোকার আক্রমণও নেই এ বছর আমি লক্ষাধিক টাকার সুপারি বিক্রি করতে পারব বলে আশা করছি।

কাঁঠালিয়ার আনইলবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা মাওলানা মুহিববুললাহ বলেন, আমার বাপ দাদার আমলের সুপারির বাগান। এ বছরের মত এত ফলন আগে দেখিনি। আমাদের বাগানের সুপারি বাজারে বিক্রির জন্য নেয়া লাগে না। পাইকাররা বাগান থেকেই সুপারি কিনে নেন।

কাঁঠালিয়ার জমাদ্দার হাটে সুপারি নিয়ে আসা বিক্রেতা মোঃ রবিউল ইসলাম জমাদ্দার বলেন, ৫ বস্তা সুপারি ৮ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। এগুলো পাইকাররা কিনে ঢাকা, খুলনা ও চট্টগ্রামের বাজারে বিক্রি করেন।

কাঁঠালিয়ার পশ্চিশ আউড়া থেকে সুপারি কিনতে আসা পাইকার নুরুন নবী তালুকদার বলেন, আমরা এখান থেকে সুপারি কিনে আড়তে নিয়ে যাই। সেখানে গিয়ে আড়তে সুপারির আকার নির্ধারণ করে বড় সাইজগুলো বিদেশে রফতানির জন্য মজুদ করি। অন্যান্য সুপারিগুলো দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চালান করছি।

কাঁঠালিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, এ বছর সুপারি চাষের জন্য অনুকূল আবহাওয়া সৃষ্টি হওয়ায় এ অঞ্চলে সুপারির ফলন অত্যাধিক ভালো হয়েছে। যা দেখে এলাকার মানুষ সুপারি চাষে আরো উৎসাহী হবে। সুপারি বাগান মালিকরা প্রতি বছরই সুপারি বিক্রি করে লাভবান হচ্ছেন।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap