শিরোনামঃ

আজ মঙ্গলবার / ১১ই আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ / বর্ষাকাল / ২৫শে জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ / ১৯শে জিলহজ ১৪৪৫ হিজরি / এখন সময় রাত ৮:৪৩

কদমের ঘ্রাণে বর্ষার আগমনী বার্তা

সনত চক্র বর্ত্তী, ফরিদপুর প্রতিনিধি :ফরিদপুরে জ্যৈষ্ঠের তাপদাহে দেখা মিললো আষাঢ়ের ঘন বর্ষায় ফোঁটা কদমের। জেলার বিভিন্ন এলাকায় এখন গাছে গাছে ছেয়ে গেছে বর্ষার এ ফুলে। প্রকৃতির নিয়মে বর্ষার স্মারক বহন করছে কদম ফুল। কদমের শুভ্ররাগে হৃদয় রাঙিয়ে নেয়ার সুযোগ সবাই পাচ্ছে। তাইতো বর্ষায় গাছে গাছে ঘ্রাণ ছড়াচ্ছে কদম ফুল।

বর্ষার আগমনী বার্তা বহনকারী হিসেবে পরিচিত কদম ফুল আষাঢ় মাসে দেখতে পাওয়ার কথা থাকলেও জ্যৈষ্ঠের মাসেই  দেখা মিলছে তার। এখনই গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে সেই কদম ফুল।

বর্ষার বন্দনায় কদম ফুল স্থান পেয়েছে  আমাদের গানে কবিতায় ও শিল্প সাহিত্যে। যেমন-প্রাণ সখীরে/ ঐ শোন কদম্ব তলে বংশী বাজায় কে/ বংশী বাজায় কে রে সখী, বংশী বাজায় কে/ আমার মাথার বেণী বদল দেবো, তারে আইনা দে। বাদল-দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান/ আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান/ মেঘের ছায়ায় অন্ধকারে রেখেছি ঢেকে তারে/ এই-যে আমার সুরের ক্ষেতের প্রথম সোনার ধান/রবি ঠাকুরের এ গান কে না জানে। কদম নামটি এসেছে সংস্কৃত নাম কদম্ব থেকে। প্রাচীন সাহিত্যের একটি বিশাল অংশজুড়ে রয়েছে কদম ফুলের আধিপত্য। মধ্যযুগের বৈষ্ণব সাহিত্যেও কদম ফুলের সৌরভমাখা রাধা-কৃষ্ণের বিরহগাথা রয়েছে। ভাগবত গীতাতেও রয়েছে কদম ফুলের সরব উপস্থিতি। বর্ষা নিয়ে কবি, সাহিত্যিক ও গায়কদের উৎসাহের কমতি নেই। আর এ রূপসী বাংলা ছাড়া বিশ্বের কোথাও বর্ষার এ স্বতন্ত্র প্রাকৃতিক রূপ চোখে পড়ে না।

কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পরিবেশসহ বিরূপ প্রভাব পড়েছে তাপমাত্রার উপরও। আবহাওয়ার বিরূপ এই রূপ উদ্ভিদের আচরণেরও পরিবর্তন ঘটিয়েছে বলে মনে করেন উদ্ভিদবিদরা।

কদম নামটি এসেছে সংস্কৃত নাম কদম্ব থেকে। প্রাচীন সাহিত্যের একটি বিশাল অংশজুড়ে রয়েছে কদম ফুলের আধিপত্য।

ফুলের বাহার যতই থাক, কদমের মূল্য তেমন নেই। দ্রুত বেড়ে উঠলেও এর কাঠ নরম। কদম গাছের কাঠ দিয়ে তৈরি হয় দেশলাই।

কদম ফুলের আদি নিবাস ভারতের উষ্ণ অঞ্চল, চীন ও মালয়ে। কদম গাছের পাতা লম্বা, উজ্জ্বল সবুজ ও চকচকে। বসন্তের শুরুতে গাছে নতুন পাতা গজায় এবং শীতে গাছের পাতা ঝরে যায়। কদম ফুল গোলাকার। পুরো ফুলটিকে একটি ফুল মনে হলেও এটি আসলে অসংখ্য ফুলের গুচ্ছ। এ ফুলের ভেতরে রয়েছে মাংসল পুষ্পাধার, যাতে হলুদ রঙের ফানেলের মতো পাপড়িগুলো আটকে থাকে। পাপড়ির মাথায় থাকে সাদা রঙের পরাগদন্ড। ফল বাদুড় ও কাঠবিড়ালির প্রিয় খাদ্য। ওরাই বীজ ছড়ায়।

ময়না সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক
কালিপদ চক্র বর্ত্তী বলেন, কৈশরে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে কদম ফুল সংগ্রহ করে খেলা করেছি এবং কদম ফুলের গোটা দিয়ে মারবেল খেলা করে আনন্দ উপভোগ করেছি। কিন্তু কালের চক্রে সৌন্দর্য বর্ধক এই বৃক্ষটি দিন দিন বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে ।

About zahangir press

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap