শিরোনামঃ

আজ বৃহস্পতিবার / ১৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / হেমন্তকাল / ১লা ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ৬ই জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৭:৪৬

ঐতিহ্যবাহী পাবনা জেলার ১৯০ তম জন্মদিন আজ

স্বাধীন খবর ডেস্ক : ঐতিহ্যবাহী পাবনা জেলার ১৮৯ তম জন্মদিন আজ। মঙ্গলবার (১৬ অক্টোবর) দেশের অন্যতম প্রাচীনতম জেলা ইহিতা আর ঐতিহ্যে ভরপুর পাবনার ‘জন্মদিন’। এর মাধ্যমে পাবনা জেলার বয়স বেড়ে দাঁড়ালো ১৮৯ বছর-এ। ১৮২৮ সালের ১৬ অক্টোবর পাবনাকে জেলা হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

পাবনা জেলার জন্মদিন পালন উপলক্ষ্যে সোমবার পাবনা জেলা পরিষদের উদ্যোগে মিষ্টি বিতরণ ও জেলা পরিষদ ভবন আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়। পাবনা পৌরসভার উদ্যোগেও মিষ্টি বিতরণ।

পাবনা জেলার ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৭৯০ সালে বর্তমান পাবনা জেলার বেশীরভাগ অংশ রাজশাহী জেলার একটি থানা হিসাবে ছিলো। ওই সময় জেলার আইন শৃংখলা পরিস্থিতির উন্নতির জন্য ১৮২৮ সালে পাবনায় তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের মালদহ জেলার ম্যাজিষ্ট্রেট মি. এ ডাব্লিউ মিল্সকে জয়েন্ট ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োগ করা হয়।

১৮২৮ সালের ১৬ অক্টোবর পাবনাকে জেলা হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এর চারবছর পর ১৮৩২ সালে জয়েন্ট ম্যাজিষ্ট্রেটের পরিবর্তে ডেপুটি কালেক্টর নিয়োগের মাধ্যমে পাবনা পায় পূর্ণাঙ্গ জেলার মর্যাদা। কোম্পানী শাষনের অবসানের পর ১৮৫৮ সালে বৃটিশ সম্রাজ্ঞী রাণী ভিক্টোরিয়ার শাষনাধীনে চলে যায় পাবনা জেলা। এর আগে ১৮৫৫ সালে ময়মনসিংহ জেলা থেকে সিরাজগঞ্জ থানাকে পৃথক করে পাবনা জেলার মধ্যে অন্তর্ভূক্ত করা হয়।

১৮৭৮ সালের ১৯ জানুয়ারী জেলায় প্রথম রেলপথ স্থাপিত হয়। প্রথম মোটর সার্ভিসের প্রবর্তন করা হয় ১৯২৬ সালে। ১৯৪০ সালের পর পাবনা শহরে রিকশার প্রচলন ঘটে। বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন সহ সবকটি আন্দোলন সংগ্রামে পাবনা জেলার রয়েছে গৌরবময় ইতিহাস। হোসিয়ারী শিল্প, তাঁত শিল্প, কাঁচি শিল্প, বেনারসি-কাতান সহ অন্যান্য শিল্প সমৃদ্ধ এই জেলা একসময়ে ছিল দেশের অন্যতম বাণিজ্য কেন্দ্র।

৩৫১ দশমিক ৫০ বর্গ কিলোমিটার আয়তন বিশিষ্ট পাবনা জেলা বর্তমানে ৯টি উপজেলা, দুটি থানা ও ৭২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। ২০১১ সালের আদম শুমারীর চুড়ান্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী পাবনা জেলার বর্তমান মোট জনসংখ্যা ২৫ লাখ ২৩ হাজার ১৭৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১২ লাখ ৬২ হাজার ৯৩৪ জন এবং মহিলা ১২ লাখ ৬০ হাজার ২৪৫।

জেলা গঠনের ১৮০ বছর পর ২০০৮ সালে ‘আজকের প্রজন্ম ফোরাম’ নামের কোনো সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রথম পাবনা জেলার জন্মদিন পালনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এর আগে কখনো কোনো সংগঠনের পক্ষ থেকে এ ধরণের আয়োজনের কোনো পরিসংখ্যান পাওয়া যায়নি।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap