শিরোনামঃ

আজ শুক্রবার / ২৪শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ৯ই ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৪ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় রাত ৯:৩৩

কারাগারের অস্থায়ী আদালতে যেতে খালেদার অস্বীকৃতি

ডেস্ক রিপোর্ট : কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া অস্থায়ী আদালতে যেতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তবে খালেদা জিয়া আদালতে উপস্থিত না হওয়ার কাস্টরি ওয়ারেন্ট পাঠিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ।

বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত অস্থায়ী কারাগারে আসতে এই অস্বীকৃতি জানান তিনি। এদিন জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় অস্থায়ী ঢাকার ৫ নং বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামান আদালতে যুক্তি উপস্থাপনের দিন ধার্য ছিল।

এ দিন খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে মামলার কার্যক্রম চলতে পারে কি না, সে বিষয়েও শুনানি হবে। আদালত জানিয়েছেন, এ মামলার আসামি জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও মনিরুল ইসলাম খান জামিনে থাকবেন।

এদিন আদালত দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে শুরু হয়ে সোয়া ১টা পর্যন্ত চলে। মুলতবি ঘোষণার আগে বিচারক ড. মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘আমার কাছে একটি চিঠি এসেছে। এতে খালেদা জিয়া বলেছেন, তিনি আর আদালতে আসবেন না।’ এ অবস্থায় প্রধান আসামির অনুপস্থিতিতে মামলার কার্যক্রম চলতে পারে কি না, সে ব্যাপারে আইনগত ব্যাখ্যা হাজির করার জন্য আসামিপক্ষের আইনজীবীদের নির্দেশ দেন আদালত।

অস্থায়ী আদালতে মামলায় খালেদা জিয়ার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া ও আমিনুল ইসলাম। দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন মোশাররফ হোসেন কাজল। এই কারাগারেই জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বন্দি আছেন বিএনপির চেয়ারপারসন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বলেন, কারাগার চত্বরে আদালত চলতে পারে না। এটা সংবিধান পরিপন্থী। এখানে আদালত চালানোর মতো কোনো পরিবেশ নেই। তাই এখানে মামলার কার্যক্রম চলতে পারে না।

এদিকে মামলার কার্যক্রমকে কেন্দ্র করে সকাল থেকেই আদালতের বাইরে মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য।

উল্লেখ্য, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় মোট আসামি চারজন। খালেদা জিয়া ছাড়া অভিযুক্ত অপর তিন আসামি হলেন—খালেদা জিয়ার তৎকালীন রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, হারিছ চৌধুরীর তৎকালীন একান্ত সচিব জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান। এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে সাক্ষ্য দিয়েছেন মোট ৩২ জন। ২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা করা হয়।

এর আগে ৪ সেপ্টেম্বর আইন মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপনে মামলার কার্যক্রম পরিচালনায় কারাগার চত্বরে অস্থায়ী আদালত বসানোর তথ্য জানানো হয়। পরদিন ৫ সেপ্টেম্বর মামলার কার্যক্রমে আইনজীবীরা না গেলেও খালেদা জিয়া হুইলচেয়ারে করে আদালতে আসেন। সেদিন খালেদা জিয়া আদালতে ৩০ মিনিটের মতো বিচারকের সামনে একটি হুইলচেয়ারে বসে ছিলেন।

ওই দিন খালেদা জিয়া আদালতকে বলেন, আমার পায়ে ব্যথা। ডাক্তার আমাকে পা সব সময় উঁচু করে রাখতে বলেছেন। হাতেও প্রচণ্ড ব্যথা। আমাকে জোর করে এখানে আনা হয়েছে। আমি খুবই অসুস্থ। আমি ঘন ঘন কোনো হাজিরা দিতে পারব না। রায় তো লেখাই আছে। আমার হাত-পা প্যারালাইজড হয়ে যাচ্ছে। আপনাদের যা ইচ্ছা রায় দেন, যত খুশি সাজা দিয়ে দেন।

বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) খালেদা আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় পরবর্তী শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দিন ধার্য করেছেন আদালত।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap