শিরোনামঃ

আজ বুধবার / ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ / শরৎকাল / ১৭ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ / ১৮ই মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি / এখন সময় সন্ধ্যা ৭:২০

আটঘরিয়ায় মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের বিজয়স্তম্ভ ভিত্তিপ্রস্তর ১৮ বছরেরও নির্মান হয়নি

মাসুদ রানা, আটঘরিয়া, পাবনা : পাবনার আটঘরিয়া উপজেলায় মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের বিজয়স্তম্ভ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন দীর্ঘ ১৮বছরেরও নির্মান করা হয়নি। প্রতিবছরই এই সময় বীরমুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে শুরু হয় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার ঝড় ওঠে। লাল সবুজ কাপড়ে জড়ানো বাঁশ কাঠ আর বেঞ্চ দিয়ে সাজানো মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভে এবারও মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের পুষ্পস্তবক অর্পণ। বীরমুক্তিযোদ্ধা রফিক উদ্দিন (ইউএনও) আটঘরিয়া উপজেলার মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি রক্ষার্থে স্বাধীনতা যুদ্ধের বিজয় স্তম্ভ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন ১/০৮/২০০১ইং তারিখে।

২৬মার্চ/২০১৯ইং মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে সরেজমিনে দেখা যায়, পাবনার- চাটমোহর সড়কের আটঘরিয়া উপজেলার প্রধান ফটক ও আটঘরিয়া প্রেসকাবের মাঝ খানে ফাঁকা জায়গায় তৈরি করা হয়েছে বাঁশ কাঠ আর বেঞ্চি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের একটি অস্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভ। সবুজ লাল কাপড় দিয়ে জড়ানো হয়েছে অস্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভটি। ভাড়া নেওয়া ডেকোরেটর শ্রমিকেরা সাজিয়ে তুলেছেন এই অস্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভটিকে। দীর্ঘ আকাশ ছোয়া লম্বা ছয়টি বাঁশ মাটিতে পুতে (গর্ত) করে সবুজ কাপড় দিয়ে জড়িয়ে রাখা হয়েছে। দাড় করা অবস্থা বাঁশ গুলোর মাঝ খানের একটু উপরে লাল রংয়ের কাপড় লাগানো আছে। তার সাথে মাটিতে বেঞ্চ দিয়ে সাজানো হয়েছে স্মৃতিমঞ্চ। স্মৃতি স্তম্ভের তিন পাশ ঘেরা হয়েছে লাল কাপড় দিয়ে।

আটঘরিয়া উপজেলার মেইন গেটের ডান পাশে একটি ভিত্তি প্রস্তুর ফলক পড়ে আছে। ধুলা বালি ময়লা আবর্জনা ঢেঁকে আছে ভিত্তি প্রস্তরটি।
এই উপজেলায় একটি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ তৈরির জন্য ১/৮/২০০১ ইং এবং বাংলা ১৭/৪/১৪০৮ ইং তারিখে ফলকটি উন্মোচন করেছিল তৎকালিন ইউএনও বীরমুক্তিযোদ্ধা রফিক উদ্দিন। কিন্তু ১৮ বছর পার হয়ে গেলেও স্মৃতিস্তম্ভটি আজও নির্মান হয়নি। ক্ষোভ মুক্তিযোদ্ধা সহ উপজেলা বাসীর।

স্বাধীনতা দিবস ও বিশেষ দিন আসলেই ভাড়া করা হয় ডেকোরেট থেকে বাঁশ কাঠ আর বেঞ্চ। তখন উপজেলা প্রশাসন দিবসটি উদযাপন জন্য বাঁশ কাঠের ফ্রেমে কাপড় জড়িয়ে একটি অস্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভ তৈরি করেন। সেখানে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে হয় এলাকাবাসিকে। এবারের স্বাধীনতা দিবসেও একই চিত্র। এবারও বাঁশ কাঠ দিয়ে বানিয়ে দেওয়া স্মৃতিস্তম্ভতেই স্বাধীনতা দিবসে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করতে হয়েছে উপজেলাবাসীকে। তবে এই অস্থায়ী স্মৃতি স্তম্ভে ফুল দিতে আসা অনেকেই মন্তব্য করেছেন কেন ? এই স্মৃতিস্তম্ভটি নির্মান করা হয় না। প্রশাসনের কাছে প্রশ্ন তাদের ?

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে,সারা বছরের মতো আটঘরিয়া উপজেলাকে ঘিরেও রয়েছে স্বাধীনতা সংগ্রামের গুরুত্বপূর্ন ইতিহাস। এখানে সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হয়েছেন অনেক মুক্তিযোদ্ধা। সম্ভম হারিয়েছেন বীরঙ্গণারা। উপায় না পেয়ে উপজেলা বাসি বিজয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবসে ভিত্তিপ্রস্তুরেই শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, আগে ভিত্তি প্রস্তুরেই ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হতো। এখন অস্থায়ী স্মৃতি স্তম্ভ হয়েছে। এটা একটা শান্তনা স্বরুপ। সন্ধা লাগার সাথে সাথে ভাড়া নিয়ে ডেকোরেটরের শ্রমিকেরা তাদের বাঁশ কাঠ আর বেঞ্চ খুলে নিয়ে যায়। আটঘরিয়া উপজেলায় একটি স্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভ নির্মান করা অতি জরুরী বলে মনে করছেন তারা ।

স্থানীয় যুক মাসুদ রানা জানান, মুক্তিযুদ্ধ ছিলো আটঘরিয়া একটি ঘটনাবহুল ইতিহাস। দিনে দিনে বহু নতুন ইতহাস উন্মোচিত হচ্ছে। কিন্তু আজও একটি মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভ তৈরি হয়নি। এটা একটি দু:খজনক।
মুক্তিযোদ্ধা কেএম শহীদুল ইসলাম হীরা জানান, এই উপজেলা নতুন নতুন কত স্থাপনা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের জন্য অফিসার্স কাব হয়। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের জন্যও এটা লজ্জার ব্যাপার।
আটঘরিয়া উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জহুরুল হক জানান, ১৯৯৬সালে স্মৃতিস্তম্ভটি তৈরির জন্য একবার প্রকল্প দেওয়া হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে জোট সরকার ক্ষমতায় এসে সে প্রকল্প বাতিল করে। এরপর উপজেলা প্রশাসন বহুবার স্মৃতিস্তম্ভ তৈরির জন্য প্রকল্প জমা দিয়েছে। কিন্তু তা অনুমোদন হয়নি। ফলে স্মৃতিস্তম্ভ হয়নি।
আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: আকরাম আলী জানান, মূূলঅর্থাভাবেই কাজটি হয়নি। তবে বর্তমানে আমরা স্থানীয় ভাবেই অর্থ জোগাড় করে এটি বাস্তবায়ন এর জন্য চেষ্টা করছি।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Share via
Copy link
Powered by Social Snap